বাতিল মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক, নবান্নে ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

DB80681E-44D0-43BE-A8E7-CB774206889C.jpeg

কলকাতা: শেষ পর্যন্ত বাতিলই হয়ে গেলো এ বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। নবান্ন থেকে এই ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মূল্যায়ন হবে বিকল্প পদ্ধতিতে।
এমনটা যে হতে চলেছে, সে আঁচ ছিলই। রাজ্য সরকারের নিযুক্ত বিশেষজ্ঞ কমিটি গত সপ্তাহেই সুপারিশ করেছিল, স্কুলে বসে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক করা এ বার নিরাপদ নয়। রবিবার এ বিষয়ে জনগণের মতামত চেয়ে তিনটি মেল আইডি-ও প্রকাশ করে স্কুলশিক্ষা দপ্তর। সব মতামতের ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত হলো বলে আজ, সোমবার নবান্নে জানান মমতা।
করোনা পরিস্থিতিতে আগেই পরীক্ষা বাতিল করেছে সিবিএসই এবং আইসিএসই বোর্ড। কিন্তু মমতা দিনকয়েক আগে জানিয়েছিলেন, মাধ্যমিক হবে এ বছর অগস্টে, উচ্চ মাধ্যমিক জুলাইয়ে। তাতে পরীক্ষার্থীরা অনেকখানি আশ্বস্তও হয়েছিল। সপ্তাহতিনেক আগে কেন্দ্রীয় একটি বৈঠকেও পরীক্ষার পক্ষেই সওয়াল করেছিলেন বিভিন্ন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা আধিকারিকরা। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কর্তারা নানা সময়ে পরীক্ষা চেয়েই কথা বলেছেন।
তবে এ নিয়ে মতভেদও তৈরি হয়। ঝুঁকি এড়িয়ে কী ভাবে পরীক্ষা সম্ভব, আদৌ সম্ভব কি না, সে সব দিক খতিয়ে দেখতে গঠন করা হয়েছিল বিশেষজ্ঞ কমিটি।
দফায় দফায় বৈঠকের পর তাঁরা জানান, স্কুলে বসে পরীক্ষা এবার নিরাপদ নয়। সেই সঙ্গে গুচ্ছ সুপারিশ করেন তাঁরা। সুপারিশ গত সপ্তাহে জমা পড়ে।
এ নিয়ে রাজ্যবাসীর মত জানতে চায় সরকার। আজ, সোমবার দুপুর ২ টো পর্যন্ত মতামত জানানোর সময় ছিল।
তার ঘণ্টাখানেক বাদে সাংবাদিক বৈঠকে মমতা জানান, ৩৪ হাজারের কাছাকাছি মেল এসেছে। তার মধ্যে ৭৯ শতাংশই পরীক্ষা না নেওয়ার পক্ষে। পরীক্ষা বাতিলের কথা জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সব দিক বিবেচনা করে পরীক্ষা বাতিলের এই সিদ্ধান্ত।’ বিকল্প মূল্যায়ন পদ্ধতি কী হতে পারে, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্তের দায়িত্ব বিশেষজ্ঞ কমিটিকেই দেওয়া হয়েছে। যদিও এ নিয়েও নানা প্রশ্নের অবকাশ রয়েছে। বিকল্প পদ্ধতির ব্যাপারে ঐকমত্য হওয়া কঠিন বলে মনে করছেন অনেকে। কারণ গত এক বছরেরও বেশি সময় স্কুল বন্ধ। অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নও সে ভাবে হয়নি। অন্যদিকে আবার দিল্লি বোর্ডে একাদশের পঠনপাঠন শুরু হয়ে গিয়েছে। সবদিক থেকে মাধ্যমিকের পড়ুয়াদের একাদশী দ্বাদশের পাঠ ও উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্রছাত্রীদের উচ্চশিক্ষার আঙিনায় প্রবেশের আগে নানা প্রশ্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top