যন্তর মন্তরে মুসলিম-বিদ্বেষী স্লোগান, বিজেপি নেতাকে তলব পুলিশের

Jantar-Mantar-Communal-slogan-Ashwani-Upadhyay.jpg

Onlooker desk: পুলিশের অনুমতি ছাড়াই আয়োজন করা হয়েছিল ইভেন্টটি। রবিবার দিল্লির যন্তর মন্তরে (Jantar Mantar) আয়োজিত সেই অনুষ্ঠানে সাম্প্রদায়িক স্লোগান (Communal slogan) দেওয়ার অভিযোগ উঠল। সেই ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে। যার জেরে বেধেছে নতুন বিতর্ক। দিল্লি পুলিশ এ নিয়ে ইতিমধ্যেই মামলা দায়ের করে তদন্তে নেমেছে।
অনুষ্ঠানটি আয়োজনের অভিযোগ উঠেছে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তথা দিল্লির প্রাক্তন মুখপাত্র অশ্বিনী উপাধ্যায়ের (Ashwani Upadhyay) বিরুদ্ধে। যদিও সংবাদমাধ্যমে অশ্বিনী (Ashwani Upadhyay) দাবি করেছেন, তিনি ওই ভিডিয়ো সম্পর্কে অবহিত নন। পাঁচ-ছ’জন স্লোগান দিচ্ছিল। তবে এমন স্লোগান (Communal slogan) দেওয়া যে উচিত হয়নি, তা মেনে নিয়েছেন অশ্বিনী। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জিও জানিয়েছেন।
যদিও তাতে কাজ হয়নি। অশ্বিনীকে (Ashwani Upadhyay) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছে পুলিশ। বিবৃতি জারি করে তাঁর দাবি — অনুষ্ঠানটির আয়োজন করেছিল সেভ ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশন। এবং এই সংগঠনের সঙ্গে তাঁর কোনও যোগাযোগ নেই। আরভিএস মণি, ফিরোজ বখত, গজেন্দ্র চৌহানদের মতো তিনিও ওই অনুষ্ঠানে একজন আমন্ত্রিত ছিলেন। বেলা ১১টায় পৌঁছে দুপুর ১২টায় সেখান থেকে তিনি বেরিয়ে যান বলে জানান অশ্বিনী।
‘দুষ্কৃতী’দের সঙ্গে তাঁর কখনও দেখা হয়নি বলেও দাবি করেছেন অশ্বিনী (Ashwani Upadhyay)।
এ দিকে, বিতর্কিত ঘটনার ভিডিয়ো ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। দেখা যাচ্ছে, সেখানে একদল লোক মুসলিমদের হুঁশিয়ারি দিচ্ছে। সঙ্গে রামের নামে চলছে স্লোগান (Communal slogan) ।
দিল্লির যন্তর মন্তর (Jantar Mantar) গোটা দেশের মধ্যে অন্যতম উল্লেখযোগ্য প্রতিবাদ স্থল। সংসদ এবং শীর্ষ সরকারি অফিসগুলি থেকে যার দূরত্ব কয়েক কিলোমিটার। সেখানে ওই ইভেন্টে যোগদানকারীরা চিৎকার করে বলছে — হিন্দুস্থান মে রহেনা হোগা, জয় শ্রীরাম কহেনা হোগা। এই স্লোগান দেওয়ার সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন পুরোহিত নরসিংহানন্দ সরস্বতী। বিভিন্ন সময়ে বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের জন্য শিরোনামে এসেছেন তিনি।
পুরোনো ঔপনিবেশিক আইনের বিরোধিতায় রবিবারের ওই অনুষ্ঠান ও মিছিলের আয়োজন করা হয়। পুলিশের দাবি, কোভিড-বিধির কারণে ওই জমায়েতের অনুমতিও দেওয়া হয়নি।
সোমবার বিষয়টি সংসদে তোলেন মিম-এর সাংসদ আসাদউদ্দিন ওয়াইসি। তাঁর অভিযোগ, মুসলিমদের গণহত্যার ডাক দিয়ে স্লোগান দেওয়া হল। কিন্তু তারপরেও এ ব্যাপারে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হল না। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিশানা করেছেন ওয়াইসি। প্রধানমন্ত্রীর বাস ভবন থেকে মাত্র ২০ কিলোমিটার দূরে যন্তর মন্তরে (Jantar Mantar) এই ঘটনা ঘটে বলেও তাঁর অভিযোগ।
ওয়াইসির কথায়, ‘এই গুন্ডাদের সাহসের রহস্যটা কী? সেটা হল, তারা জানে, তাদের পিছনে মোদীর সরকার রয়েছে। গত ২৪ জুলাই ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে কেন্দ্রীয় সরকার যে কোনও ব্যক্তিকে আটক করার অধিকার দিয়েছে দিল্লি পুলিশকে। তার পরেও পুলিশ নীরবে সব দেখছে।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top