দাউদাউ আগুন গাল্ফ অফ মেক্সিকোর জলে, নেটিজেনরা নাম দিলেন ‘আই অফ ফায়ার’

eye-of-fire.jpg

Onlooker desk: জলে আগুন। স্ফুলিঙ্গ নয়। দাউদাউ আগুন জ্বলতে দেখা গেল মেক্সিকোর পশ্চিমে গাল্ফ অফ মেক্সিকোর ইয়ুকাতান পেনিনসুলায়। শুক্রবারের সেই আগুনের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়।
আগুন নেভানো গিয়েছে বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল সংস্তা পেমেক্স। জলের নীচে একটি পাইপলাইন থেকে গ্যাস লিক হয়ে এই অগ্নিকাণ্ড। এমনটাই জানিয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত ওই সংস্থা।
শুক্রবার বিরল ওই দৃশ্যের দেখা মেলে। গলিত লাভার মতো দাউদাউ করে আগুন জ্বলতে থাকে গাল্ফ অফ মেক্সিকোর ওই অংশে। গোলাকার আগুনের পিণ্ড দেখে তাকে ‘আই অফ ফায়ার’ নাম দেন নেটিজেনরা। পেমেক্স অয়েল প্ল্যাটফর্মের অল্প দূরত্বে আগুনটি লাগে।
রাষ্ট্রায়ত্ত ওই সংস্থা জানিয়েছে, আগুন পুরোপুরি নেভাতে পাঁচ ঘণ্টা সময় লেগেছে।
কু ম্যালুব জ্যাপ অয়েল ডেভেলপমেন্টের সঙ্গে এই আগুনের যোগ রয়েছে। এটি পেমেক্সের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও ফ্ল্যাগশিপ প্রজেক্ট। কারণ যে আন্ডারওয়াটার পাইপলাইন থেকে গ্যাস লিক করে, সেটি কু ম্যালুব জ্যাপের একটি প্ল্যাটটফর্মের সঙ্গে যুক্ত।
গাল্ফ অফ মেক্সিকোর দক্ষিণ রিমের একটু উপরেই কু ম্যালুব জ্যাপের অবস্থান।
পেমেক্স জানিয়েছে, এই ঘটনায় কেউ আহত হননি। স্থানীয় সময় ভোর সওয়া পাঁচটা নাগাদ গ্যাস লিক হয়। তবে তাতে উৎপাদনে প্রভাব পড়েনি। সাড়ে দশটার মধ্যে আগুন সম্পূর্ণ ভাবে নিভিয়ে ফেলা সম্ভব হয়।
কী করে এমন কাণ্ড ঘটলা, তার তদন্ত হবে বলে জানিয়েছে পেমেক্স।

fire in Gulf of Mexico
এই প্রথম নয়। পেমেক্সের বিভিন্ন কেন্দ্রে অতীতে বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। এ বারের ত্রুটি বুঝতে পেরেই তারা ১২ ইঞ্চি ব্যাসের ওই পাইপলাইনের ভাল্ভ বন্ধ করে দেয়।
এরই মধ্যে রহস্য বাড়িয়েছেন অ্যাঞ্জেল ক্যারিজালেস। তিনি মেক্সিকোর অয়েল সেফটি রেগুলেটর আশিয়ার প্রধান। টুইটারে অ্যাঞ্জেল লেখেন — কোনও গ্যাস লিক হয়নি। তা হলে জলের উপরে কী দ্বলছিল, সেটা স্পষ্ট করেননি তিনি।
কু ম্যালুব জ্যাপ পেমেক্সের সবচেয়ে বড় অপরিশোধিত তেল উৎপাদনকারী সংস্থা। দৈনিক ১.৭ মিলিয়ন ব্যারেল তেল উৎপাদন হয় মেক্সিকোয়। তার ৪০ শতাংশই করে কু ম্যালুব জ্যাপ।
সম্প্রতি ঝড়বৃষ্টিতে সেখানকার টার্বোমেশিনারির ক্ষতি হয়। আগুন নিয়ন্ত্রণে নাইট্রোজেন গ্যাস ব্যবহার করা হয় বলে পেমেক্স একটি রিপোর্টে জানিয়েছে।
এ নিয়ে সংক্ষিপ্ত একটি প্রেস বিবৃতি জারি করেছে তারা। তাতে সামান্যই তথ্য সামনে এনেছে।
এই ঘটনার পরে আগুনের ছবি ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। অনেকেই আমেরিকার নানা প্রান্তের নানা ঘটনার কোলাজ করে তুলে ধরেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top