সংঘর্ষের ঘটনায় অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার বিরুদ্ধে এফআইআর মিজোরামের

Himanta-Biswa-Sarma.jpg

Onlooker desk: অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার (Himanta Biswa Sarma) বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করল মিজোরাম (Mizoram)। গত সোমবার দুই রাজ্যের সীমানায় সংঘর্ষে অসমের (Assam) ছ’জন পুলিশকর্মীর মৃত্যু হয়। শুক্রবার হিমন্ত (Himanta Biswa Sarma) ও অসমের অন্য কর্তাদের নামে মামলা দায়ের করেছে মিজোরামের সরকার।
ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় এফআইআর করা হয়েছে তাঁদের নামে। মিজোরামের (Mizoram) কোলাশিব জেলার ভাইরেংটে থানায় দায়ের করা এফআইআরে হত্যার চেষ্টার মামলাও দায়ের হয়েছে।
অভিযোগ, ঘটনার দিন মিজোরাম পুলিশের সঙ্গে কোনও আলোচনায় বসতে রাজি হয়নি অসম (Assam) পুলিশ। হিমন্তের (Himanta Biswa Sarma) নির্দেশেই তারা এ কাজ করেছে। লেখা হয়েছে — কোলাশিবের এসপিকে জোর করে বলা হয়েছে যে এলাকাটি অসমের আওতায় পড়ে। এবং মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই যে সেখানে একটি ক্যাম্প তৈরি করা হচ্ছে, তা-ও জানায় অসম পুলিশ।
ক্যাম্প তৈরির জন্য তাঁবু ও অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে তারা হাজির হয় বলে এফআইআরে অভিযোগ করা হয়েছে। সঙ্গে অ্যাম্বুল্যান্স-সহ ২০টি গাড়িও ছিল। লেখা হয়েছে — এতে পরিষ্কার বোঝা যায় যে তারা মিজোরামের (Mizoram) সীমানা জোর করে অধিগ্রহণ করতে চায়।
হিমন্ত (Himanta Biswa Sarma) বাদে যে কর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন অসম (Assam) পুলিশের আইজি, একজন ডেপুটি আইজি এবং একজন এসপি। কাছারের ডেপুটি কমিশনারও রয়েছেন অভিযুক্তের তালিকায়। তা ছাড়া ২০০ জন পুলিশকর্মী, যাঁদের নাম উল্লেখ করা হয়নি। কাল, রবিবার ভাইরেংটে থানায় হাজির হতে বলা হয়েছে হিমন্ত-সহ (Himanta Biswa Sarma) অভিযুক্তদের।
অসম (Assam) পুলিশ এর আগে মিজোরামের একাধিক আধিকারিককে তলব করে। সে দিনই মিজোরামের (Mizoram) পুলিশ অসমের সিনিয়র অফিসারদের ডেকে পাঠায়।
সীমানা বণ্টন নিয়ে দুই রাজ্যের মধ্যে সংঘর্ষ দীর্ঘদিনের। কিন্তু গত সোমবার বিষয়টি বাড়াবাড়ির পর্যায়ে পৌঁছে যায়। যার জেরে প্রাণ হারাতে হয় ছ’জন পুলিশকর্মীকে।
সীমানা বরাবর ১৯৮ বর্গ মাইল এলাকায় মিজোরামের একটি নির্মাণ ঘিরে সাম্প্রতিক অশান্তি। কাছার জেলার ঢালাইয়ের লায়লাপুর এবং মিজোরামের কোলাশিবের ভাইরেংটে বরাবর সীমানা জুড়ে এই গোলমাল।
তারপরে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকেই শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানান কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এলাকাটি আপাতত থমথমে।
অতিরিক্ত সংখ্যায় কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী নিয়োগ করা হয়েছে। মোট ৫০০ বাহিনী মোতায়েন রয়েছে এলাকায়। অসম (Assam) ও মিজোরামের (Mizoram) পুলিশের মাঝে রয়েছে তারা। আরও দুই কোম্পানিকে স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। অসমের সর্বদলীয় প্রতিনিধিরা সে দিনের সংঘর্ষের এলাকা পরিদর্শনে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top