উইলিয়ামসন, টেলরের ব্যাটিং গড়ে দিল পিচ, বিশ্ব টেস্ট ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে সেরা নিউ জিল্যান্ড

New-Zealand-win-WTC-beating-India.jpg

জয়ের অন্যতম কারিগর উইলিয়ামসনকে অভিনন্দন কোহলির

Onlooker desk: ভারতকে হারিয়ে টেস্ট ক্রিকেটের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হলো নিউ জিল্যান্ড। বুধবার সাদাম্পটনে দ্বিতীয় আইসিসি ট্রফি ছিনিয়ে নিল তারা। ৫৩ ওভারে ১৩৯ রানের টার্গেট তাড়া করে তারা। কেন উইলিয়ামসন (৫২)* এবং রস টেলরের (৪৭)* ব্যাটিংয়ে ভর করে ওই রান তুলতে বিশেষ বেগ পেতে হয়নি তাদের। ষষ্ঠ দিনে ৮ উইকেটে জয়ী হলো নিউ জিল্যান্ড।
প্রসঙ্গত, ডব্লিউটিসি-র এই ফাইনাল ম্যাচ জুড়েই তাড়া করেছে খারাপ আবহাওয়া। বৃষ্টিতে প্রথম ও চতুর্থ দিনে একটি বলও খেলা হয়নি। সে কারণে খেলা রিজার্ভ ডে পর্যন্ত গড়ায়।

New Zealand win WTC beating India

প্রথম সেশনে অসাধারণ বোলিংয়েই খেলা অনেকটা নিজেদের দিকে ঘুরিয়ে নেয় নিউ জিল্যান্ড। মাত্র ১৭০ রানে দ্বিতীয় ইনিংসে অল আউট হয়ে যায় ভারত। এর মধ্যে আগের দিনের ২ উইকেটে ৬৪ ছিল। অর্থাৎ ষষ্ঠ দিনে বিরাট কোহলির দল মাত্র ১০৬ রান করে। এর মধ্যেই আট উইকেটের পতন ঘটে গুটিয়ে যায় ইনিংস। অথচ সাদাম্পটনের পিচ ব্যাটিংয়ের সহায়ক।
ব্যাট করতে নেমে নিউ জিল্যান্ডের টম ল্যাথাম এবং ডেভন কনওয়ে চা-বিরতির আগে ৮ ওভারে কোনও উইকেট না হারিয়ে ১৯ রান করেন। তখনও ফাইনাল সেশনে ৪৫ ওভারে ১২০ রান দরকার।
এমন অবস্থায় অসাধারণ বল করেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ফাইনাল সেশনের শুরুতে অল্প সময়ের ব্যবধানে দুই ওপেনারকেই ফেরত পাঠান গ্যালারিতে। কিন্তু তাতে শেষরক্ষা হয়নি। হাল ধরে নেন নিউ জিল্যান্ডের দুই অভিজ্ঞতম ক্রিকেটার। প্রথমে টালমাটাল পরিস্থিতি সামলে দলকে থিতু অবস্থায় আনেন উইলিয়ামসন ও টেলর। তারপরে শুরু করেন নিজেদের আদত ব্যাটিং।
২০১৫ ও ২০১৯-এ দু’বার আইসিসি ট্রফি হাতছাড়া হয় নিউ জিল্যান্ডের। কিন্তু এ বার যাতে তেমন কিছু না-হয়, সে ব্যাপারে সতর্ক ছিলেন উইলিয়ামসন, টেলররা। তৃতীয় উইকেটের পরে দুই ক্রিকেটারের ৯৫ নট আউট স্কোরে কার্যত জয় আসে নিউ জিল্যান্ডের।

New Zealand win WTC beating India
অন্যদিকে, এই জয় হাতছাড়া হওয়ায় আইসিসি ট্রফি পাওয়ার অপেক্ষা আরও বাড়ল ভারতের। গত আট বছরের খরা এ বারও কাটল না কোহলিদের। আপাতত তাই সব নজর আসন্ন টি২০ বিশ্বকাপে।
ট্রফি জিতে নিউ জিল্যান্ড প্রায় ১১.৮৬ কোটি টাকা পেল। সেই সঙ্গে পেল দ্য আইসিসি টেস্ট মেস। আগে আইসিসি টেস্ট মেন’স টিমকে তা দেওয়া হতো। তবে এ বারই প্রথম তা পেল ডব্লিউটিসি বিজয়ীরা।
আর রানার্স আপ হিসাবে ভারত পাচ্ছে ৫.৯৩ কোটি টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top