স্বল্পবসন পুরুষ দেখে উত্তেজিত হয় মেয়েরাও, ইমরানকে পাল্টা তসলিমার

Taslima-attacks-Imran.jpg

Onlooker desk: তাঁর ছবি দেখে এক সময়ে লক্ষ লক্ষ নারীর মাথা ঘুরে গিয়েছিল। তেমনই একটি ছবি পোস্ট করে ইমরান খানকে (Imran Khan) পাল্টা তোপ দাগলেন তসলিমা নাসরিন (Taslima Nasreen)। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরানের সাম্প্রতিক মন্তব্য ঘিরেই বিতর্ক। বস্তাপচা, পুরুষতান্ত্রিক ধারণা বলে ইতিমধ্যেই সে জন্য সমালোচিত হচ্ছেন ইমরান। পাল্টা দিতে সময় নিলেন না তসলিমা।
এক সাক্ষাৎকারে ইমরান বিতর্কিত মন্তব্যগুলি করেন। তাঁর কথায়, ‘যদি মহিলারা স্বল্প জামাকাপড় পরেন, তা হলে পুরুষর উত্তেজিত হবেন। যদি না তাঁরা রোবট হন। এটা তো কমন সেন্স।’
ব্যাস! বেধেছে বিতর্ক। ইমরানের (Imran Khan) একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করেন তসলিমা (Taslima Nasreen)। পাক প্রধানমন্ত্রী তখন বিশ্ব ক্রিকেটের তারকা। ক্লোজ-আপ শটে শরীরের উপরিভাগে জামা নেই। বুক উন্মুক্ত। ইমরানের চোখে ‘সিগনেচার’ দৃষ্টি। সঙ্গে তসলিমার লেখা — যদি পুরুষ খুব স্বল্প পোশাক পরে, তবে তার প্রভাব নারীর উপরে পড়বে। যদি না তিনি রোবট হন।

Bushra Bibi

ইমরানের বর্তমান স্ত্রী বুশরা বিবি। পোস্টে এঁর কথাই উল্লেখ করেছেন তসলিমা

ফেসবুকেও একটি পোস্ট করেন সাহিত্যিক। সেখানে ইমরানের বক্তব্য টেনে তসলিমা লেখেন, ইমরান যে বুশরা বিবিকে (Bushra Bibi) বিয়ে করেছেন, তিনি বোরখা পরেন। তাঁকে দেখে নিদারুণ ‘উত্তেজিত’ হন পাক প্রধানমন্ত্রী। প্রসঙ্গত, বুশরা বিবি ইমরানের তৃতীয় ও বর্তমান স্ত্রী।
এই সূত্রে ইমরানকে ‘রোবট’ বলতেও ছাড়েননি তসলিমা। লেখেন — তা হলে তো মেয়েরা বড় পোশাক পরলে যারা উত্তেজিত হয়, তারা রোবট। তারা পুরুষ নয়। ইমরান খান কি তবে রোবট? এই প্রশ্নটি মজার। কিন্তু পুরো ব্যাপারটা মজার নয়। ইমরান খানকে একদার ‘প্লেবয়’ বলেছেন তসলিমা। তিনি শুরু থেকেই নারীবিদ্বেষী কি না, তুলেছেন সে প্রশ্ন।
আগের মন্তব্যের আবার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন ইমরান (Imran Khan)। অশালীনতার জেরেই দেশে যৌন হিংসা বাড়ছে। বিশেষত শিশুদের উপরে নিগ্রহ বাড়ছে। এমনটাই নাকি বলতে চেয়েছেন তিনি। নিজের আগের বক্তব্যে পাকিস্তানি সমাজের প্রসঙ্গও টানেন তিনি। তাঁর বক্তব্যের নির্যাস হলো, সমাজে উস্কানি বাড়লে আর তরুণ সমাজ যাবে কোথায়! বিশেষ করে যে সমাজ এ রকম ‘ইন্ধনমূলক’ জিনিস দেখে অভ্যস্ত নয়।
তাঁর মন্তব্যের একটি ভিডিয়ো শেয়ার করেন পাকিস্তান মুসলিম লিগ (পিএমএল) মুখপাত্র মারিয়াম ঔরঙ্গজেব। তাঁর দাবি, এতেই ইমরানের অসুস্থ মানসিকতা, নারীবিদ্বেষ, সঙ্কীর্ণতার পরিচয়। তাঁর টুইট — মহিলাদের জন্য যৌন নিগ্রহ হয় না। এই জঘন্য অপরাধে জড়িত হওয়ার সিদ্ধান্ত পুরুষেরই।
আরও একটি টুইট করেন মারিয়াম। সেখানে তাঁর কটাক্ষ — এরপরে শিশু নিগ্রহকারী (পিডোফিল), খুনিদেরও সমর্থন করতে পারেন উনি। এ সব বলে তো ধর্ষণের ব্যাখ্যা দিচ্ছেন।
পাকিস্তানের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দিনে ১১টি ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হয়। গত ৬ বছরে দায়ের হয়েছে মোট ২২ হাজার অভিযোগ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top