গজনীতে শারিয়া আইন প্রতিষ্ঠা, ১২ ঊর্ধ্ব মেয়েদের তুলে নিয়ে যাওয়ার ফতোয়া তালিবানের

WhatsApp-Image-2021-07-16-at-2.35.04-PM.jpeg

Onlooker desk: বাদাখশান, তাখর, গজনীতে তালিবান (Taliban) শারিয়া আইন প্রতিষ্ঠা করেছে বলে খবর আন্তর্জাতিক সূত্রে।
আফগানিস্তানের (Afghanistan) তিন প্রদেশে তারা ফতোয়া জারি করে জানিয়েছে, ১২ বছরের বেশি বয়সি এবং বিধবাদের তাদের ‘যোদ্ধারা’ যখন খুশি তুলে নিয়ে যেতে পারবে। নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে জড়িতদেরও তারা নিশানা করছে। বাড়ি বাড়ি ঢুকে তল্লাশি এবং লুটপাট চালাচ্ছে তালিবান।
তালিবানের ছাতার তলায় বিদেশি সন্ত্রাসবাদীরাও সক্রিয় হয়ে উঠেছে বলে খবর। আল কায়দা, লস্কর ই তৈবা, জৈশ ই মহম্মদ, ইস্ট তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট এবং ইসলামিক মুখমেন্ট অফ উজবেকিস্তান — এতগুলি জঙ্গি সংগঠন বর্তমানে সক্রিয়।
সম্প্রতি ২১ বছরের এক তরুণীকে বালখ ডিস্ট্রিক্ট সেন্টারে তাঁর গাড়ি থেকে টেনেহিঁচড়ে নামিয়ে হত্যা করে তালিবান। ‘অপরাধ’, তিনি নাকাব পরেননি।
তালিবানের (Taliban) পুনরুত্থানে আফগানিস্তানের (Afghanistan) পরিস্থিতি ক্রমশ ঘোরালো হচ্ছে। গোটা দেশেই ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে এই আতঙ্ক।
তার মধ্যে পাকিস্তান দু’নৌকায় পা দিয়ে চলছে বলে অভিযোগ। মুখে শান্তি প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানাচ্ছে। পাশাপাশি সুন্নি পাশতুন ইসলামিক মৌলবাদী গোষ্ঠীর যুদ্ধের অপচেষ্টাতেও হাওয়া দিয়ে চলেছে। পাকিস্তানের মদতপুষ্ট একাধিক জঙ্গি গোষ্ঠীর সহায়তায় আফগানিস্তান দখল করতে উদ্যত তালিবান। এই পরিস্থিতিতে আমেরিকার নেতৃত্বে পশ্চিমি দেশগুলি কী অবস্থান নেবে, সে ব্যাপারে এখনও কোনও নিশ্চিত পরিকল্পনা নেই।
বস্তুত বর্তমান পরিস্থিতির সঙ্গে দু’দশক আগের অবস্থার বিশেষ ফারাক বুঝতে পারছেন না আফগানিস্তানের মানুষ। কারণ ২৫ বছর আগে কাবুল জয়ের আড়াই দশক পরে এখনও তালিবান (Taliban) ২.০ তাদের পন্থা বা শারিয়া আইন প্রতিষ্ঠার উদ্যম থেকে পিছু হঠেনি।
শুক্রবার পর্যন্ত আফগানিস্তানের ২১৮টি জেলা তালিবানের (Taliban) দখলে গিয়েছে। সরকারের নিয়ন্ত্রণে ১২০টি। ৯৯টি জেলা নিয়ে টক্কর চলছে। এরই মধ্যে পাকিস্তান, জিনঝিয়াং এবং উজবেকিস্তান থেকে সন্ত্রাসবাদীরা তালিবানের দখলে থাকা দেশের উত্তর প্রান্তের এলাকাগুলিতে অনুপ্রবেশ ঘটাচ্ছে। বাকি দেশে তাদের ছড়িয়ে পড়া কেবল সময়ের অপেক্ষা বলে মনে করছেন অনেকে।
এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের ভূমিকাটা ঠিক কী রকম? তারা দুই পরস্পরবিরোধী কৌশল নিয়েছে। একদিকে আমেরিকা ও ইংল্যান্ড তালিবানের সঙ্গে আলোচনার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনিকে। ইসলামাবাদে ওই আলোচনা হবে। সেখানে উপস্থিত থাকার কথা তালিবানের (Taliban) ফার্স্ট ডেপুটি আমির মুল্লাহ ইয়াকুব এবং হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রধান সিরাজউদ্দিন হাক্কানির। তালিবানের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রেখে চলে এই সংগঠন।
সেই সঙ্গেই পাকিস্তান ড্রোন উড়িয়ে আফগানিস্তানের (Afghanistan) বাস্তব পরিস্থিতিতে নজর রাখছে।
আমেরিকা এর মধ্যে কাতারে একটি সিকিউরিটি ডিফেন্স কোঅপারেশন ম্যানেজমেন্ট অফিস তৈরি করেছে। তারা আফগান নিরাপত্তা বাহিনীকে সাহায্য করবে।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top