কোর্টের ভর্ৎসনা, কয়েক ঘণ্টায় তিহার থেকে মুক্ত দিল্লি দাঙ্গায় অভিযুক্ত নাতাশারা

IMG-20210618-WA0000.jpg

Onlooker desk: আদালত জামিনের নির্দেশ দিয়েছিল দিনদুয়েক আগে। তারপরেও পুলিশ তাঁদের ছাড়েনি। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার কোর্টের ভর্ৎসনার মুখে পড়ে দিল্লি পুলিশ (Delhi Police)। তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে মুক্তি পেলেন তিন ছাত্র-আন্দোলনকারী। তাঁরা হলেন নাতাশা নারওয়াল (Natasha Narwal), দেবাঙ্গনা কলিতা এবং আসিফ ইকবাল তানহা। তিহার জেল থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ছাড়া পান তাঁরা। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে উত্তর-পূর্ব দিল্লির দাঙ্গায় ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তাঁরা গ্রেপ্তার হন।
এ দিন বহু সমর্থক হাজির হন তিহার জেলের বাইরে। দেবাঙ্গনা বলেন, ‘সরকার কতটা মরিয়া, এটা তারই প্রমাণ। কিন্তু আমরা ওদের ভয় পাই না। বন্ধু, শুভাকাঙ্ক্ষীদের থেকে প্রচুর সমর্থন পেয়েছি। সে কারণেই আমরা ভেসে থেকেছি। তাঁদের সকলকে ধন্যবাদ।’
নাতাশা (Natasha Narwal) অবশ্য বিষয়টি বিচারাধীন বলে মন্তব্য করতে চাননি। তাঁর কথায়, ‘আমাদের বিশ্বাসে আস্থা রাখায় দিল্লি হাইকোর্টকে (Delhi High Court) ধন্যবাদ। আমরা যে আন্দোলন করেছি, সেটা সন্ত্রাস ছড়ানো নয়। সেটা ছিল গণতান্ত্রিক আন্দোলন। নেতৃত্বে ছিলাম মহিলারা। জেলের ভয়ে আমাদের কাবু করা যাবে না। এ সব করলে আমাদের লড়াই আরও জোরালো হবে।’
নাতাশাকে (Natasha Narwal) নিতে এসেছিলেন তাঁর ভাই। মে মাসে কোভিডে মারা গিয়েছেন তাঁদের বাবা মহাবীর নরওয়াল। তিনি ছিলেন সিপিএমের প্রবীণ নেতা। নাতাশার ভাই বলেন, ‘আজ আমরা বাবাকে মিস করছি। বেঁচে থাকলে দিদি নিতে বাবাই আসতেন।’ নাতাশার কথায়, ‘বাবার মৃত্যুর শোক কী করে সামলাব জানি না। বন্দিত্ব কী ভাবে আপনজনেদের থেকে আলাদা করে দেয়, এ তার জ্বলন্ত প্রমাণ। আমার মামলাটা সামনে এসেছে। অনেকে একটা ফোন কল পর্যন্ত করতে পারে না।’
প্রতিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ যে কী করে এক হয়ে গেল, সে প্রশ্ন তোলেন তিনি। বস্তুত, এই প্রশ্নেই তাঁদের জামিন দিয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট (Delhi High Court)। গত বছর মে মাসে ইউএপিএ ধারায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। কিন্তু দিল্লি হাইকোর্ট জানায় প্রতিবাদ সংবিধান স্বীকৃত। তা সন্ত্রাসবাদ নয়। সেখানেও সরকারের মানসিকতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। বিরোধী স্বর চাপা দিতে মরিয়া সরকারই এমন করছে বলে পর্যবেক্ষণ দেয় আদালত।
দিল্লি পুলিশ (Delhi Police) অবশ্য হাল ছাড়তে নারাজ। জামিনের বিরোধিতায় তারা সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) গিয়েছে। কাল, শুক্রবার তার শুনানি।
ধৃতদের ৫০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন দিয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট (Delhi High Court)। একই মূল্যের আরও দু’টি করে শিওরিটি গচ্ছিত রাখতে হয়েছে তাঁদের। এ ছাড়া জমা দিতে হয়েছে পাসপোর্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top