সেবাই ধর্ম, ১০৪ বছরের নিয়ম ভেঙে মাছ-ডিম-মাংস ঢুকল ভারত সেবাশ্রমে

bharat-sevashram.jpg

কলকাতা: মানুষের সেবার ব্রতে ১০৪ বছরের নিয়ম ভাঙল ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘ। করোনা রোগীদের পথ্যের জন্য সেখানে তৈরি হচ্ছে ডিম সিদ্ধ, মুরগির স্যুপ। অথচ বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা আশ্রমের কোনও শাখায় এ পর্যন্ত মাছ-ডিম-মাংস ঢোকেনি। সেই নিয়ম মহামারীর সময়ে অসুস্থ মানুষের জন্য ভাঙলেন আশ্রম কর্তৃপক্ষ।
কোভিড হাসপাতাল খোলা হয়েছে গড়িয়া ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘে। সেখানে ভর্তি রোগীদের জন্যই রান্না হচ্ছে প্রাণিজ প্রোটিনের উৎস মাছ-ডিম-মাংস। কোভিড আক্রান্তদের জন্য পুষ্টিকর খাবারে প্রথম থেকেই জোর দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। প্রয়োজন বিশেষত প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। শরীরে কোষের গঠন থেকে শুরু করে দুর্বল রোগীদের শক্তি দিতেও প্রয়োজন প্রোটিনের। প্রাণিজ প্রোটিনের পাশাপাশি মুসুর ডান, পনির, সয়াবিনও খেতে বলছেন ডাক্তাররা। এই পরিস্থিতিতে ধর্মীয় অনুশাসনের চেয়ে মানুষের সেবা, মানুষের প্রাণ বাঁচানোর লড়াইটা অনেক বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানাচ্চেন সঙ্ঘের স্বামীজিরা।


১৯১৭ সালে স্বামী প্রণবানন্দের প্রতিষ্ঠিত এই আশ্রমের শাখা এখন ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশ, আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা থেকে শুরু করে ত্রিনিদাদ ও টোবাগো, ফিজি ইত্যাদি বহু দেশে ছড়িয়ে। গড়িয়া প্রণব নগরের ভারত সেবাশ্রম সঙ্ঘের দু’টি তলাকে কোভিড হাসপাতালে পরিণত হয়েছে শুক্রবার। অ্যাথেনা এডুকেশনাল অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের সঙ্গে সহযোগিতায় গড়ে উঠেছে তা। রয়েছে ৩০টি শয্যা। তার মধ্যে ২০ টি বেডে রয়েছে অক্সিজেনের ব্যবস্থা। তবে খুব জটিল রোগী নয়। শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা অন্তত ৮৫ অথচ কো-মর্বিডিটির কারণে রোগীকে বাড়িতে রাখা ঝুঁকির, এমন মানুষদেরই ভর্তি করা হচ্ছে এখানে। হাসপাতালের যাত্রা শুরুর পরেই আসতে শুরু করেছেন রোগীরা। তিন জন ভর্তি হয়ে গিয়েছেন ইতিমধ্যে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top