প্রথম ডোজে কোভিশিল্ড, দ্বিতীয়তে কোভ্যাক্সিন! উত্তর প্রদেশের ঘটনায় চাঞ্চল্য

corona-vaccine1.jpg

Onlooker desk: প্রায় ২০ জন গ্রামবাসীকে কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ডের মিশ্র ডোজ দেওয়া হলো উত্তর প্রদেশের সিদ্ধার্থনগরের একটি সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। ভ্যাকসিন এ ভাবে না-মেশানোর ব্যাপারে বারবার সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তা হলে এমনটা হলো কী করে? দায়িত্বপ্রাপ্ত এক আধিকারিকের ব্যাখ্যা, ‘নজর এড়িয়ে’এমনটা হয়ে গিয়েছে। পাশাপাশি আধিকারিকদের দাবি, দু’রকম টিকা নিয়ে কারও শরীরে কোনও সমস্যা হয়নি। এই কাণ্ড ঘটানোর জন্য দোষীদের শাস্তি দেওয়া হবে।
রাজধানী লখনৌ থেকে ২৭০ কিলোমিটার দূরে নেপাল সীমানার কাছে অবস্থিত মূলত গ্রামাঞ্চল অধ্যুষিত এই জেলা। সেখানকারই একটি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গ্রামবাসীদের প্রথম ডোজে কোভিশিল্ড ও দ্বিতীয় ডোজে কোভ্যাক্সিন দেওয়ার খবর এসেছে সামনে।
সিদ্ধার্থনগরের চিফ মেডিক্যাল অফিসার সন্দীপ চৌধরি বলেন, ‘এটা আসলে নজর এড়িয়ে হয়ে গিয়েছে। ভ্যাকসিনের মিশ্রণ ঘটানোর কোনও নির্দেশ সরকারের তরফে নেই। আমরা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলাম। তার রিপোর্টও চলে এসেছে। দোষীদের কাছে ঘটনার ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে। সম্ভাব্য সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
দু’ধরনের টিকা মিশিয়ে ফেললে তার প্রভাব কী হতে পারে, সে ব্যাপারে আন্তর্জাতিক স্তরে এখনও গবেষণা চলছে। তবে সন্দীপের দাবি, ওই গ্রামের বাসিন্দাদের কোনও সমস্যা এখনও দেখা দেয়নি। গত ১৪ মে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন তাঁরা। এ ব্যাপারে খোঁজখবরওনেওয়া হয়েছে।
যদিও গ্রামবাসীদের একাংশের অভিযোগ, স্বাস্থ্য দপ্তরের কেউ তাঁদের কাছে এসে ভ্যাকসিন মিশ্রণের প্রভাব জানতে চাননি। এই গোলমালের কী প্রভাব শরীরে পড়বে, তা নিয়ে চিন্তিত গ্রামবাসীরা। উত্তর প্রদেশে টিকাকরণের গতি এমনিতেই খুব শ্লথ। এ পর্যন্ত মাত্র ১.৪ শতাংশের পুরোদস্তুর টিকাকরণ হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top