অলিম্পিক্সে মহিলাদের বক্সিং কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছেন লাভলিনা

Lovlina-Borgohain.jpg

Onlooker desk: মীরাবাঈ চানুর পর টোকিও অলিম্পিক্সে (Tokyo Olympics) ফের আশা জাগাচ্ছেন এক ভারতী কন্যা। এ বার বছর তেইশের বক্সার (Boxer) লাভলিনা বরগোহাঁই (Lovlina Borgohain)-এর হাত ধরে নতুন করে স্বপ্ন দেখছে দেশ। মঙ্গলবার অলিম্পিক্সের (Tokyo Olympics) কোয়ার্টার ফাইনালে প্রবেশ করেছেন লাভলিনা (Lovlina)। এ দিনটা অলিম্পিক্সে ভারতের জন্য এখনও পর্যন্ত বিশেষ আশাপ্রদ নয়। তারই মধ্যে ভালো খবর এল বক্সিংয়ে।
অসম থেকে অলিম্পিক্সে যোগ দেওয়া প্রথম মহিলা বক্সার লাভলিনা (Lovlina)। এ দিন জার্মানির পাগিলিস্ট নাদিনে অ্যাপেৎজকে কোকুগিকান অ্যারেনায় পরাস্ত করেন তিনি। নাদিনে যথেষ্ট অভিজ্ঞ বক্সার। কিন্তু এ দিন তাঁর বিরুদ্ধে দাপিয়ে খেলেন লাভলিনা (Lovlina Borgohain)।
উইমেন’স ওয়েলটারওয়েট ডিভিশনে (৬৪ থেকে ৬৯ কেজি) বিভাজিত সিদ্ধান্তে জেতেন তিনি। আর একটি ম্যাচে জিতলেই লাভলিনার (Lovlina Borgohain) পদক জয় নিশ্চিত। সেমিফাইনালিস্টরা অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ পদক পান।
সেমিফাইনালে লাভলিনা (Lovlina Borgohain) চেন নিয়েন-চিনের মুখোমুখি হবেন। আগামী ৩০ জুলাই উইমেন’স ওয়েলটারে প্রাক্তন এই ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন এবং বর্তমানে বিশ্বের চতুর্থ স্থানে রয়েছেন। সেই ম্যাচে জিতলে লাভলিনার (Lovlina) পোডিয়ামে ওঠা নিশ্চিত।
মঙ্গলবারের ম্যাচে লাভলিনা (Lovlina)-র কাউন্টার পাঞ্চগুলি ছিল দেখার মতো। ধীরে শুরু করে ক্রমশ ম্যাচের রাশ নিজের হাতে নেন লাভলিনা। প্রথম রাউন্ডে জোরালো টক্কর হয় দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর। তবে তিন বিচারকের মতে লাভলিনাই (Lovlina Borgohain) প্রথম রাউন্ডে বেশি ভালো খেলেছেন। দ্বিতীয় রাউন্ডেও তিনিই প্রতিপক্ষের চেয়ে বেশি দাগ কাটেন।
অন্যদিকে, ব্যাডমিন্টন মেন’স ডাবলসে স্বস্তিকসাইরাজ রাঙ্কিরেড্ডি এবং চিরাগ শেঠি গ্রুপে জিতেও কোয়ার্টার ফাইনালে প্রবেশের টিকিট পেলেন না। ইংল্যান্ডের বেন লেন এবং সিন ভেন্ডিকে স্ট্রেট গেমে পরাস্ত করেন তাঁরা। জেতেন ২১-১৭, ২১-১৯ এ। কিন্তু চাইনিজ তাইপেই-র লি ইয়াং ও ওয়াং চি-লিনের জয়ের কারণে ভারতীয় জুটির কোয়ার্টার ফাইনালে প্রবেশ আটকে গেল।
আগের ম্যাচটি ইন্দোনেশিয়ার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন কেভিন সঞ্জয় সুকামুলজো এবং মার্কাস ফারনাল্দির কাছে হেরে যান তাঁরা। চিনের জুটির কাছে আবার পরাস্ত হয় ইন্দোনেশিয়ার ওই টিম। তাতেই তারা কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়া পাকা করে নেয়। আর ছিটকে গেলেন রাঙ্কিরেড্ডি-শেঠি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top