পিএসি-র চেয়ারম্যান কে হবেন? জোর টক্করে বিজেপি

Suvendu-Adhikari-Mukul-Roy.jpg

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির (PAC) চেয়ারম্যান কে হবেন? আপাতত এই প্রশ্নে সরগরম রাজ্য রাজনীতি।
ইতিমধ্যে পিএসি-র সদস্য পদে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন মুকুল রায়। তিনি একদিকে কৃষ্ণনগর উত্তরের বিজেপি বিধায়ক। অন্যদিকে, বর্তমানে তৃণমূল নেতা। বুধবারই বিধানসভায় চিঠি পাঠিয়ে মনোনয়ন দিয়েছেন মুকুল। এ নিয়ে পাল্টা মুখ খুলেছেন বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। সংবাদমাধ্যমে তাঁর বক্তব্য, ‘বিধায়ক থাকলে তবে তো পিএসি-র চেয়ারম্যান হবেন উনি।’
বিধানসভায় কমিটির সংখ্যা ৪১। এর মধ্যে বিধানসভা কমিটি ১৫টি, স্ট্যান্ডিং কমিটি ২৬টি। কিন্তু এ সবের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো পিএসি। বিধানসভা বা লোকসভা, দু’টিতেই সাধারণত বিরোধী দল থেকে পিএসি-র চেয়ারম্যান মনোনীত হন। মুকুলের সদস্য পদে মনোনয়ন পিএসি-র চেয়ারম্যান পদের দৌড়ে সামিল হওয়া বলেই মনে করা হচ্ছে। কারণ তাঁর সামনে তেমন কোনও প্রতিদ্বন্দ্বী এখনও নেই। কিন্তু প্রশ্ন হলো, তা হলে কি বিজেপির বিধায়ক পদ তিনি ছাড়বেন না?
এর মধ্যে জল্পনা বাড়িয়েছে শুভেন্দুর ওই মন্তব্য। মুকুলের বিধায়ক পদ খারিজ নিয়ে শুভেন্দু যথেষ্ট সক্রিয়। যদিও এমন ঘটনা এ-ই প্রথম নয়। ২০১৬-র পর মানস ভুঁইয়া বা শঙ্কর সিংয়ের ক্ষেত্রেও এমন নজির আছে।
তবে এ বার পরিস্থিতি একটু বেশি ঘোরালো। কারণ, পিএসি-র চেয়ারম্যান পদ পেতে মরিয়া বিজেপি। ৪১টি কমিটির মধ্যে ১০টি বিরোধী দল বিজেপিকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তৃণমূল। এই ১০টি কমিটির চেয়ারম্যানের প্রস্তাবিত নাম বুধবারের মধ্যে জমা দিতে বলেছিল স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের দপ্তর। কিন্তু বুধবার সেই তালিকা জমা পড়েনি। এ নিয়ে বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী সংবাদমাধ্যমে সংক্ষিপ্ত প্রতিক্রিয়া দেন। তিনি বলেন, ‘সঠিক সময়ে তা দেওয়া হবে। এটা আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়।’
অভ্যন্তরের অঙ্কটা কী? বিজেপি জানতে পেরেছে, আগামী সপ্তাহের গোড়াতেই পিএসি নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন স্পিকার। সে ক্ষেত্রে মুকুলকে ওরা পিএসি-র চেয়ারম্যান করা হতে পারে বলে জল্পনা। সেটা করা হলে পরবর্তী পদক্ষেপ করবে বিজেপি।
এ দিকে, আগামী ১৬ জুলাই মুকুলের বিধায়ক পদ খারিজ নিয়ে স্পিকারের কাছে প্রথম শুনানি। শুভেন্দু এ প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘তিনি সদ্য তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। এখন তৃণমূলই তাঁর নাম পিএসি কমিটিতে প্রস্তাব করেছে।’ গত বৃহস্পতিবার তিনি ৬৪ পাতার অভিযোগ জমা দিয়েছেন স্পিকারের কাছে। সেই সূত্রে নন্দীগ্রামের বিধায়কের দাবি, মুকুলের বিধায়ক পদই থাকবে না। তা হলে পিএসি-র চেয়ারম্যান হওয়ারও প্রশ্ন নেই। আগামী ১৬ তারিখ তিনি সব তথ্য জমা দেবেন।
তৃণমূল অবশ্য দাবি করেছে, মুকুলের মনোনয়নে তাদের হাত নেই। যদিও প্রস্তাবক হিসাবে মুকুলের মনোনয়নে সই করেছেন তৃণমূলেরই দুই বিধায়ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top