‘ভোটের আগের গদ্দারদের ফেরাব না’, মুকুলকে পাশে নিয়ে বললেন মমতা

mukul1.jpg

দলনেত্রীর উপস্থিতিতে মুকুলকে বরণ করে নিচ্ছেন অভিষেক — নিজস্ব চিত্র

কলকাতা: ‘ঘরের ছেলে ঘরে ফিরলেন’। তৃণমূল ভবনে দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরীয় পরিয়ে পুরোনো শিবিরে স্বাগত জানালেন মুকুল রায়কে(Mukul Roy)। মুকুল বললেন, ‘বিজেপি করতে পারলাম না, বিজেপি করব না, তাই পুরোনো ঘরে ফিরলাম। বিস্তারিত ব্যাখ্যা জানাব লিখিত ভাবে।’ আর ‘ঘরের ছেলেকে’ স্বাগত জানিয়ে তৃণমূল (TMC) সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, ‘মুকুল আমাদের পুরোনো পরিবারের ছেলে। দলে ফিরল। নির্বাচনের সময় দলের বিরুদ্ধে একটি কথাও ও বলেনি। আমরা ভদ্র, সোবার নেতাদের নেব। কিন্তু নির্বাচনের মুখে যারা দলের সঙ্গে গদ্দারি করে নিম্নরুচির পরিচয় দিয়েছে, তাদের আমরা ফেরাব না। এটা ফাইনাল।’ পাশাপাশি তিনি বলেন, ‘চমকে ধমকে এজেন্সি দেখিয়ে মুকুলের উপরেও কম অত্যাচার হয়নি। ফিরে আসায় ও নিজে মানসিক শান্তি পেল। ওর শরীর খারাপ হয়ে যাচ্ছিল। আমি দেখছিলাম। আসলে বিজেপি করা যায় না। মুকুলের চলে আসা সেটারই প্রমাণ।
মুকুল রায়কে (Mukul Roy) ঘিরে জল্পনা বেশ কিছুদিন ধরে। যে জল্পনার আগুনে ঘৃতাহুতি হয় দিনকয়েক আগে মুকুল রায়ের অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতালে অভিষেকের দেখতে যাওয়ায়। মুকুলের পুত্র শুভ্রাংশু রায় সেদিন জানিয়েছিলেন ‘পাশে থাকার’ বার্তা দিয়েছেন অভিষেক। পরে বিজেপির তরফে দিলীপ ঘোষ, লকেট চট্টোপাধ্যায়রা যান, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টেলিফোনে মুকুলের স্ত্রীর খবর নেন। কিন্তু সব ছাপিয়ে যায় অভিষেকের ‘সৌজন্য।’ যাকে ঘিরে প্রশ্ন ওঠে, তবে কি পুরোনো দলে ফিরতে চলেছেন মুকুল? জল্পনা জিইয়ে রেখে হ্যাঁ, না কিছুই বলেননি প্রাক্তন রেলমন্ত্রী। বরং দিলীপের বৈঠক এড়িয়ে, নিজের বাড়িতে অনুগামীদের নিয়ে বৈঠক করে জল্পনায় হাওয়া দিয়েছেন।


আজ, শুক্রবার সকালে জানা যায়, দুপুরেই তৃণমূল ভবনে পুরোনো দলে যোগ দেবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি তথা কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধা।ক মুকুল রায়। সঙ্গে থাকবেন দলত্যাগী পুত্র শুভ্রাংশুও। যিনি এ বার বিজেপির হয়ে দাঁড়ালেও হেরে গিয়েছেন।
কথামতো আজ দুপুরে তৃণমূল ভবনে পুরোনো ঘরে পৌঁছন মুকুল (Mukul Roy)। সাড়ে চারটের একটু পরে সেখানে সাংবাদিক বৈঠকে নেত্রীর উপস্থিতিতে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, মুকুল দলে যোগদানের ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন এবং তৃণমূল তাতে সম্মতি দিয়েছে। এরপরে উত্তরীয় পরিয়ে মুকুল ও শুভ্রাংশুকে দলে স্বাগত জানান অভিষেক। মমতা ‘ঘরের ছেলে ঘরে ফিরল’ বলে জানিয়ে মাইক দিয়ে দেন মুকুলকে।
স্বাভাবিক ভাবেই দলত্যাগের কারণ কী, সে প্রশ্ন ধেয়ে আসে মুকুলের দিকে। বিস্তারিত ব্যাখ্যা লিখিত ভাবে দেবেন জানিয়ে তৃণমূলের প্রাক্তন সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক মুকুল বলেন, ‘পুরোনো লোকজনের মধ্যে ফিরে ভালো লাগছে। ভালো লাগছে ভেবে যে বাংলা আবার তার পুরোনো জায়গায় ফিরবে। যার নেতৃত্ব দেবেন আমাদের সকলের নেত্রী, ভারতের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলায় এখন যে পরিস্থিতি, তাতে কেউ বিজেপিতে থাকবে না।’
মুকুল যোগ দেওয়ায় কি দল আরও শক্তিশালী হলো? এ প্রশ্নের জবাবে মমতা বলেন, ‘দল আমাদের অলরেডি শক্তিশালী। আপনারা দেখেছেন, আমরা বিপুল ভাবে জিতেছি। মুকুল পরিবারের পুরোনো ছেলে। তৃণমূল একটা পরিবার।’ সেই সূত্রেই গদ্দারির প্রসঙ্গ তোলেন মমতা। বিজেপিকে ‘জমিদারদের পার্টি’, ‘এজেন্সির পার্টি’ বলে বেঁধেন। মুকুলের সঙ্গে যে নেতারা দল ছেড়েছিলেন, তাঁদের ব্যাপারে দলই সিদ্ধান্ত নেবে বলে মমতা জানান। কিন্তু অন্যদের বিষয়ে যে তাঁরা অনড়, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন। আর শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে প্রশ্ন উঠতে সাংবাদিক বৈঠক বন্ধই করে দেন দলনেত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top