৩৮ স্ত্রী, ৮৯ ছেলেমেয়েকে রেখে মারা গেলেন সেই জিওনা

IMG-20210614-WA0000.jpg

Onlooker desk: পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পরিবারের মাথা ছিলেন তিনি। ভরা সংসারে ৩৮ জন স্ত্রী, ৮৯টি ছেলেপুলে এবং ৩৩ জন নাতি-নাতনি। এ হেন বিশাল সংসারের কর্তা, মিজোরামের জিওনা চানা আজ, রবিবার ৭৬ বছর বয়সে মারা গেলেন।
মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা টুইট করে জিওনার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন। ওই পরিবারটির জন্য যে রাজ্য এবং জিওনার গ্রাম বক্তং লাংনুয়াম পর্যটকদের আকর্ষণের অন্যতম কেন্দ্র হয়ে উঠেছে, তা-ও জানিয়েছেন।
টুইটে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন — ভারাক্রান্ত হৃদয়ে শ্রী জিওনা (৭৬)-কে বিদায় জানাল মিজোরাম। মনে করা হয়, ৩৮ জন স্ত্রী, ৮৯টি ছেলেমেয়ে নিয়ে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পরিবারের কর্তা ছিলেন তিনি। মিজোরাম এবং তাঁর গ্রাম ওই পরিবারের জন্য পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ হয়ে উঠেছিল।
ডায়াবেটিস ও হাইপারটেনশনের রোগী জিয়ংহাকা বা জিওনা আজ, রবিবার দুপুর ৩টেয় আইজনের ট্রিনিটি হাসপাতালে মারা যান। হাসপাতালের অধিকর্তা লালরিনলুয়াঙ্গা জাহৌ একটি সংবাদসংস্থাকে বলেন, ‘জিওনা ডায়াবেটিস এবং হাইপারটেনশনে ভুগছিলেন। তিন দিন ধরে বক্তং গ্রামে তাঁর বাড়িতেই চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসক।’
গ্রামে ধর্মীয় চানা সম্প্রদায়ের নেতা ছিলেন জিওনা। ওই সম্প্রদায়ে রয়েছে শ’চারেক পরিবার। তাদের পুরুষ সদস্যদের বহুগামিতা স্বীকৃত।
১৯৪৫-এর ২১ জুলাই জন্ম জিওনার। ১৭ বছর বয়সে প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় তাঁর। তার পরেই বিয়ে। সেই স্ত্রী জিওনার চেয়ে তিন বছরের বড় ছিলেন। আর সর্বশেষ বিয়ে ২০০৪-এ। পাহাড় ঘেরা গ্রামে জিওনাদের চারতলা বাড়িটার নাম ‘ছুয়ান থর রান’ বা নতুন প্রজন্মের বাড়ি। সেটিতে ঘরের সংখ্যা ১০০।
সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, জিওনা চানার পুত্র-পুত্রবধূরা এবং তাঁদের ছেলেমেরা মিলে ওই একই বাড়ির পৃথক পৃথক ঘরে থাকেন। কিন্তু তাঁদের হেঁসেল এক। আর জিওনার স্ত্রীরা তাঁর ব্যক্তিগত বেডরুমের পাশে ডর্মিটরিতে থাকেন। তাঁদের নিজস্ব আয়ের পাশাপাশি অনুদানের উপর নির্ভর করে দিন কাটে।
‘রিপলি’স বিলিভ ইট অর নট’ শো-এ ২০১১ এবং ২০১৩ — এই দু’বছরে দু’বার পরিবারটিকে নিয়ে অনুষ্ঠান করা হয়। তা ছাড়া, যে ১০০ ঘরের বাড়িতে তাঁরা থাকেন, সেটিও পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ হয়ে উঠেছে। ২০১৪-য় একটি নামী বাসন ধোয়ার সাবানের বিজ্ঞাপনেও উঠে এসেছিল জিওনা চানার বৃহৎ পরিবার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top