পিকের সঙ্গে ফের বৈঠক পাওয়ারের, কাল বিজেপি বিরোধীদের বৈঠকে ডাক পেল না কংগ্রেস

IMG-20210621-WA0008.jpg

Onlooker desk: বিজেপির বিরুদ্ধে যুদ্ধ। আলোচনার জন্য বিরোধী দলগুলির বৈঠক ডাকলেন এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার। তবে কাল, মঙ্গলবারের ওই বৈঠকে কংগ্রেস আমন্ত্রিত হয়নি। দলের দুই নেতাকে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছে। ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচন তো আছেই। পাশাপাশি আগামী বছর উত্তর প্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন। এই দুই ভোটকেই পাখির চোখ করে এগোতে চায় বিরোধীরা।
আমন্ত্রণ গিয়েছে শরদ পাওয়ার ও যশবন্ত সিনহার নামে। বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক মুখে তৃণমূলে যোগ দেন যশবন্ত। তাঁর সংগঠন রাষ্ট্রমঞ্চের তরফে পাঠানো হয়েছে আমন্ত্রণ। সেখানে লেখা হয়েছে — শরদ পাওয়ারজি এবং যশবন্ত সিনহাজি বর্তমান জাতীয় প্রেক্ষাপট আলোচনা করছেন। এই পরিস্থিতিতে সকলকে উপস্থিত থাকতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।
রাষ্ট্রীয় জনতা দল (ইউনাইটেড) নেটা মনোজ ঝা, আম আদমি পার্টি (আপ) নেতা সঞ্জয় সিংকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এ ছাড়া আমন্ত্রিত কংগ্রেস নেতা বিবেক তনখা এবং কপিল সিবাল। সূত্রের খবর, মনোজ ঝা ও কপিল সিবাল আমন্ত্রণ অস্বীকার করেছেন। তামিলনাড়ুর ডিএমকে এখনও এমন আমন্ত্রণ পায়নি বলে জানিয়েছে। বৈঠকের বিষয়েও তাদের কিছু জানা নেই।
তবে তাদের বাদ দেওয়ায় কংগ্রেস প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। বৈঠকে কংগ্রেসকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি জেনে মুখ খুলেছেন মহারাষ্ট্রের নেতা নানা পাটোলে। তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রে সকলেরই নিজের ইচ্ছেমতো চলার অধিকার আছে। আমরা কাউকে আটকাব না। কিন্তু কংগ্রেসকে বাদ দিয়ে কোনও মঞ্চ হতে পারে না।’ তাঁর অভিযোগ, পাওয়ার আগেও কংগ্রেসকে এড়িয়ে তৃতীয় ফ্রন্ট গড়ার চেষ্টা করেছেন।
এ দিন ফের ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোরের (পিকে) সঙ্গে বৈঠক করেন পাওয়ার। সপ্তাহদুয়েকের মধ্যে এই নিয়ে দ্বিতীয় বার। আজ, সোমবার দিল্লিতে বৈঠক হয় তাঁদের। আগের বৈঠকটি হয়েছিল গত ১১ জুন। পাওয়ারের বাড়িতে সেই আলোচনা চলেছিল ঘণ্টাতিনেক। ২০২৪-এ বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ-তে রুখতেই এই বৈঠক বলে জল্পনা।
কালকের বৈঠকে মূলত দু’টি বিষয় আলোচিত হবে। প্রথমত, পরের লোকসভায় মোদী-বিরোধী মঞ্চের মুখ কে হবেন। দ্বিতীয়ত, উত্তর প্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের বিরোধিতার ফসল কী ভাবে ঘরে তোলা যায়। একটি সূত্রের খবর, বিজেপির একাংশ গোপনে পাওয়ারকে সমর্থন করছে। কারণ তারা বুঝেছে যে মোদীর জনপ্রিয়তাতেও ভাটা পড়েছে। এবং বিজেপিকে একটা শিক্ষা দেওয়ার সময় এসেছে। এবং এই সূত্রে অনেকের চেয়ে অনেক এগিয়ে পাওয়ার। তিনি একদিকে বিচক্ষণ, অন্যদিকে প্রবীণ ও অভিজ্ঞ। অপ্রত্যাশিত জোট গড়ে চমকে দেওয়ার ইতিহাস আছে তাঁর।
আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিরোধী মুখের দৌড়ে সবচেয়ে এগিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও মমতা নিয়ে এ নিয়ে কখনও মন্তব্য করেননি। বিরোধী জোট নিয়ে পাওয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন শিব সেনার নেতা সঞ্জয় রাউতও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top