এ বারও পুরীর রথযাত্রায় থাকতে পারবে না আমজনতা, জানাল ওডিশা সরকার

Polish_20210611_011030127.jpg

Onlooker desk: কোভিড আবহে পুরীর রথযাত্রা গত বছরের মতো এ বারও ভক্তদের বাদ দিয়েই হবে। আগামী ১২ জুলাই রথযাত্রা। ওডিশায় কেবল পুরীতেই রথযাত্রা হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। এবং জগন্নাথদেব ও তাঁর দুই ভাই-বোন বলরাম এবং সুভদ্রার রথযাত্রায় যোগ দেবেন কেবল সেবায়েতরা।
স্পেশ্যাল রিলিফ কমিশনার (এসআরসি) পি কে জানা বৃহস্পতিবার এই সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, ‘মহাপ্রভু জগন্নাথের এই বার্ষিক অনুষ্ঠানে সুপ্রিম কোর্টের গাইডলাইন মেনে চলা হবে। গত বছরের নিষেধাজ্ঞা এ বারও বলবৎ থাকবে। যাবতীয় আচার পালিত হবে। আর যে সেবায়েতদের টিকাকরণ সম্পন্ন হয়েছে এবং ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে যাঁদের আরটি-পিসিআর টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ হবে, তাঁরাই থাকতে পারবেন এই অনুষ্ঠানে।
পুরীর জগন্নাথ মন্দির বাদে রাজ্যের অন্য কোথাও রথযাত্রার আয়োজন করা যাবে না বলে জানিয়েছে ওডিশা সরকার। মন্দিরের ভিতরে আচার-অনুষ্ঠানে বারণ নেই। তবে সেটা হবে একেবারে আড়ম্বরহীন ভাবে।

সাধারণ মানুষ অংশ নিতে না পারলেও প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে

গত বছর ১৮ জুন রথযাত্রা স্থগিত করার আদেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। তার চার দিন বাদে, ২২ তারিখ তাতে সায় দেয় সর্বোচ্চ আদালত। তবে নির্দিষ্ট কিছু শর্ত মেনে রথযাত্রার আয়োজন করা যাবে বলে জানিয়েছিল কোর্ট। সেখানেই জানানো হয়, আমজনতা রথযাত্রায় যোগ দিতে পারবেন না। রথের দিন শহরে কার্ফুও জারি করতে হবে।
এ বার স্থির হয়েছে, আরটি-পিসিআরে নেগেটিভ তো বটেই, যে সেবায়েতরা অংশ নেবেন, তাঁদের টিকাকরণ সম্পন্ন হতে হবে। তা ছাড়া, ৫০০-র বেশি সেবায়েত রথ টানায় যোগ দিতে পারবেন না বলে জানিয়েছে প্রশাসন। তাঁদের পুরোদস্তুর কোভিড-বিধি মেনে চলতে হবে।
এসআরসি জানান, রথযাত্রার সময়ে পুরীতে কার্ফু জারি করা হবে। শহরে ঢোকার সমস্ত রাস্তা ‘সিল’ করা থাকবে। ভক্ত ও আগ্রহীরা যাতে সরাসরি এই অনুষ্ঠান দেখতে পান, সে জন্য ‘লাইভ টেলিকাস্ট’-এর ফিড বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে দেবে তথ্য ও জনসংযোগ দপ্তর।
রাজ্যজুড়ে করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত ৫ মে ওডিশায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এখন অবশ্য আক্রান্তের সংখ্যা আগের তুলনায় অনেকটা কমেছে। গড়ে দিনে হাজার ছয়েক সংক্রমণের হদিস মিলছে ওডিশায়।
গত বছর মার্চ থেকে এ পর্যন্ত ৮ লক্ষ ৩৭ হাজার ২২৬ জন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়। রোগমুক্ত হয়েছেন ৭ লক্ষ ৬৪ হাজার ৬৭৩ জন। বুধবার পর্যন্ত ৩ হাজার ১৪৬ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top