কেন্দ্র-রাজ্যের টানাপড়েনের মধ্যে অবসর নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হলেন আলাপন

mamata-and-alapan.jpg

কলকাতা: কেন্দ্র-রাজ্য সংঘাতের ক্লাইম্যাক্সটা তৈরি করে দিলেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই। নির্ধারিত দিনে আজ, সোমবার অবসর নিয়ে যাবতীয় জল্পনায় ইতি টানলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব। তিন মাস তাঁর কাজের মেয়াদ বাড়িয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। সেই পর্বে আচমকাই দিল্লিতে ডেপুটেশনে ডাকায় ঘোলা হয়েছিল জল। সেই জল আরও ঘোলা করতে না দিয়ে অবসর নিয়ে আগামী তিন বছর রাজ্য সরকারের মুখ্য উপদেষ্টা হিসাবে জায়গা পাকা করলেন। আলাপনের এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ বলেন, ‘আমি ওকে জোর করে মুখ্যসচিব হিসাবে রেখে দিতে পারতাম। কিন্তু ও আমাকে বলল, ম্যাডাম আমি অবসর নিচ্ছি।’ রাজ্যের নতুন মুখ্যসচিব হচ্ছেন হরেকৃষ্ণ দ্বিবেদী। এবং স্বরাষ্ট্র সচিব বি পি গোপালিকা।
এক্সটেনশন গ্রহণ না করে অবসর নিয়ে আলাপন কার্যত মাস্টারস্ট্রোক দিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে অবশ্য রাজ্য বিজেপির নেতারা মুখে কুলুপ এঁটেছেন। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘কেউ অবসর নিচ্ছএন, সে ব্যাপারে আমাদের কিছু বলার নেই।’
মমতা এই পরিস্থিতিতে দেশের সব আমলাকে একজোট হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয়ের কারণেই যে বিজেপি শাসিত কেন্দ্রীয় সরকার নানা ভাবে হেনস্থা করার চেষ্টা করছে, তা-ও জানান মমতা।
গত শুক্রবার কলাইকুন্ডায় মোদীর রিভিউ বৈঠকে মমতা যোগ না-দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আলাপনের বদলির চিঠি পাঠায় দিল্লি। প্রথমে মৌখিক ভাবে এবং আজই পাঁচ পাতার চিঠি লিখে তা প্রত্যাহারের আর্জি জানিয়েছিলেন মমতা। আজ এক সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘এটা ভদ্রতা। কেন্দ্র থেকে চিঠি এসেছিল, তার উত্তর দিয়েছি। কিন্তু এখনও সে চিঠির জবাব আসেনি।’
অন্যদিকে, আলাপনও আজ নির্ধারিত সময়ে, সকাল ১০টায় দিল্লি গিয়ে নতুন ডিউটিতে যোগ দেননি। এতে তাঁর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ব্যবস্থা নেওয়ার তোড়জোড় শুরু করে কেন্দ্র। কিন্তু যাবতীয় জল্পনায় ইতি টেনে দিলেন ১৯৮৭ ক্যাডারের এই আমলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top