পালাতে পারেন, সেই অনিশ্চয়তায় চোকসিকে জামিন দিল না ডমিনিকার হাইকোর্ট

Mehul-Choksi-bail-denied.jpeg

ডমিনিকায় প্রিজন ভ্যান থেকে নামানো হচ্ছে মেহুল চোকসিকে

Onlooker desk: পালিয়ে যেতে পারেন, এই আশঙ্কায় ডমিনিকার হাইকোর্টে জামিন হলো না ভারতে ১৪ হাজার কোটি টাকার ঋণ প্রতারণা মামলায় অভিযুক্ত, পলাতক হিরে ব্যবসায়ী নেহুল চোকসির। হাইকোর্ট জানিয়েছে, ডমিনিকার সঙ্গে চোকসির কোনও যোগ নেই। তাই তিনি যাতে পালিয়ে না যান, তা নিশ্চিত করার মতো কোনও পদক্ষেপ করার এক্তিয়ারও কোর্টের নেই। সে কারণেই জামিন দেওয়া হচ্ছে না। ডমিনিকা হাইকোর্টের এই বক্তব্য চোকসির জন্য বড়সড় ধাক্কা।
হাইকোর্ট এ কথাও জানায় যে চোকসি তাঁর ভাইয়ের সঙ্গে হোটেলে থাকবেন বলেছিলেন। কিন্তু হোটেলটা কোনও স্থায়ী ঠিকানা নয়। তা ছাড়া, তাঁর বিচার প্রক্রিয়াই শুরু হয়নি। দু’পক্ষের যুক্তি, পাল্টা যুক্তি শোনার পর ডমিনিকা হাইকোর্টের বিচারপতি ওয়াইনান্তে আদ্রিয়েন রবার্টস জামিন না দেওয়ার পক্ষে রায় দেন। কোর্ট এ-ও জানায় যে জামিন চাওয়ার যুক্তি দেখিয়ে আদালতকে চোকসি নিশ্চিন্ত করতে পারেননি এবং তাঁর বিমানে চড়ে পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। যদিও ৬২ বছরের অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর স্বাস্থ্যের কারণ দেখিয়ে এবং তিনি বিমানে চড়েও কোথাও পালাবেন না বলে আশ্বস্ত করে জামিনের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন তাঁর আইনজীবীরা।
দিনকয়েক আগে ডমিনিকা হাইকোর্টের রায়ে আপাতত ভারতে প্রত্যর্পণের হাত থেকে নিষ্কৃতি পিয়েছেন চোকসি। তার ক’দিন বাদে ডমিনিকার প্রধানমন্ত্রী রুজভেল্ট স্কেরিট চোকসিকে ‘ভারতীয় নাগরিক’ বলে উল্লেখ করেন। তাঁর ভবিষ্যৎ নির্ধারণের ভার কোর্টের হাতেই ছেড়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। তবে চোকসির মৌলিক অধিকার রক্ষিত হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন রুজভেল্ট।
গত মাসের ২৩ তারিখ অ্যান্টিগা থেকে নিখোঁজ হয়ে যান চোকসি। রাতে একটি রেস্তোরাঁয় খেতে বেরোনোর পর আর তাঁর হদিস মেলেনি। দিনদুয়েক বাদে ডমিনিকায় ধরা পড়েন তিনি। অভিযোগ, ভারতে প্রত্যর্পণ এড়াতে অ্যান্টিগা থেকে পালিয়ে কিউবা যাওয়ার ছক ছিল তাঁর। চোকসির পরিবার ও আইনজীবীরা দাবি করার চেষ্টা করেন, পলাতক ব্যবসায়ীকে অ্যান্টিগা থেকে অপহরণ করা হয়। তাঁকে মারধর করে বলপূর্বক নিয়ে যাওয়া হয় ডমিনিকায়। কিন্তু এর পুরোটাই বানানো মিথ্যে কথা বলে দাবি করে খবর প্রকাশ করে একটি সংবাদমাধ্যম। তাতে গোসা হয় চোকসি পরিবারের। ‘মিথ্যে, ভিত্তিহীন এবং সত্য যাচাই না-করে লেখা’ খবর বলে অভিযোগ তুলে সংবাদমাধ্যমটিকে লিগাল নোটিস পাঠিয়েছেন চোকসির দাদা চেতন চিনুভাই চোকসি। নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার পাশাপাশি ভ্রম সংশোধন ছেপে ওই খবরকে মিথ্যে বলে জানানোর দাবি তাঁর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top