কোভিডে অনাথ শিশুর পরিসংখ্যান বিশ্বাস করি না: পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে সুপ্রিম কোর্ট

Supreme-Court-of-India.jpg

সুপ্রিম কোর্ট

OnLooker desk: সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।
সর্বোচ্চ আদালতে সরকার জানিয়েছিল, করোনা-লকডাউনে পশ্চিমবঙ্গে (West Bengal) মাত্র ২৭টি শিশু অনাথ (covid orphan) হয়েছে। কিন্তু এই তথ্য বিশ্বাসযোগ্য নয় বলে মঙ্গলবার পর্যবেক্ষণে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court of India)। বিশ্বাসযোগ্য ও গ্রহণযোগ্য নয়, এমন তথ্য যাতে সরকার পেশ না করে, সে ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গকে। যথাযথ নম্বর জমা দেওয়া না-হলে তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হতে পারে বলে সর্বোচ্চ আদালত (Supreme Court of India)জানিয়েছে।
বিচারপতি এল নাগেশ্বর রাওয়ের নেতৃত্বাধীন দুই বিচারপতির বেঞ্চে এ দিন মামলা ওঠে। বেঞ্চ জানিয়েছে, এর সঙ্গে শিশুদের ভালো থাকার প্রশ্ন জড়িত। তাই কেন্দ্রের সঙ্গে রাজনৈতিক টানাপড়েনের সঙ্গে একে এক করে দেখলে চলবে না।
লকডাউন পর্বে যে শিশুরা অনাথ হয়েছে, তাদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিয়েই এই মামলা। লকডাউন পর্বে কতজন শিশু বাবা-মাকে হারিয়েছে (covid orphan), পশ্চিমবঙ্গ (West Bengal) সরকারের কাছে সে কথা জানতে চেয়েছিল শীর্ষ কোর্ট। তাতে রাজ্য সরকারের আইনজীবী জানান, এই পর্বে বাবা এবং মা দু’জনকেই হারিয়েছে ২৭টি শিশু। তা নিয়েই প্রশ্ন তোলে বেঞ্চ। অতিমারীর যা ভয়াবহতা, তাতে মাত্র ২৭টি শিশুর বাবা-মা এই পর্বে মারা গিয়েছেন, সে কথা বিশ্বাস করতে চায়নি আদালত।
কোর্ট বলে — পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আইনজীবী যখন বলছেন, ২৭টি শিশু বাবা-মাকে হারিয়েছে, তখন এই বিবৃতিকে রেকর্ড করা হল। কিন্তু বাংলা একটি বড় রাজ্য…আমরা এই পরিসংখ্যান বিশ্বাস করতে রাজি নই। রাজ্যের (West Bengal) আইনজীবী জানান, তথ্য সংগ্রহ চলছে।
কিন্তু তাতেও রেহাই মেলেনি। বিচারপতি রাও এর প্রক্ষিতে বলেন, ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করবেন না এবং অজুহাত দেবেন না। পরিস্থিতির গভীরতাটা বুঝুন। অনাথ (orphan) শিশুরা অসহায় হয়ে পড়েছে। আপনাদের দায়িত্ব, তাদের সুরক্ষিত রাখা। আমাদের দায়িত্ব নয়। আমরা নিশ্চিত করব যাতে তারা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত না হয়।’ সেই সঙ্গেই রাজনীতির প্রসঙ্গ টানেন বিচারপতি। বলেন, ‘এ রকম কোনও অবস্থান নেবেন না। এটা কোনও রাজনৈতিক বিষয় নয়। এর সঙ্গে শিশুসুরক্ষার প্রসঙ্গ জড়িত।’
এরপরে কোর্ট (Supreme Court of India)পশ্চিমবঙ্গের সব জেলাশাসককে তথ্য সংগ্রহের নির্দেশ দেয়। বলে, ওই তথ্য যত দ্রুত সম্ভব জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের পোর্টালে (NCPCR) আপলোড করতে হবে। এই তথ্য আপলোড করার ব্যাপারে কী পদক্ষেপ করা হয়েছে, সে ব্যাপারে হলফনামা দাখিল করতে হবে কোর্টে (Supreme Court of India)। পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) নারী ও শিশুকল্যাণ এবং সমাজকল্যাণ দপ্তরের সচিবদের সেই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
কোভিডে কত শিশু অনাথ (covid orphan) হয়েছে, তাদের দেখভাল ও পড়াশোনার কী হবে, সে ব্যাপারে দীর্ঘ আলোচনা-বিতর্কের পর শীর্ষ আদালত স্বতঃপ্রণোদিত ভাবে বিষয়টি গ্রহণ করে। কিন্তু ঠিক কতজন শিশু এই পর্বে বাবা-মাকে হারিয়েছে, সেই সংখ্যাটা স্পষ্ট নয়। বিভিন্ন সংস্থা বিভিন্ন তথ্য দিয়েছে। রাজ্য সরকারগুলিও ঠিকঠাক পরিসংখ্যান দেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। মে মাসে কেন্দ্রীয় নারী ও শিশুকল্যাণ মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি জানিয়েছিলেন, এ বছর ১ এপ্রিল থেকে ২৫ মে-র মধ্যেই দেশে ৫৭৭টি শিশু বাবা-মাকে হারিয়েছে কোভিডে।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top