কোভিড ও ব্ল্যাক ফাঙ্গাস চিকিৎসার সরঞ্জামে কর কমাল জিএসটি কাউন্সিল

images-1.jpeg

Onlooker desk: করোনার মোকাবিলার ওষুধ, হাসপাতালের কিছু সরঞ্জাম-সহ অন্যান্য জিনিসপত্রে কর কমাল গুডস অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্যাক্স (জিএসটি) কাউন্সিল। এক মন্ত্রিগোষ্ঠীর সুপারিশের ভিত্তিতে কর কমানো হয়েছে। কোভিডের থাবায় দেশেলর অর্থনীতির পাশাপাশি সংসারের খরচেও টান পড়েছে। সে কারণেই এই পদক্ষেপ বলে জানিয়েছে জিএসটি কাউন্সিল।
ঠিক হয়েছে, কোভিড ও ব্ল্যাকফাঙ্গাসের চিকিৎসায় ব্যবহৃত টোসিলিজুম্যাব এবং অ্যাম্ফোটেরিসিন বি-এর উপরে কোনও কর নেওয়া হবে না। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ট্যাক্স কাট কার্যকর থাকবে। প্রয়োজনে তা বাড়ানো হতে পারে। তবে কোভিডের টিকায় কর ৫ শতাংশই রাখা হয়েছে। মন্ত্রিগোষ্ঠীর তেমনটাই সুপারিশ ছিল।
কিছু কিছু ক্ষেত্রে আবার জিএসটি যেমন ১৮ শতাংশ হারে কার্যকর ছিল, তেমনই থাকবে। যেমনন আরটি-পিসিআর যন্ত্র, আরএনএ এক্সট্র্যাকশন যন্ত্র এবং জিনোম সিকোয়েন্সিং যন্ত্র। জিনোম সিকোয়েন্সিং কিটের উপরে যেমন ১২ শতাংশ হারে জিএসটি নেওয়া হচ্ছে, তেমনই নেওয়া হবে বলে জিএসটি কাউন্সিল জানিয়েছে। কোভিড টেস্টিং কিটের কাঁচামালের উপরেও করে ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।
টোসিলিজুম্যাব এবং অ্যাম্ফোটেরিসিন বি-তে কর ছাড় বাদেও কয়েকটি ওষুধের উপরে কর ছাড় দেওয়া হয়েছে। যেমন হেপারিনের মতো অ্যান্টি-কোয়াগুল্যান্ট (১২ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ), রেমডেসিভির (১২ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ)। এ ছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রক অনুমোদিত এবং কোভিড চিকিৎসায় ব্যবহৃত যে কোনও ওষুধের উপরেই বর্তমান হার থেকে কমিয়ে কর ৫ শতাংশ করা হবে বলে স্থির হয়েছে।
মেডিক্যাল গ্রেড অক্সিজেন, অক্সিজেন কনসেনট্রেটর এবং জেনারেটর, ভেন্টিলেটর, ভেন্টিলেটর মাস্ক, বাইপ্যাপ শহ ও হাই-ফ্লো নাসাল ক্যানুলা ডিভাইসের উপরেও করের হার ১২ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হবে বলে জানিয়েছএ কাউন্সিল।
কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য ব্যবহৃত সব ধরনের কিটে ৫ শতাংশ জিএসটি ধার্য করা হবে। আঘে এগুলির উপরে ১২ শতাংশ হারে কর নেওয়া হতো। এ বাদে ডি-ডাইমার, আইএল-৬, ফেরিটিন এবং এলডিএইচের মতো নির্দিষ্ট ইনফ্লেমেটরি ডায়াগনস্টিক কিটেও ট্যাক্স নেওয়া হবে ৫ শতাংশ হারে।
আজ, শনিবার জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠক হয়। পৌরোহিত্য করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। কোভিড টিকায় কর ছাড়ের দাবিতে সরব হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ-সহ বিজেপি বিরোধী রাজ্যগুলি। পরে ঐকমত্যে পৌঁছতে একটি মন্ত্রিগোষ্ঠী তৈরি করা হয়। গোষ্ঠীর রিপোর্ট নিয়ে আজকের ৪৪ তম কাউন্সিলের বৈঠকের আগে আলোচনা করেন নেতারা। তার পরেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top