Basavaraj Bommai: কর্নাটকের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে নির্বাচিত আর এক লিঙ্গায়েত নেতা

Basavaraj-Bommai.jpg

Onlooker desk: কর্নাটকের (Karnataka) নতুন মুখ্যমন্ত্রী হলেন বাসবরাজ বোম্মাই (Basavaraj Bommai)। সদ্য প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পার মন্ত্রিসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তিনি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দলীয় বিধায়কদের এক বৈঠকে ইয়েদুরাপ্পার উত্তরসূরি হিসাবে বাসবরাজকে বেছে নেওয়া হয়। কাল, বুধবার দুপুর তিনটেয় নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেবেন তিনি।
বাসবরাজের বাবা এসআর বোম্মাই ছিলেন জনতা দলের নেতা। কর্নাটকের (Karnataka) প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। বাসবরাজও প্রথমে জনতা দল ইউনাইটেডের সদস্য ছিলেন। কিন্তু ২০০৮ সালে জেডিইউ ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন তিনি। বছর ৬১-র বাসবরাজ (Basavaraj Bommai) সংবাদমাধ্যমে জানান, কঠোর শ্রমে তাঁর আস্থা ছিল। কিন্তু কোনওদিন মুখ্যমন্ত্রী হবেন, তেমনটা কখনও আশা করেননি।
মঙ্গলবার যে বৈঠকে বাসবরাজকে (Basavaraj Bommai) বেছে নেওয়া হয়, সেখানে হাজির ছিলেন কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক ধর্মেন্দ্র প্রধান ও জি কিষান রেড্ডি।
নতুন মুখ্যমন্ত্রী বাসবরাজকে (Basavaraj Bommai) সর্বপ্রথম অভিনন্দন জানান বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা। টুইটে তিনি লেখেন — কর্নাটকের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার জন্য শ্রী বিএস বোম্মাইকে (Basavaraj Bommai) অভিনন্দন। আমি জানি, আপনি কর্নাটককে উন্নয়নের পথে নিয়ে যাবেন এবং রাজ্যের মানুষের প্রত্যাশা পূরণ করবেন।
ইয়েদুরাপ্পার ছেড়ে যাওয়া আসনে অন্য একজন লিঙ্গায়েত নেতাকে বসানো ছাড়া বিজেপির সামনে অন্য উপায় ছিল না। রাজ্যের জনসংখ্যার ১৬ শতাংশই লিঙ্গায়েত। এবং তাঁরা ইয়েদুরাপ্পার অপসারণের পক্ষে ছিলেন না। লিঙ্গায়েতদের ধর্মীয় নেতারা তো বটেই, এমনকী বিরোধী কংগ্রেসের লিঙ্গায়েত নেতারাও মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ইয়েদুরাপ্পাকেই রেখে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করেন।
একটি সূত্রের খবর, গত ১০ জুলাই তারিখেই পদ থেকে ইস্তফা দেন ইয়েদুরাপ্পা। এবং সে দিনই তাঁর পদত্যাগপত্র দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাতে তুলে দেন ইয়েদুরাপ্পার ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তি। কিন্তু সে কথা প্রকাশ্যে আনেননি ইয়েদুরাপ্পা। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত রহস্য জিইয়ে রাখেন তিনি। অবশেষে সোমবার ইস্তফার কথা জানান। গত দু’বছর ধরে তাঁকে ক্রমাগত পরীক্ষার ভিতর দিয়ে যেতে হয়েছে বলে বিদায়ী ভাষণে জানিয়েছিলেন ইয়েদুরাপ্পা।
এ দিকে, তাঁর ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে ক্রমশ ক্ষোভ বাড়ছিল দলের অন্দরে। সে কারণে তাঁর ইস্তফা ঘিরে জল্পনাও ক্রমশ জোরালো হয়। এ মাসের গোড়ায় একবার দিল্লি গিয়ে মোদী-সহ বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে দেখা করেন ইয়েদুরাপ্পা।
দক্ষিণ ভারতে বিজেপির প্রথম মুখ্যমন্ত্রী ২০১৯-এ চতুর্থ বারের জন্য ক্ষমতায় এসেছিলেন।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top