পাকিস্তানে যাত্রা শুরু করল রূপান্তরকামীদের জন্য প্রথম স্কুল

Polish_20210709_004650315.jpg

Onlooker desk: রূপান্তরকামীদের জন্য প্রথম পৃথক স্কুল খোলা হল পাকিস্তানে। বুধবার মুলতানে যাত্রা শুরু করেছে এই স্কুল। পাঞ্জাবের প্রাদেশিক শিক্ষামন্ত্রী ডঃ মুরাদ রাস জানিয়েছেন, প্রদেশের আরও কয়েকটি শহরে রূপান্তরকামীদের জন্য স্কুল খোলা হবে।
একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলকে সাক্ষাৎকারে এই পদক্ষেপের কারণ ব্যাখ্যা করেন মুরাদ রাস। জানান, রূপান্তরকামী সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে ভবিষ্যৎ সম্পর্কে অনিশ্চয়তা কাটাতেই এই পদক্ষেপ। তিনি বলেন, ‘এরপরে এই সম্প্রদায়ের মানুষকে সাধারণ স্কুলে আনার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। কিন্তু সব একসঙ্গে না করে একটি একটি করে পদক্ষেপ করা হবে।’ টুইটারে স্কুলটির ছবিও শেয়ার করেন তিনি। ১৮ জন রূপান্তরকামী ওই স্কুলে নাম নথিভুক্ত করেছেন।
তবে সাধারণ স্কুলে রূপান্তরকামীদের ভর্তির আগে বাকি ছাত্রছাত্রীদের মানসিকতা বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। যাতে তা খোলা হলে রূপান্তরকামীদের জন্য অসম্মানজনক কিছু না ঘটে। রাসের দাবি, পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ বাদে কোনও দল এঁদের পড়াশোনা, চাকরি নিয়ে এর আগে ভাবেনি।
মুলতানে এই কাজের পিছনে অন্যতম বড় ভূমিকা দক্ষিণ পাঞ্জাবের শিক্ষা সচিব ডঃ এহতিশাম আনোয়ারের। তাঁরও প্রশংসা করেন মুরাদ রাস। ইনসাফ আফটারনুন স্কুলের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে এ কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী।
এ নিয়ে একটি টুইটও করেন মুরাদ রাস। তিনি লেখেন — পাকিস্তানে রূপান্তরকামীদের জন্য সর্বপ্রথম স্কুল খুলছি আমরা। দেশে কাউকেই শিক্ষা থেকে বঞ্চিত রাখব কেন? আমাদের প্রথম স্কুল খোলা হচ্ছে মুলতানে। ঈশ্বরের কৃপায় পাঞ্জাবের সব জেলাতেই এমন স্কুল খোলা হবে। একটি একটি করে পদক্ষেপে এগোচ্ছি আমরা। শিক্ষা সকলের জন্য।’
দ্য গভর্নমেন্ট কমপ্রিহেনসিভ স্কুল ফর গার্লস নামে এই বিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয় বুধবার। উদ্বোধন করেন এহতিশাম। নার্সারি থেকে ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ট পঠনপাঠন হবে স্কুলটিতে। দপ্তরের আধিকারিকরা জানান, নার্সারি থেকে প্রাথমিক পর্যন্ত রূপান্তরকামীদের জন্য পাঠ্যক্রম তৈরি হয়েছে জাপানে। মিডল স্কুল থেকে ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ত পঠনপাঠন হবে পাকিস্তানি এডুকেশন বোর্ডের পাঠ্যক্রম অনুযায়ী।
রূপান্তরকামীদের সঙ্গে আলোচনার পরেই এই স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত বলে মন্ত্রী জানান। এর আগে ইসলামাবাদে রূপান্তরকামীদের জন্য আলাদা মাদ্রাসা তৈরি করেছে সরকার। ২০১৯-এর জনসুমারি অনুযায়ী, পাকিস্তানে রূপান্তরকামীর সংখ্যা তিন লক্ষের আশপাশে। যদিও প্রকৃত সংখ্যা তার তুলনায় বেশি হতে পারে। রূপান্তরকামীদের অধিকার রক্ষায় ২০১৮-র ৭ মার্চ ঐকমত্যের ভিত্তিতে বিল গ্রহণ করে পাকিস্তানের সেনেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top