ট্রাকে মুসলিম পরিবারের তিন প্রজন্মকে পিষে দিল আততায়ী, নিন্দা পাক প্রধানমন্ত্রীর

Truck-driver-kills-4-in-Canada.jpg

Onlooker desk: এক মুসলিম পরিবারের চার সদস্যকে ট্রাক চালিয়ে পিষে দেওয়ার অভিযোগ উঠল বছর ২০-র এক ট্রাক চালকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি কানাডার অন্টারিও প্রদেশের। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাটি পূর্ব পরিকল্পিত। কারণ অভিযুক্তের পরনে ছিল বর্ম জাতীয় পোশাক। এই ঘটনার পর টুইট করে কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তাঁর দাবি, মৃতরা পাকিস্তানের মুসলিম পরিবারের। এই ঘটনা পশ্চিমি দুনিয়ায় ইসলাম বিদ্বেষের উদাহরণ। এমন ঘটনাকে রুখতে গোটা দুনিয়াকে এক জোট হয়ে লড়াইয়ের আবেদন জানিয়েছেন তিনি।
রবিবার সন্ধ্যায় পিক আপ ভ্যান চালিয়ে চারজনকে হত্যার পরে অন্টারিওর লন্ডন এলাকার ঘটনাস্থল ছেড়ে পালায় সে। সেখান থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে একটি মল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছেন ডিটেকটিভ সুপারিনটেনডেন্ট পল ওয়েট। সাংবাদিক বৈঠকে পল বলেন, ‘ঘৃণা থেকে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে, সেটা প্রমাণিত। মুসলিম বলেই পরিবারটিকে নিশানা করা হয়েছিল বলে প্রাথমিক ভাবে আমাদের অনুমান।’
মৃতদের নাম পরিচয় জানায়নি পুলিশ। তবে তাঁদের মধ্যে ৭৪ বছরের এক বৃদ্ধা, ৪৬ ও ৪৪ বছরের দুই মহিলা এবং বছর ১৫-র এক কিশোরী ছিল। বছর নয়েকের এক বালকও ঘটনায় আহত হয়। সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এলাকার মেয়র এড হোল্ডার জানান, মনে হচ্ছে পরিবারের তিন প্রজন্ম একসঙ্গে কোথাও যাচ্ছিলেন। তখনই হামলা চালায় আততায়ী। মেয়র বলেন, ‘দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানাতে চাই যে অবর্ণনীয় ঘৃণা থেকে মুসলিমদের তথা এলাকাবাসীকে গণহত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে এই হামলা চালানো হয়।’ নাথানিয়েল ভেল্টম্যান নামে ওই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে খুনের চারটি ফার্স্ট ডিগ্রি এবং একটি হত্যার চেষ্টার মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ আনারও চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন পল ওয়েট।
রবিবার রাত ৮টা ৪০ মিনিট নাগাদ পরিবারটির পাঁচ সদস্য হেঁটে যাচ্ছিলেন। রাস্তা পেরোনোর জন্য এক সময়ে একটি ক্রসিংয়ে দাঁড়ান তাঁরা। তখনই পিক আপ ট্রাক নিয়ে তাঁদের পিষে দেয় ভেল্টম্যান। তদন্তের গতিপ্রকৃতি নিয়ে পুলিশ খোলসা করে কিছু বলতে না চাইলেও পল জানান, অভিযুক্তের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
এই ঘটনার সূত্রে ২০১৭-র কিউবেক সিটি মসজিদে গুলিচালনায় ছ’জনের মৃত্যু ও ২০১৮-র এপ্রিলে টরোন্টোয় গাড়ির চাকায় পিষে ১০ জনকে হত্যার মর্মান্তিক স্মৃতি ফিরে এসেছে। সমালোচনার ঝড় উঠেছে নানা মহলে।
দ্য ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ কানাডিয়ান মুসলিমস একটি বিবৃতিতে জানিয়েছে, এই ঘটনায় তারা অত্যন্ত সন্ত্রস্ত এবং বিচারের দাবি জানাচ্ছে। মনোরম এক বসন্তের সন্ধ্যায় হাঁটতে বেরিয়ে পরিবারটির যে মর্মান্তিক পরিণতি হলো, তা তারা মেনে নিতে পারছে না। ঘৃণা এবং ইসলামোফোবিয়া থেকে জন্ম নেওয়া এ ধরনের অপরাধ অবিলম্বে বন্ধের দাবিতে সরব বহু নেট নাগরিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top