জোড়া মামলায় স্বস্তি, তবে কন্টাই কো-অপারেটিভ ইউনিয়নের সভাপতির পদ খোয়ালেন শুভেন্দু

IMG-20210605-WA0160.jpg

পূর্ব মেদিনীপুর: একদিকে স্বস্তি, অন্যদিকে অস্বস্তি শুভেন্দু অধিকারীর (Suvendu Adhikari)।
সোমবার একদিকে কলকাতা হাইকোর্টে দু’টি আলাদা মামলায় স্বস্তি পেয়েছেন বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু। আবার এ দিনই কন্টাই কো-অপারেটিভ ইউনিয়নের সভাপতির পদ থেকে অপসারিত হয়েছেন তিনি।
অথচ সোমবার কাঁথি সমবায় ব্যাঙ্ক মামলায় জয় পেয়েছেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু (Suvendu Adhikari)। আদালতের নির্দেশে ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান থাকছেন তিনি। পাশাপাশি, অন্য একটি মামলায় তাঁর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত রাখাল বেরা জামিন পেয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে। বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার এই নির্দেশ চ্যালেঞ্জ করে অবশ্য ডিভিশন বেঞ্চে যাচ্ছে রাজ্য।
সোমবার ছিল সমবায় আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের জন্মদিন। আর এ দিনই কন্টাই কো-অপারেটিভ ইউনিয়নের সভাপতির পদ থেকে অপসারিত করা হয়েছে শুভেন্দুকে (Suvendu Adhikari)। দীর্ঘ ৯ বছর, ২০১২ থেকে ২০২১ পর্যন্ত এই পদ সামলেছেন তিনি। দু’টি মহকুমা মিলে মোট ৯৫০টি সমবায় সমিতি এই ইউনিয়নের আওতাধীন। সদস্য সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষ। সেই ইউনিয়নের সভাপতির পদ থেকে এ দিন সরানো হয় শুভেন্দুকে।
এ দিন ইউনিয়নের মোট ১৫ সদস্যের মধ্যে ১৪ জনের সম্মতিক্রমে তাঁকে সরানো হয়েছে।
বিধানসভা নির্বাচনে ফের ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এককালের রাজনৈতিক সতীর্থ, প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু (Suvendu Adhikari)এখন তাঁদের অন্যতম প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী। এতদিন অরাজনৈতিক ক্ষেত্র হিসাবে নিজের ক্ষমতার বলে কন্টাই কো-অপারেটিভ ইউনিয়নের পদ ধরে রেখেছিলেন তিনি। কিন্তু এ বার আর তা থাকল না।
তোড়জোড় অবশ্য শুরু হয়েছিল বেশ ক’দিন আগে। মে মাসে ওই পদ থেকে তাঁর অপসারণের দাবি তুলে আবেদন করেছিলেন কো-অপারেটিভ ইউনিয়নের ১২ জন অধিকর্তা। তার পর সোমবার সমবায় আইন মেনে বৈঠকে হয়। বৈঠকে শুভেন্দু অধিকারী ছাড়া বাকি ১৩ জন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে একজন অধিকর্তা ফোনে শুভেন্দুর অপসারণে সম্মতি দেন।
জানা গিয়েছে, গত ছ’টি বৈঠকে শুভেন্দু যোগদান করেননি। তাঁর সেই অনুপস্থিতির কারণ দেখিয়ে সদস্যদের সম্মতিতে এই বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। কাঁথি সমবায় ইউনিয়নের সম্পাদক হরিসাধন দাস অধিকারীর কথায়, ‘ছ’টি বৈঠকে অনুপস্থিত থাকেন শুভেন্দু। এ জন্য আন্দোলন হোঁচট খাচ্ছিল। তাই সর্বসম্মতিক্রমে তাঁকে অপসারিত করা হয়েছে। এর মধ্যে কোনও রাজনীতি নেই। কয়েক দিনের মধ্যে নিয়ম মেনে নতুন সভাপতি নির্বাচন করা হবে।’ শুভেন্দুর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।
যদিও বিজেপির কাঁথি সভাপতি (সংগঠন) অনুপ চক্রব্রর্তীর দাবি, এর পুরোটাই রাজনীতি। যার পিছনে রয়েছে তৃণমূলের প্রত্যক্ষ মদত।
অথচ এ দিন আবার কাঁথি সমবায় ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান পদ থেকে শুভেন্দুকে (Suvendu Adhikari)সরাতে তাঁর বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা বৈঠকের সিদ্ধান্তও খারিজ হয়ে যায় হাইকোর্টে। ওই অনাস্থা গ্রহণযোগ্য নয় বলে জানান বিচারপতি শম্পা সরকার।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top