জম্মুতে এ বার সেনা ঘাঁটির কাছে দু’টি ড্রোন, গুলি চালাতেই ‘উড়ে গেল’

drone-spotted-near-Jammu-military-base.jpg

প্রতীকী চিত্র

Onlooker desk: ফের ড্রোন। এ বার তা দেখা গেল জম্মুর একটি সেনা ঘাঁটির কাছে। দু’টি ড্রোনকেই লক্ষ করে গুলি চালানো হয়। বিবৃতি জারি করে সেনা জানিয়েছে, তাতে ‘উড়ে যায়’ ড্রোনগুলি।
শনিবার গভীর রাতে বায়ুসেনার বিমানবন্দরে দু’টি বিস্ফোরণ হয়। মনে করা হচ্ছে, ওই হামলা ড্রোনের মাধ্যমেই চালানো হয়।
তারপর রবিবার রাতে ফের দেখা ড্রোনের। জম্মুর কালুচক মিলিটারি স্টেশনের কাছে রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ প্রথমটির দেখা মেলে। দ্বিতীয় ড্রোনটি দেখা যায় রাত দেড়টা নাগাদ।
সেনা বিবৃতিতে জানায় — ২৭-২৮ জুনের রাতে দু’টি পৃথক ড্রোন নজরে পড়ে। রতনুচক-কালুচক মিলিটারি এরিয়ার উপরে ড্রোনগুলিকে দেখেন সেনারা। সঙ্গে সঙ্গে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়।
কুইক রিঅ্যাকশন টিমস গুলি চালাতে শুরু করে। তাতে দু’টি ড্রোনই উড়ে যায়। সেনাদলের সতর্কতার জেরে গুরুতর হামলার হাত থেকে রক্ষা মিলেছে। নিরাপত্তা বাহিনীতে হাই অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। তল্লাশি চলছে। ঘটনার তদন্তও শুরু হয়েছে।
শনিবার রাতে জম্মুর বায়ুসেনা স্টেশনে দু’টি হামলার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ফের এই কাণ্ড। শনিবারের হামলায় একটি ভবনের ছাদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রথমে হতাহতের খবর না মিললেও পরে জানা গিয়েছে, বায়ুসেনার দু’জন জখম হয়েছেন।
জম্মু-কাশ্মীরের ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ দিলবাগ সিং বলেন, ‘বিস্ফোরক ফেলার লক্ষ্যেই ড্রোন ওড়ানো হয়েছিল।’ ভারতের কোনও সেনা ঘাঁটিতে এ ভাবে ড্রোন-হানা এই প্রথম।
নিরাপত্তা বাহিনী ও জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে এর পিছনে লস্কর-ই-তৈবার হাত পাওয়া গিয়েছে। পাকিস্তানি এই জঙ্গি গোষ্ঠীই জম্মুতে হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ। নির্দিষ্ট টার্গেট লক্ষ করেই হামলা চালানোর ছক ছিল তাদের। কিন্তু প্রযুক্তিগত কারণে তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয় বলে প্রাথমিক অনুমান।কিছুটা দূরত্বে দু’জায়গায় আইইডি বিস্ফোরকের খোঁজ মিলেছে। সেগুলি পরে তুলে নিয়ে গিয়ে অন্য কোথাও হামলার ছিল ছিল লস্করের। প্রসঙ্গত, ওই বিমানবন্দর ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত থেকে মাত্র ১৪ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত।
পাকিস্তান সীমান্তে অ্যান্টি-ড্রোন জ্যামার প্রযুক্তি নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী। কিন্তু এতে ভারতের নিজস্ব সংস্থাগুলির সঙ্গেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে। তাই এই পদ্ধতি নিয়ে আরও বিবেচনা, পরীক্ষা চলছে।
অন্যদিকে, রবিবারই আবার জম্মুর একটি ব্যস্ত এলাকায় বিস্ফোরক-সহ একজনকে ধরা হয়। ৫ থেকে ৬ কিলোমিটার ওজনের ওই বিস্ফোরক-যন্ত্র সহ ধরা পড়ে সে। কিন্তু এর সঙ্গে বায়ুসেনা স্টেশনে হামলার সম্পর্ক নেই। পুলিশ তেমনটাই জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top