নাম নিলেন না, তবে স্বাধীনতা দিবসের মঞ্চে মোদীর নিশানায় পাকিস্তান ও চিন

Narendra-Modi-Independence-Day.jpg

Onlooker desk: ৭৫তম স্বাধীনতা দিবসে (Independence Day) ৮৮ মিনিটের ভাষণে নাম না করে পাকিস্তান ও চিনকে আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। আজ, স্বাধীনতা দিবসে (Independence Day) লালকেল্লায় ভাষণে সন্ত্রাসবাদ ও দখলদারি নিয়ে মন্তব্য করেন মোদী। একদিকে পাকিস্তানের মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদ, অন্যদিকে চিনের লাদাখ দখলের আগ্রাসী নীতি। মোদী (Narendra Modi) তাঁর ভাষণে এই দুই প্রসঙ্গ তুলে দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্রকেই বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করলেন বলে মনে করা হচ্ছে।
প্রধীনমন্ত্রী এ দিন বলেন, ‘২০১৬-র সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এবং ২০১৯-এর আকাশপথে পাকিস্তানি জঙ্গি ঘাঁটিতে হামলায় শত্রুদের নতুন ভারত সম্পর্কে জোরালো বার্তা দেওয়া গিয়েছে। কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে ভারত যে পিছপা হবে না, সে কথা বুঝিয়ে দেওয়া গিয়েছে।’
উরিতে আত্মঘাতী জঙ্গিহানার প্রতিবাদে পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের জঙ্গি ঘাঁটিতে ২০১৬-য় পাল্টা হামলা চালায় ভারত। আর পুলওয়ামায় সন্ত্রাসবাদী হানার মোকাবিলায় পাকিস্তানের বালাকোটে একটি জৈশ-ই-মহম্মদের ঘাঁটিতে আকাশপথে হামলা চালায় ভারত।
মোদী জানান, ভারত সন্ত্রাসবাদ ও দখলদারির বিরুদ্ধে সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই চালাচ্ছে। সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করতে সরকার পদক্ষেপ করবে।
শনিবারই জম্মু-কাশ্মীরে সন্ত্রাস হানায় প্রাণ হারানো দুই সেনা সদস্যকে অশোক চক্র ও কীর্তি চক্র দেওয়ার ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। তার পরে মোদীর (Narendra Modi) এই বক্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। পাকিস্তানকে কড়া বার্তা দেওয়ার লক্ষ্যেই মোদী এ কথা বলেন। এবং সে জন্য বেছে নিয়েছেন স্বাধীনতা দিবসের (Independence Day) মঞ্চকে।
অন্যদিকে, পূর্ব লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন সেনা সরানো নিয়ে কথা চলছে ভারত ও চিনের। বিতর্কিত প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার গুরুত্বপূর্ণ অংশ থেকে ফ্রন্টলাইন ট্রুপ সরানো নিয়ে দু’দেশের টানাপড়েন বেশ কিছুদিনের।
গলওয়ানে চিনের সঙ্গে ভারতীয় সেনার রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আগে থেকেই সীমান্ত নিয়ে গোলমাল চলছে। প্রায় ১৫ মাস ধরে এ কারণে পূর্ব লাদাখের সংশ্লিষ্ট এলাকায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত। চিন ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে এসে দখলদারি চালানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ।
মোদী (Narendra Modi) এ দিন তাঁর ভাষণে বিক্রান্ত এয়ারক্রাফ্ট ক্যারিয়ারের প্রসঙ্গও উল্লেখ করেন। বিক্রান্ত হবে দেশে তৈরি প্রথম সবচেয়ে বড় যুদ্ধজাহাজ। বছরখানেকের মধ্যেই নৌবাহিনীতে যুক্ত হবে বিক্রান্ত। গত ৩ অগস্ট সমুদ্রে প্রাথমিক ট্রায়াল হয় বিক্রান্তের।
আজ, স্বাধীনতা দিবসের (Independence Day) মঞ্চে প্রধানমন্ত্রী আরও জানান, দেশজুড়ে সৈনিক স্কুলগুলিতে এ বার ছাত্রীরাও ভর্তির সুযোগ পাবে। দেশে এখন ৩৩টি সৈনিক স্কুল রয়েছে। বছরতিনেক আগে ছাত্রীদের জন্য দরজা খোলে মিজোরামের ছিংছিপের সৈনিক স্কুল। সেই পাইলট প্রজেক্টের সাফল্যের পরেই গোটা দেশে তা চালু করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top