জীবন বাঁচানো রাজীবের প্রেমে মশগুল শালিক পাখি মিঠু

WhatsApp-Image-2021-06-30-at-1.40.13-AM.jpeg

এ ভাবেই রাজীবের কাঁধে চড়ে ঘুরে বেড়ায় মিঠু

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান

ছোট বয়স থেকেই পশু-পাখিদের প্রতি টান ছিল মন্তেশ্বরের বালিজুড়ির যুবক রাজীব মণ্ডলের। কিন্তু সেই টান-ভালোবাসা যে এতখানি, তা বোধহয় কেউ বোঝেননি। পশু-পাখিদের প্রতি রাজীবের টান এতটাই যে এক শালিক পাখিকেই নিজের প্রেমিকা মনে করেন ওই তরুণ। তাঁর সেই ‘প্রেমিকা’র নাম মিঠু।
না, মিঠুর সঙ্গে রাজীবের ‘প্রেমে’ বাধা হননি পরিবারের কেউ। বরং পরিবার-পরিজন ও প্রতিবেশীরা রীতিমতো উপভোগ করেন রাজীব ও মিঠুর ওই প্রেম কাহিনি।
সারাদিন একসঙ্গে থাকে প্রেমিক যুগল। এক মুহূর্তের জন্যও কেউ কারও থেকে বিচ্ছিন্ন হতে চায় না। আর অবাক কাণ্ড, তাদের মনের কথা, প্রাণের কথা শুধু তারা দু’জনেই বুঝতে পারে। এমন বিরল প্রেমের কাহিনি একবার বাস্তবে চাক্ষুষ করতে মন্তেশ্বরের বহু বাসিন্দাই উৎসুক হয়ে থাকেন।
কিন্তু এমন প্রেমের সূত্রপাত কী ভাবে? রীতিমতো ফিল্মি কায়দায়। যে ভাবে নায়ক নায়িকাকে উদ্ধার করে এবং তাদের প্রেম হয়। রাজীব-মিঠুর প্রেমের সূত্রপাতও সে ভাবে।
মাস দুয়েক আগে এলাকার একটি গাছের নীচে অসুস্থ অবস্থায় শালিক পাখিটিকে পড়ে থাকতে দেখেন রাজীব। তিনি পাখিটিকে উদ্ধার করে নিজের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানেই সেবা-শুশ্রূষা করে তাকে সুস্থ করে তোলেন। সেই থেকেই এক অচ্ছেদ্য সম্পর্ক তৈরি হয়েছে দু’জনের।
রাজীবই ভালোবেসে শালিক পাখিটির নাম রাখেন ’মিঠু’। জীবন বাঁচানো সহৃদয় রাজীবকে ছেড়ে যেতে চায়নি সে। নিজের আগের পরিবেশেও ফিরতে চায়নি। হয়তো জীবন বাঁচানোর প্রতিদান স্বরূপ মিঠুই এখন রাজীবের সর্বক্ষণের সঙ্গী।
মিঠুর কথা জানা যাবে না। কিন্তু রাজীব কী বলছেন? রাজীবের বক্তব্য, তিনি উপলব্ধি করেছেন, পাখিরাও মানুষের মতো সব বুঝতে পারে। জীবন বাঁচানোর প্রতিদান দিতে জানে তারাও।
ওই তরুণ বলেন, ‘সে জন্যেই মিঠু আমাকে ছাড়া এক মুহূর্ত থাকতে চায় না।’
বাড়ি থেকে বেরিয়ে কর্মস্থল, বাজারহাট যেখানেই তিনি যান না কেন, শালিক পাখি মিঠুই তাঁর সর্বক্ষণের সঙ্গী। কাঁধে চড়ে রাজীবের সঙ্গ নেয় সে। সেই ফাঁকে চলে দু’জনের মনের, প্রাণের কথা বলা।
রাজীব জানিয়েছে, মিঠুর খাওয়া দাওয়ারও কোন ওঝঞ্ঝাট নেই। ভাত, মুড়ি, বিস্কুটেই সে সন্তুষ্ট। ওই তরুণের পরিবারের সদস্যরাও মজা পান কাণ্ড দেখে। তাঁরা জানান, যুগলকে দেখতে অনেকেই তাঁদের বাড়িতে ভিড় জমান। হাজার হোক, এমন নায়ক-নায়িকার দেখা তো সচরাচর মেলে না!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top