নাটকীয় ম্যাচে জকোভিচের কাছে হেরে ফরাসি ওপেন থেকে বিদায় নাদালের

Djokovic-defeats-Nadal.jpg

Onlooker desk: ১৬ বছরে এই নিয়ে তৃতীয় বার। ফরাসি ওপেনের ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন রাফায়েল নাদালকে সেমি-ফাইনালে পরাজিত করে ফাইনালে পৌঁছে গেলেন নোভাক জকোভিচ। এই নিয়ে ষষ্ঠ বার উাইনালে পৌঁছলেন জকোভিচ।
শুক্রবার ৫৮ তম বার মুখোমুখি হয়ে রাফাকে ৩-৬, ৬-৩, ৭-৬ (৭/৪), ৬-২ এ হারান সার্বিয়ার এই টেনিস তারকা। ২০১৬-র ফরাসি ওপেন চ্যাম্পিয়ন জকোভিচ ২০১৫-তেও নাদালকে হারিয়েছিলেন। কাল, রবিবার ফাইনালে তিনি স্টেফানোস সিৎসিপাসের মুখোমুখি হবেন। জকোভিচের এটা ২৯ তম চ্যাম্পিয়নশিপ। ৬-৩, ৬-৩, ৪-৬, ৪-৬, ৬-৩ এ জার্মানির আলেকজান্ডার ভেরেভকে হারিয়ে এই প্রথম একজন গ্রিক নাগরিস হিসাবে ফাইনালে পৌঁছেছেন সিৎসিপাস। অন্যদিকে, বছর ৩৫-এর নাদাল সেমি-ফাইনালে জিতলে আধুনিক প্রজন্মের তারকাদের মধ্যে তিনিই হতেন ফরাসি ওপেনের প্রবীণতম ফাইনালিস্ট।
৪ ঘণ্টা ১১ মিনিটের টানটান ম্যাচ শেষে ডকোভিচ বলেন, ‘এ রকম অসাধারণ একটা ম্যাচে রাফার মুখোমুখি হওয়া একটা বড় সুযোগ। আজ রাতে প্যারিসে নিজের এ যাবৎ সেরা ম্যাচটা খেললাম।’ এই নিয়ে প্যারিসে আটবার নাদালের সম্মুখীন হলেন জকোভিচ। জিতলেন দু’বার। আর নাদালের কেরিয়ারে এই প্রথম ফরাসি ওপেনের সেমি-ফাইনালে হার। পরে তিনি বলেন, ‘আজকের দিনটা হয়তো আমার জন্য অতট্য ভালো ছিল না। জয়-পরাজয় তো আছেই। জয়ের ভালো মতো সুযোহ থাকা সত্ত্বেও আমি জিততে পারিনি। ক্লান্তি একটা বড় ফ্যাক্টর।’ তবে এই পরাজয়ে তিনি যে দুঃখিত, সে কথা গোপন করেননি বিশ্বের ১ নম্বর টেনিস তারকা। সেই সঙ্গেই বলেন, ‘জীবন তো আর থেমে থাকবে না। এ তো একটা টেনিস কোর্টের ম্যাচ মাত্র!’
ম্যাচের শুরুটা কিন্তু নাদালের পক্ষেই হয়েছিল। প্রথম সেটে জকোভিচকে ৫-০য় পরাজিত করেন স্প্যানিশ তারকা। হাল ছাড়েননি জকোভিচও। বেসলাইনে ক্লে-র পরিমাণ নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন তিনি। দ্বিতীয় সেটের দ্বিতীয় ও তৃতীয় গেমে ব্রেক নেন পুরোনো দুই প্রতিদ্বন্দ্বীই। কিন্তু কোর্টে ফিরে এগিয়ে যান জকোভিচই। আগের সেটে পরাজিত টেনিস তারকাকে এই সেটটা জিততেই হতো। এবং সেই দিকেই নজর দেন তিনি।
ব্রিটিশ টেনিস খেয়োলাড়া অ্যান্ডি মুরে তাঁর খেলার প্রশংসা করে টুইটে লেখেন — এর চেয়ে ভালো ক্লে কোর্ট টেনিস খেলা যায় না। এটা পারফেক্ট।
দ্বিতীয় সেটে ৬-৩ এ জেতার পর ৯২ মিনিটের তৃতীয় সেটে টাই ব্রেক করে জয় ছিনিয়ে আনেন জকোভিচ।
টানটান ম্যাচের নাটকীয়তা আরও বাড়িয়ে স্টেডিয়ামে উপস্থিত ৫০০০ দর্শককে কোভিড-কার্ফু ভেঙে রাত ১১টার পরেও খেলার শেষ পর্যন্ত দেখার সুযোগ দেওয়া হয়। দর্শকদের উল্লসিত করে ঘোষণা করা হয় — ন্যাশনাল অথরিটির সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী আপনাদের উপস্থিতিতেই ম্যাচ শেষ হবে।
এ দিকে, চতুর্থ সেটের প্রথম গেমে নাদাল জেতেন। কিন্তু সেই স্বস্তিও রাফার জন্য বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। খানিক বাদেই জয় ছিনিয়ে আনেন জকোভিচ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top