গাজার বহুতলে হামলা ইজরায়েলের, পাল্টা হামাসের, রক্তাক্ত প্যালেস্তাইন-ইজরায়েল

WhatsApp-Image-2021-05-13-at-10.49.28-AM.jpeg

বিধ্বস্ত গাজার চিত্র

Onlooker desk: ইজরায়েল বনাম ইসলামি জঙ্গি গোষ্ঠী হামাসের সংঘর্ষে ছেদ নেই। বুধবার ইজরায়েলের হানায় গাজার বিশালাকার বহুতল কার্যত গুঁড়িয়ে গিয়েছে. ১৪ শিশু-সহ ৪৮ প্যালেস্তিনিয়র মৃত্যু হয়েছে। তিনশোরও বেশি মানুষ জখম।
গাজার ওই ভবনে হামলার ঘটনাটি ইজরায়েলের বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে সম্প্রচার করা হয়। সেখানে ভাষ্যকাররা এই অনুমানও জানান যে এবার হয়তো গাজার জঙ্গিরা রকেট হামলা চালাবে। ইজরায়েলের হামলার পাল্টা হিসাবে ১৩০টি রকেট লঞ্চ করা হয়েছে বলে হামাসের দাবি।
বুধবার দিনের শুরুতে ইজরায়েলি সেনা জানিয়েছিল, গাজা ও খান ইউনিসে বায়ু-হামলায় বেশ কজন হামাস জঙ্গি নেতাকে খতম করা গিয়েছে। বিবৃতি জারি করে সেনার দাবি ছিল, অত্যন্ত জটিল এবং নজিরবিহীন হানাদারি চালিয়ে তারা হামাস জঙ্গিদলের বহু শীর্ষস্থানীয় নেতাকে নিকেশ করেছে।
বুধবার গাজায় শ’খানেক বায়ু-হামলা চালায় ইজরায়েল। হামাস ও অন্য প্যালেস্তিনিয় জঙ্গিরা আবার তেল আভিভ ও বীরশেবা লক্ষ করে রকেট ছোড়ে। এই হামলা, পাল্টা হামলায় গাজায় ৪৮ জন প্যালেস্তিনিয় এবং ইজরায়েলে ৫ জনের মৃত্যু হয়।
ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু হামলা আরও বাড়ানো হবে বলে জানান। গাজার তরফেও বেশি রাতে একের পর এক রকেট ছোড়া হয়। যার জেরে তেল আভিভ মেট্রোপলিটানের মতো ঘিঞ্জি এলাকায় মৃত্যু হয় বেশ কিছু মানুষের। ২০১৪ থেকে যুযুধান দুই শিবিরের মধ্যে এটাই সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা। এবং তা থামার কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।
দিন তিনেক হলো দুই শত্রু শিবিরের মধ্যে এই সংঘর্ষ শুরু হয়েছে। যা দেখে ২০১৪-য় দুই দলের মধ্যে যে ৫০ দিনের যুদ্ধ হয়েছিল, তার কথা মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এ বারও কোনও পক্ষের তরফে বিরতি ঘোষণার ইঙ্গিত নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top