‘বাঙালি, না?’ কেতাদুরস্ত দোকানের সামগ্রীতে হাত দেওয়ায় জাত তুলে অপমান, সরব বাংলা পক্ষ

Polish_20210607_014957842.jpg

কলকাতা: পার্ক স্ট্রিটের একটি কেতাদুরস্ত দোকানে হেনস্থার শিকার হওয়ার অভিযোগ তুললেন সোমনাথ সিংহরায় নামে এক ব্যক্তি। শুধু হেনস্থা নয়, বাংলার বুকে তাঁকে বাঙালি বলে অপমান করা হয় বলেও অভিযোগ। পুলিশে এ নিয়ে অভিযোগও জানিয়েছেন তিনি। সোমনাথ টিভিতে তৃণমূল সমর্থক ভাষ্যকার হিসাবে বেশ পরিচিত মুখ।
তাঁর অভিযোগ, একজনকে উপহার দেওয়ার জন্য ওই দোকান থেকে কয়েক হাজার টাকার চকোলেট কেনেন। তারপরে একটি শিশি খুলে দেখতে যান। অভিযোগ, সেই সময় দোকানটির উপর থেকে একজন নেমে এসে হিন্দিতে তাঁর সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু করেন। সোমনাথ কেন ওই শিশিতে হাত দিয়েছেন ও খুলে দেখেছেন, তা নিয়ে বারবার প্রশ্ন করতে থাকেন। ভিডিয়ো বার্তায় সোমনাথ বলেন, ‘আমি যতই বলি, জিনিসটি আমি কিনে নিচ্ছি, তাতে কর্ণপাত না করে আমাকে লাগাতার জিজ্ঞাসা করা হয়, কেন ওই শিশিতে হাত দিয়েছি। তারপরে সে আমার বাঙালি পরিচয় নিয়ে কটাক্ষ করতে শুরু করে। প্রশ্নের ঢঙে বলে, আপনি বাঙালি না? আমি যে চকোলেটগুলি নিয়েছি, সেগুলিও যাতে আমাকে না-দেওয়া হয়, তেমন নির্দেশ দিয়ে দোকান থেকে আমাকে বের করে দিতে বলে। তখন আমি এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই।’ বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছে বাংলা পক্ষও।
সোমনাথই বাংলা পক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ভিডিয়ো বার্তাতেও তিনি বাঙালি-বিদ্বেষ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। বাংলা পক্ষের নেতা গর্গ চট্টোপাধ্যায় এক বিবৃতিতে লেখেন — আজ সোমনাথবাবুর সঙ্গে যা ঘটেছে, বাংলার বুকে তা প্রতিদিন হাজার হাজার বাঙালির সঙ্গে ঘটছে। সোমনাথবাবুকে ধন্যবাদ যে জাতিবিদ্বেষের এই ঘটনা পুলিশকে জানিয়ে তিনি ঋজু শিরদাঁড়ার বাঙালি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর এক নেতা কৌশিক মাইতির কথায়, ‘বাংলার পুলিশ-প্রশাসন এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুক, বাঙালিকে বাঙালি বলে অসম্মান-অপমান করার সুযোগ কেউ না পায়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top