ইন্টারভিউ চললেও এখনই নিয়োগ নয়, ফের আইনি জটে উচ্চ প্রাথমিক

Polish_20210721_014250143.jpg

কলকাতা: উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ নিয়ে জটিলতা যেন কেটেও কাটছে না। ইন্টারভিউ চললেও এখনই শিক্ষক নিয়োগ করা যাবে না। নিয়োগে ফের স্থগিতাদেশ জারি করেছে কলকাতা হাইকোর্ট।
সিঙ্গল বেঞ্চ সম্প্রতি উচ্চ প্রাথমিকের ইন্টারভিউয়ের তালিকায় ছাড়পত্র দেয়। তা মেনে সোমবারই শুরু হল ইন্টারভিউ। কিন্তু সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ডিভিশন বেঞ্চে মামলা হয়েছে। সেই বেঞ্চে মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত মামলার শুনানি ছিল। লম্বা সময় ধরে চলে সেই শুনানি। শেষে ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে, ইন্টারভিউ চলুক। কিন্তু এখনই নিয়োগ করা যাবে না। ফলে ফের আইনি জটিলতায় অনিশ্চিত প্রায় ১৪ হাজার চাকরি প্রার্থীর ভবিষ্যৎ।
জটিলতার জেরে ভবিষ্যৎ কী হবে, তা নিয়ে ফের তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। ইতিমধ্যেই দীর্ঘ অপেক্ষায় হতাশ চাকরি প্রার্থীরা আশার আলো দেখেছিলেন। কিন্তু ফের আশঙ্কায় পড়লেন তাঁরা।
বিচারপতি সুব্রত তালুকদার ও বিচারপতি সৌগত ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চে এই সংক্রান্ত মামলার শুনানি হয়। বেঞ্চ মঙ্গলবার দু’পক্ষেরই বক্তব্য শোনে। পরবর্তী নির্দেশের আগে পর্যন্ত নিয়োগে স্থগিতাদেশ জারি থাকবে বলে ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে।
সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশ মেনে আগে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া শেষ করতে হবে। তারপরে তৈরি হবে সফল প্রার্থীদের মেধাতালিকা। উচ্চ প্রাথমিকে শিক্ষক বাছাইয়ের দায়িত্ব স্কুল সার্ভিস কমিশনের (এসএসসি)। কমিশনকে একটি বিস্তারিত তালিকা তৈরি করতে হবে। প্রার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর ও ইন্টারভিউয়ের নম্বর জানাতে হবে। সেই তালিকা জমা দিতে হবে আদালতে।
আইনি জটিলতায় বারবার থমকে যাচ্ছে উত্ত প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়া। গত বছর ডিসেম্বরে স্বচ্ছতার অভাবের কারণে বাতিল করা হয়েছিল নিয়োগের গোটা প্রক্রিয়াটিই। নির্দিষ্ট সময়ে স্বচ্ছতা মেনে ফের ইন্টারভিউয়ের তালিকা প্রকাশ করতে বলা হয়। তবে তার মধ্যে কোভিড এবং বিধানসভা নির্বাচনের কারণে মে মাসে তালিকা প্রকাশ করা যায়নি। এরই মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, আগামী মার্চ মাসের মধ্যে প্রাথমিক-উচ্চ প্রাথমিক মিলিয়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। পুজোর মধ্যে নিয়োগ হবে সাড়ে ২৪ হাজার পদে। বাকি নিয়োগ মার্চের মধ্যে সম্পন্ন হবে।
তার পরেই জুনে প্রকাশ করা হয় নতুন তালিকা। কিন্তু তাতেও অস্বচ্ছতার অভিযোগ ওঠে। আদালত সেই তালিকা বাতিল করে বিস্তারিত নম্বর-সহ তালিকা প্রকাশের নির্দেশ দেয়। নির্দেশ মেনে নাম জানায় এসএসসি। তালিকায় সন্তুষ্ট হয় সিঙ্গল বেঞ্চ। আধালত জানিয়েছিল, কোনও অভিযোগ থাকলে এসএসসি-কে জানাতে। সেই মতো সোমবার শুরু হয় কাউন্সেলিং। বিস্তারিত তথ্যও জানানো হয় স্কুল সার্ভিস কমিশনের ওয়েবসাইটে।
শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু জানিয়েছিলেন, স্বচ্ছ ভাবেই নিয়োগ হবে। কিন্তু তারপরেও ডিভিশন বেঞ্চে মামলার সূত্রে ফের তৈরি হল জটিলতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top