ঢাকার মগবাজারে বিস্ফোরণ, এ পর্যন্ত মৃত সাত, আহত অন্তত ৫০

Dhaka-blast.jpg

বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থলের চিত্র। (ডান দিকে) উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে আহতদের — ছবি টুইটার

Onlooker desk: রবিবার ভরসন্ধেয় ভয়াবহ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল ঢাকার মগবাজার ওয়ারলেস গেট এলাকা। এ পর্যন্ত সাত জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। বাংলাদেশের সময় সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ওই বিস্ফোরণ হয়। মগবাজারে লাইফস্টাইল রিটেল চেন আরংয়ের মগবাজার শোরুমের কাছে শর্মা হাউজে ঘটনাটি ঘটে।
ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মহম্মদ শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাত জনের মৃত্যুর কথা জানান। এঁদের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। বিস্ফোরণটি কী কারণে হয়েছে সে বিষয়েও এখনও নিশ্চিত নয় ফায়ার সার্ভিস।
এই বিস্ফোরণে আশপাশের সাতটি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে শফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন। এ ছাড়া তিনটি বাসও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মৃতেরা মূলত এর মধ্যে দু’টি বাসের যাত্রী।
ঘটনায় আহতের সংখ্যা ৫০-এর আশপাশে। প্রাথমিক ভাবে তাঁদের মধ্যে ৪২ জনকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়। এঁদের মধ্যে ২৮ জনই রয়েছেন ঢাকা মেডিক্যালে। আহতদের মধ্যে ১০ জনের অবস্থা গুরুতর। তাঁরা বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি। শরীর পুড়ে যাওয়া ছাড়াও ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে তাঁদের।
ঘটনাস্থলেই তিন জনের মৃত্যু হয়। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর মারা গিয়েছেন অন্য দু’জন।
বিস্ফোরণের ঘটনাটি সংবাদমাধ্যমে নিশ্চিত করেন পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মহম্মদ সাজ্জাদুর রহমান। তবে বিস্তারিত কিছু জানাতে পারেননি তিনি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হঠাৎই বিকট শব্দ শোনা যায়। আশপাশের ভবনের পলেস্তারা খসে পড়ে একটি ট্রান্সফর্মারের উপর। সেই ট্রান্সফর্মারে বিস্ফোরণ ঘটে আগুন ধরে যায়। আগুন ছড়িয়ে পড়ে দু’টি বাসে। তা থেকেই হতাহতের এই ঘটনা।
সংবাদমাধ্যমে এক বাসযাত্রী জানান, তাঁদের বাস মগবাজার ফ্লাইওভারের নীচে পৌঁছয়। তখন তাঁরা দেখেন, ফ্লাইওভারের উপরে একটি বাসে আগুন জ্বলছে। সেই বাস থেকে কাচের টুকরো ও আগুনের ফুলকি নীচে পড়তে থাকে। তারপরে তিনি জ্ঞান হারান। তাঁকে উদ্ধার করে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে।
রমনা ফায়ার স্টেশনের এক আধিকারিক সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রে বিস্ফোরণ হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে। কিন্তু ঠিক কোথা থেকে বিস্ফোরণ ঘটল, সে ব্যাপারে এখনই নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না।’ একটি চারতলা ভবনের একতলায় জেনারেটর থেকে বিস্ফোরণ হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে অনুমান। আহত-নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top