এই ধরনের ব্যক্তিত্ব বা উদ্ভট মন্তব্যের সঙ্গে তো ডিল করতে হবে না: বাবুলের নিশানায় দিলীপ-কুণাল

Babul-Supriyo-targets-Kunal-Ghosh-and-Dilip-Ghosh.jpg

কলকাতা: একদিন আগেই সক্রিয় রাজনীতিকে ‘আলভিদা’ জানিয়েছেন তিনি। শনিবারের সেই লম্বা পোস্টের পর রবিবার ফের ফেসবুকে (Facebook) একটি পোস্ট লিখলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo)। এ বার তাঁর নিশানায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। দু’জনেই বাবুলের আগের পোস্টে কিছু মন্তব্য করেন। যার প্রেক্ষিতে গায়ক-নেতার রবিবারের পোস্টটি।
শনিবার বাবুল রাজনীতি ছাড়ার কথা ফেসবুকে (Facebook) ঘোষণা করার পর কটাক্ষ করেন কুণাল। তিনি যা লেখেন, তার সারমর্ম হল, লোকসভা অধিবেশন চলছে, স্পিকার বসে আছেন। অথচ ফেসবুকে বাবুল ‘নাটক’ করছেন। একে শোলে সিনেমার ধর্মেন্দ্রর ট্যাঙ্কের উপরে উঠে সুইসাইড করার দৃশ্যের সঙ্গে তুলনা করেন কুণাল।
অন্যদিকে সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ বলেন, ‘ফেসবুকে কে কী লিখলেন আমি দেখি না।…মাসির গোঁফ হলে মাসি বলব না মেসো বলব তা ঠিক করব। আগে তো মাসির গোঁফ হোক।’
এই দুই মন্তব্যই তুলে ধরেন বাবুল (Babul Supriyo)। ফেসবুকে (Facebook) লেখেন — পড়লাম আপনাদের কমেন্টগুলি। …কিছু মানুষ নিজেদের রুচি অনুযায়ী ভাষার ব্যবহার করেছেন। সবটাই শিরোধার্য। এরপরে আক্রমণ শানিয়ে বাবুল লেখেন — অন্তত দেখুন, এই ধরনের ব্যক্তিত্ব বা উদ্ভট মন্তব্যের সঙ্গে তো আর রোজ রোজ ডিল করতে হবে না। কত পজিটিভ এনার্জি বাঁচবে বলুন তো যেটা অন্য সৎ কাজে লাগাতে পারব!!
কুণাল, দিলীপদের প্রশ্নের উত্তর তিনি কাজেও দিতে পারেন বলে উল্লেখ করেন বাবুল (Babul Supriyo)।
সম্প্রতি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা রদবদলে মন্ত্রিত্ব হারান বাবুল। তারপরে একটি বিতর্কিত পোস্ট দেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। খানিকটা হালকা চালেই লেখেন — তাঁকে পদ ছাড়তে বলা হয়েছে। তার আগে এ বারের বিধানসভা নির্বাচনে টালিগঞ্জ কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করা হয় বাবুলকে (Babul Supriyo)। কিন্তু সেখানে তিনি তৃণমূলের অরূপ বিশ্বাসের কাছে হেরে যান। পাশাপাশি দলের রাজ্য নেতৃত্বের একাংশের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ্বও প্রকাশ্যে আসে।
শনিবারের পোস্টে অকপট বাবুল জানান, মন্ত্রিত্ব খোয়ানোর সঙ্গে রাজনীতি ত্যাগের যোগ যে একেবারে নেই, তা নয়। সঙ্গে জানান সাংসদ পদও ছাড়ছেন। তা ছাড়া অন্য কোনও দল থেকে তাঁকে ডাকেনি। তিনি অন্য কোনও দলে যাচ্ছেন না বলেও স্পষ্ট জানান। গানের জগতেই ফিরতে চান বাবুল। বাবা, মা, স্ত্রী, সন্তান, ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা ও সব দিক বিবেচনার পরেই তাঁর এই সিদ্ধান্ত বলে পোস্টে জানিয়েছিলেন বাবুল।
এ দিকে, বাবুলের (Babul Supriyo) এই পোস্টের পরেও তিনি বিজেপিতেই থাকবেন বলে দলীয় নেতৃত্বের একাংশের দাবি। বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা বলেন, ‘ওঁর সঙ্গে আমার কথা হয়নি। প্রয়োজন হলে কথা বলব। ২০১৪-য় আমার উপস্থিতিতে উনি দলে যোগ দেন। উনি হুগলি থেকে দাঁড়াতে চেয়েছিলেন, আমি ওঁকে বুঝিয়ে আসানসোলে দাঁড় করাই।’ রাহুলের সংযোজন, ‘শিল্পীরা এমনই হন। উনি এখনও সাংসদ। আবেগের বশে বলে ফেলেছেন। কিন্তু উনি বিজেপিতে ছিলেন, আছেন ও থাকবেন।’
আর এক বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বলেন, ‘উনি ভালো গায়ক, ভালো সাংসদ ও মন্ত্রী হিসাবেও ভালো ছিলেন। উনি একজন রাজনৈতিক সহকর্মী। যাঁদের আবেগ রয়েছে, তাঁদের সঙ্গে এমনটা হয়।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top