হেফাজতে প্রস্রাব খেতে বাধ্য করা হলো দলিত তরুণকে

WhatsApp-Image-2021-05-23-at-11.37.06-AM.jpeg

Onlooker desk: হেফাজতে এক দলিত ব্যক্তিকে প্রস্রাব খেতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠল এক পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে। এক দম্পতির মধ্যে অশান্তি সৃষ্টি করছেন বলে গ্রামবাসীদের অভিযোগ ধৃতের বিরুদ্ধে। পুলিশ হেফাজতে তাঁর সঙ্গে এমন বর্বরোচিত আচরণের কথা সামনে এল কর্নাটকের চিকমাগালুরে। ধৃতের দাবি, তাঁর বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ দায়ের না হওয়া সত্ত্বেও এই অকথ্য অত্যাচারের সম্মুখীন হতে হয়েছে।
পুনীত কে এল নামে বছর ২২-এর ধৃত তরুণ সিনিয়র অফিসারদের চিঠি লিখে বিষয়টি জানান। অভিযুক্ত সাব-ইনস্পেক্টরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জিও জানান তিনি।
পুনীতের অভিযোগ, কয়েক ঘণ্টা ধরে তাঁকে মারধর করে পুলিশ। তারপরে হেফাজতে নেয়। সেখানে জল চান তিনি। অভিযুক্ত সাব-ইনস্পেক্টর তা না দিয়ে লক আপে থাকা চেতন নামে অন্য একজনকে পুনীতের গায়ে প্রস্রাব করে দিতে বলেন। চুরির অভিযোগে ধৃত চেতন প্রথমে এ কাজ করতে রাজি হননি। কিন্তু তাঁকে মারধরের ভয় দেখিয়ে প্রস্রাবে বাধ্য করা হয় বলে পুনীতের অভিযোগ। এখানেও থামেননি ওই পুলিশ অফিসার। মেঝেয় পড়ে থাকা প্রস্রাব চাটতে বাধ্য করেন বলে পুনীতের দাবি। অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহার করে জোরজবরদস্তি মিথ্যে স্বীকারোক্তি আদায়ের চেষ্টা হয় বলেও ওই তরুণের অভিযোগ।
অভিযোগের প্রেক্ষিতে চাকমাগালুরের পুলিশ সুপার অক্ষয় হকায় প্রাথমিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। অভিযুক্ত সাব ইনস্পেক্টরকে অন্যত্র বদলি করা হয়েছে। বিভাগীয় তদন্ত শেষ হলে পরবর্তী পদক্ষেপ হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top