কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার অর্থ নেই, ঝাঁপ ফেলল মুম্বইয়ের ‘দ্য হায়াত রিজেন্সি’

Polish_20210608_100306441.jpg

Onlooker desk: করোনায় কোপ পড়েছে ছোট-বড় বহু প্রতিষ্ঠানে। চাকরি হারিয়েছেন অনেকে। এ বার ভাইরাসের দাপটে ঝাঁপ পড়ল মুম্বইয়ের ‘দ্য হায়াত রিজেন্সি’তে। বাণিজ্যনগরীর অন্যতম বিখ্যাত পাঁচতারা হোটেল হায়াত। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার জন্য পর্যান্ত অর্থ তাঁদের কাছে নেই। মুম্বই বিমানবন্দরের কাছে অবস্থিত হোটেলটির মালিক এশিয়ান হোটেলস (ওয়েস্ট) লিমিটেড।
সোমবার একটি ছোট বিবৃতি প্রকাশ করে হোটেলের জেনারেল ম্যানেজার হরদীপ মাড়ওয়া জানান, মূল গোষ্ঠীর তরফে কাজ চালানোর জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ পাঠায়নি। তিনি লেখেন — হোটেলের রোলে নাম থাকা সকল কর্মচারীকে জানানো হচ্ছে যে হায়াত রিজেন্সি মুম্বইয়ের মালিক, এশিয়ান হোটেলস (ওয়েস্ট) লিমিটেড-এর পক্ষ থেকে কোনও ফান্ড পাঠানো হয়নি। তাই হোটেল পরিচালনা ও কর্মচারীদের বেতন দেওয়ার জন্য অর্থের সংস্থান নেই। সে কারণে সাময়িক ভাবে সব কাজকর্ম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হচ্ছে। পরবর্তী বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়া পর্যন্ত হোটেল বন্ধ থাকবে।
২০২০ সালে ভারতে করোনা অতিমারীর হানাদারি শুরু হয়। সেই থেকেই হোটেল শিল্প ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। বস্তুত, করোনার জেরে প্রভাবিত শিল্পগুলির অন্যতম হলো হোটেল ও পর্যটন। সংক্রমণের ভয়, লকডাউনের জেরে পর্যটন ব্যবসা মুখ থুবড়ে পড়েছে। প্রচুর ছোট-মাঝারি হোটেল বন্ধ হয়ে গিয়েছে। গত বছর দেশজোড়া লকডাউনে তার প্রথম আঁচ মিলেছিল। তারপরে ধীরে ধীরে আনলকের পর কিছুটা ফিরছিল ব্যবসা। তারই মধ্যে দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ে। এপ্রিল থেকে প্রবল বাড়াবাড়ি শুরু হয় ভাইরাসের। কোনও রকমে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করা পর্যটন-হোটেল ব্যবসার শিরদাঁড়াই কার্যত ভেঙে দেয় করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউ।
অথচ দিল্লির পাশাপাশি দেশের বাণিজ্যনগরী মুম্বই হোটেল ব্যবসার অন্যতম পীঠস্থান। আর দুর্ভাগ্যজনক ভাবে করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলির মধ্যে রয়েছে দিল্লি এবং মহারাষ্ট্র। মুম্বইয়ে সোমবারও নতুন করে ৭২৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণের হদিস মিলেছে। মারা গিয়েছেন ২৮ জন। মহারাষ্ট্রে এ দিন সংক্রামিত হয়েছেন ১০ হাজার ২১৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৫৪ জনের। দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে গত ৫ মার্চের পর মহারাষ্ট্রে এ দিনের হিসাব সর্বনিম্ন হলেও এখনও করোনার দাপট রয়েছে। এ দিন পাঁচ ভাগে ভাগ করে আনলকিংও শুরু হয়েছে রাজ্যজুড়ে। আর এ দিনই তালা পড়েছে রাজ্যের রাজধানীর অন্যতম বড় হোটেলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top