কালীঘাট ঘুরে তৃণমূল ভবনে গিয়ে আজই কি সপুত্র মুকুল জোড়াফুলে?

mukul-roy.jpg

কলকাতা: আজ, শুক্রবারই কি তা হলে জল্পনার অবসান ঘটতে চলেছে? বেশ ক’বছর বিজেপিতে কাটিয়ে কি ছেলে-সহ তৃণমূলে ফিরছেন মুকুল রায় (Mukul Roy) ?
সকাল থেকে ভেসে বেড়ানো খবর বিশ্বাস করলে তাতেই সিলমোহর দিতে হবে। আজ দুপুর তিনটেয় তৃণমূল ভবনে সাংগঠনিক বৈঠক ডেকেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার আগে কালীঘাটে তৃণমূল সুপ্রিমোর বাড়িতে যাওয়ার কথা মুকুলের (Mukul Roy)। পরে ছেলে শুভ্রাংশুর সঙ্গে তৃণমূল ভবনে যেতে পারেন তিনি। স্বাভাবিক ভাবেই জল্পনা, সেখানেই জোড়াফুল শিবিরে ফিরবেন তৃণমূলের এককালের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক মুকুল। প্রসঙ্গত, সপ্তাহ খানেক আগেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ওই পদে বসিয়েছেন মমতা।
মুকুল বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে এলে জোড়াফুল শিবিরের কাছে সেটা হবে খুব বড় রাজনৈতিক প্রাপ্তি। তৃণমূলের প্রথম সারির যে নেতা বিজেপিতে গিয়েছিলেন, তিনি মুকুলই (Mukul Roy)। তার পরে অর্জুন সিংহ, সব্যসাচী দত্ত, শোভন চট্টোপাধ্যায় (বর্তমানে বিজেপিতেও নেই), শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়দের পদ্মবনে বিচরণ শুরু হয়।
কারও নাম না করলেও ভোটের প্রচারে মমতা অবশ্য বারবারই বলেছেন, ‘গদ্দার’রা দল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়ায় তৃণমূলের কোনও ক্ষতি হয়নি। বরং এরা ‘বিদায়’ হওয়ায় ভালোই হয়েছে। ভোটে জয়ের একেবারে গোড়ায় দলত্যাগীদের ফেরানোর ব্যাপারে নরম মনোভাব প্রকাশ করলেও পরে এঁদের দলে ফেরা নিয়ে কোনও কথা বলেননি মমতা।
এরই মধ্যে মুকুলের ‘ঘর ওয়াপসি’ নিয়ে জল্পনা দেখা দেয় তাঁর স্ত্রীর অসুস্থতাকে কেন্দ্র করে। করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরে অসুস্থতা নিয়ে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি মুকুলের স্ত্রী। রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হিসাবে সেখানে প্রথম তাঁকে দেখতে যান অভিষেক। শুভ্রাংশুকে ‘পাশে আছি’ বলে আশ্বস্তও করেন। তারপরে দিলীপ ঘোষ, লকেট চট্টোপাধ্যায়রা যান, এমনকী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও ফোনে মুকুলের (Mukul Roy) কাছে স্ত্রীর খবর নেন। কিন্তু এ সবই যেন অনেকখানি ‘ড্যামেজ কন্ট্রোলের’ মতো লেগেছে।
পাশাপাশি বিজেপির সঙ্গে দূরত্ব বাড়িয়েছেন মুকুল (Mukul Roy)। দলীয় বৈঠকে যাননি। নিজে বাড়িতে অনুগামীদের নিয়ে বৈঠক করে পুরোনো দলে ফেরার জল্পনা উস্কে দিয়েছেন। শুভ্রাংশু আবার ফেসবুকে ‘আত্মসমালোচনা’র কথা লিখে বিজেপির বিরুদ্ধে নাম না করেই আক্রমণ শানিয়েছিলেন। যদিও মুকুল বিজেপির বিরুদ্ধে সে ভাবে মুখ খোলেননি। কিন্তু একের পর এক দলবদলু নেতার ‘বেসুর’ বিজেপি শিবিরকে যথেষ্ট অস্বস্তিতে রেখেছে। বিশেষত ভোটের আগে যাঁরা ঝাঁকে ঝাঁকে তৃণমূলে গিয়েছিলেন, তাঁদের বেশিরভাগই ভরাডুবির পর ফুল-বদলের জন্য লাইন দিয়েছেন।
অন্যদিকে, আজ তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎও। বর্তমানে তিনি জঙ্গিপুরের কংগ্রেস সাংসদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top