কোভিডে মৃতের দেহ ফেলা হচ্ছে নদীতে, উত্তর প্রদেশের ভিডিয়োয় স্তম্ভিত দেশ

video-of-body-thrown-into-river.jpeg

Onlooker desk: কয়েক সপ্তাহ আগে বিহার, উত্তর প্রদেশে গঙ্গায় ভেসে আসা দেহ ঘিরে শিরোনাম হয়েছিল দেশ-বিদেশের সংবাদপত্রে। এ বার করোনায় মৃতের দেহ নদীতে ফেলার ভিডিয়ো সামনে এল। ফুটেজ দেখে শিউরে উঠেছে গোটা দেশ। ঘটনাটি উত্তর প্রদেশের। কোভিডে মৃতদের দেহ যাতে নদীতে না-ফেলা হয়, সে ব্যাপারে উত্তর ভারতের একাধিক রাজ্যকে সতর্ক করেছে কেন্দ্র। এই প্রবণতা রুখতে নদীর ধার বরাবর নজরদারিও বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে। কিন্তু দারিদ্র ও সচেতনতার অভাবে এই বদভ্যাসে দাঁড়ি টানা যাচ্ছে না বলে মনে করা হচ্ছে।
জানা গিয়েছে, গত ২৮ মে উত্তর প্রদেশের বলরামপুর ধরে যাওয়ার সময় একদল লোক ভিডিয়োটি করে। দেখা যাচ্ছে দু’জন লোক (একজন পিপিই পরে) রাপ্তি নদীর সেতুর উপরে একটি দেহ টেনে তোলার চেষ্টা করছে। পিপিই পরিহিত ব্যক্তি বস্তা থেকে দেহ বের করার চেষ্টা করছে বলেও ভিডিয়ো দেখে মনে হচ্ছে।


বলরামপুরের চিফ মেডিক্যাল অফিসার ভি বি সিং পরে জানান, দেহটি আদতেই এক কোভিড রোগীর। তাঁর আত্মীয়রাই সেটিকে নদীতে ফেলার চেষ্টা করছিল। আত্মীয়দের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে।
সিং বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, গত ২৫ মে হাসপাতালে ভর্তির তিন দিন পর, ২৮ তারিখে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। কোভিড প্রোটোকল মেনেই তাঁর দেহ আত্মীয়দের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কিন্তু তদন্তে জানা গিয়েছে, দেহটি তারা নদীতে ফেলে দেয়। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ দেহ পরে নদী থেকে তোলা হয়।
এ মাসের গোড়ার দিকে বিহার ও উত্তর প্রদেশে নদীতে বহু লাশ ভেসে আসতে দেখা যায়। প্রথম ঘটনাটি সামনে আসে বিহারের বক্সারে। তারপরের দিনই উত্তর প্রদেশে এক ধরনের ঘটনা ধরা পড়ে। সারি সারি দেহ বালি চাপা দেওয়া অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায় নদীর চরে। বিহারের শরণ জেলায় দিনকয়েক আঘে অ্যাম্বুল্যান্স থেকেও দেহ নদীতে ফেলে দিতে দেখা যায়। এ নিয়ে বিহার ও উত্তর প্রদেশের তরজা বেধে যায়। কোন রাজ্য এই কাণ্ড ঘটাচ্ছে, তা নিয়ে শুরু হয় চাপানউতোর।
কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী গজেন্দ্র শেখাওয়াত টুইটে লেখেন — গঙ্গায় দেহ ফেলার বিষয়টিকে আমরা অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। এই প্রবণতা আটকানোর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top