মুম্বইয়েও ভুয়ো টিকা ২০০০ জনকে, বিহারে ‘পুশ’ করা হলো খালি সিরিঞ্জ

Vaccination.jpg

প্রতীকী চিত্র

Onlooker desk: কলকাতায় ভুয়ো টিকাকরণ নিয়ে শোরগোল চলছে।
এরই মধ্যে ভুয়ো ভ্যাকসিনের অভিযোগ উঠল মুম্বইয়ে (Mumbai)। পুলিশ জানিয়েছে, হাজার দুয়েক মানুষ ভুয়ো টিকা পেয়েছেন মুম্বইয়ে।
গত ২১ জুন দেশে নতুন টিকা নীতি চালু হয়েছে। ১৮ ঊর্ধ্বদের বিনামূল্যে টিকাকরণ (vaccination) শুরু হয়েছে ওই দিন। পাশাপাশি, এ বছরের মধ্যে দেশের প্রাপ্তবয়স্ক জনসংখ্যার টিকাকরণ সম্পন্ন করতে চাইছে সরকার। সব মিলিয়ে গত ক’দিনে টিকাকরণ অনেকখানি বেড়েছে।
তারই সূত্রে ঢুকে পড়েছে ভুয়ো টিকাকরণ। মুম্বই পুলিশ জানিয়েছে, হাজার দুয়েক মানুষকে ভুয়ো টিকা দেওয়া হয়েছে। ভ্যাকসিনের বদলে দেওয়া হয়েছে স্যালাইন ওয়াটার। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার মধ্যে দু’জন মুম্বইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। শহরে ন’টি কেন্দ্র করে ভুয়ো টিকাকরণ হয়েছে।
কলকাতায় বুধবার ভুয়ো ভ্যাকসিনের অভিযোগ সামনে আনেন সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। এই ঘটনায় জড়িত অভিযোগে কলকাতা পুলিশ দেবাঞ্জন দেব নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।
কলকাতাতেও (Kolkata) হাজার দুয়েকের আশপাশে মানুষকে ভুয়ো টিকা দেওয়ার অভিযোগ। টিকার বদলে এঁদের দেওয়া হয়েছে অ্যান্টি-বায়োটিক ইঞ্জেকশন। এ দলে ২৫০ জন বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন ও রূপান্তরকামী।
কলকাতা পুরসভার নাম নিয়ে এই প্রতারণা করে দেবাঞ্জন। নিজেকে পুরসভার জয়েন্ট কমিশনার বলে দাবি করত সে। পুরসভার তরফে অতীন ঘোষ জানান, বাজেয়াপ্ত হওয়া ভায়ালে কোভিশিল্ডের ভুয়ো লেবেল লাগানো ছিল। সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, ‘অ্যামিক্যাসিন সালফেট ৫০০-র উপরে কোভিশিল্ডের লেবেল সাঁটা হয়। অ্যামিক্যাসিন ইউটিআই, হাড়, মস্তিষ্ক, ফুসফুস ও রক্তে সংক্রমণ চিকিৎসায় ব্যবহৃত।’
কলকাতা পুরসভার স্বাস্থ্য আধিকারিক দেবাশিস বাড়ুই-ও এ নিয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি জানান, সে দিন কেন্দ্রে টিকা নেওয়া অনেকেই এখন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ভয়ে আতঙ্কিত। দেবাশিস বলেন, ‘যদি কোনও আপৎকালীন পরিস্থিতি তৈরি হয়, তা হলে আমরা মেডিক্যাল ক্যাম্প করব। ভুয়ো টিকা নিয়ে যাঁদের শরীর খারাপ হবে, তাঁদের চিকিৎসা করা হবে।’
এ দিকে বিহারেও (Bihar) টিকা নিয়ে এক বিপত্তির অভিযোগ সামনে এসেছে। ছাপরায় একটি টিকাকরণ কেন্দ্রে খালি সিরিঞ্জ পুশ করা হয়েছে এক ব্যক্তিকে। ঘটনার ভিডিয়ো এসেছে সামনে। অভিযুক্ত নার্সকে ডিউটি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।
যে ব্যক্তিকে খালি সিরিঞ্জ পুশ করা হয়, তিনি জানান, ওই ভিডিয়ো দেখার পর বিষয়টি তিনি বোঝেন। তার আগে জানতেন, তাঁকে টিকা দেওয়া হয়েছে। যে বন্ধু ভিডিয়োটি করেন, তিনি জানান, একেবারেই মজা করতে তা করেছিলেন। ইঞ্জেকশন নিতে ওই বন্ধু ভয় পায় কি না দেখতে। সন্ধ্যায় সেই ভিডিয়ো দেখতে গিয়ে তাঁরা খেয়াল করেন, টিকা নেওয়াই হয়নি। ফাঁকা সিরিঞ্জ পুশ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top