সিবিআই বা তদন্তকারী সংস্থাগুলি সাড়া দেয় না: ঝাড়খণ্ড-জজের মৃত্যুতে পর্যবেক্ষণ সুপ্রিম কোর্টের

Supreme-Court-of-India.jpg

সুপ্রিম কোর্ট

Onlooker desk: ঝাড়খণ্ডের এক ডিস্ট্রিক্ট জজের (Jharkhand district judge) মৃত্যুর প্রেক্ষিতে গুরুত্বপূর্ণ পর্যবেক্ষণ জানাল সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)।
এ প্রসঙ্গে সর্বোচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণ — নিম্ন আদালতের কোনও জজ হুমকির অভিযোগ জানালে সিবিআই বা অন্য তদন্তকারী সংস্থাগুলি তাতে ‘সাড়া দেয় না’। প্রধান বিচার পতি এন ভি রামানা (Chief Justice of India NV Ramana) কড়া সমালোচনা করে জানান, সংস্থাগুলি কোনও সাহায্যই করে না।
তিনি বলেন, ‘সিবিআইয়ের আচরণে কোনও পরিবর্তন আসেনি।’ জজদের নিরাপত্তা নিয়ে একটি মামলার প্রেক্ষিতে কেন্দ্রের কাছে এক সপ্তাহের মধ্যে জবাব তলব করেছেন চিফ জাস্টিস অফ ইন্ডিয়া (Chief Justice of India NV Ramana)।
কোনও হাই প্রোফাইল কেসের রায় পছন্দমতো না হলেই বিচারব্যবস্থাকে বদনাম করা হয়। প্রধান বিচারপতির (Chief Justice of India NV Ramana) কথায়, ‘হাই প্রোফাইল অনেক মামলায় গ্যাংস্টাররা জড়িত। সেখানে বহু সময়ে জজদের মানসিক ভাবে হেনস্থা করতে হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুকে আপত্তিজনক বার্তা পাঠানো হয়।’ তাঁর সংযোজন, ‘সিবিআই কিচ্ছু করেনি। আমরা সিবিআইয়ের আচরণে কিছু পরিবর্তন আশা করেছিলাম। কিন্তু কোনও পরিবর্তন আসেনি। বলতে খারাপ লাগলেও, বাস্তব পরিস্থিতি এটাই।’
এর পরে আরও কড়া পর্যবেক্ষণ দেন তিনি। প্রধান বিচারপতি (Chief Justice of India NV Ramana) বলেন, ‘তদন্তকারী সংস্থাগুলি বিন্দুমাত্র সাহায্য করে না। আমি দায়িত্ব নিয়েই এ কথা বলছি। আর বিস্তারিত কিছু বলব না। কিছু একটা করতে হবে।’
গত ২৮ জুলাই ঝাড়খণ্ডের ডিস্ট্রিক্ট জজ (Jharkhand district judge) উত্তম আনন্দকে খুন করা হয়। প্রথমে মনে করা হয়েচিল, গাড়ির ধাক্কায় দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে তাঁর। কিন্তু পরে একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হওয়ায় দেখা যায়, একটি অটো সোজা গিয়ে তাঁকে ধাক্কা মেরে পালাচ্ছে। সুনসান রাস্তায় জনপ্রাণী না-থাকায় অটোটিকে ধরা যায়নি।
বিচারক আনন্দ ধানবাদে মাফিয়া হত্যার অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ মামলার শুনানি করছিলেন। দু’জন গ্যাংস্টারের জামিনের আবেদনও নাকচ করেন তিনি। তা ছাড়া একটি হত্যা মামলায় এক বিধায়কের ঘনিষ্ঠের নাম জড়িত। এই পরিস্থিতিতে তাঁকে গাড়ির ধাক্কায় হত্যার ঘটনায় যথেষ্ট শোরগোল পড়ে। অটোচালক ও তার এক সঙ্গীকে গ্রেপ্তার করা হয়।
সুপ্রিম কোর্ট গত শুক্রবার নিজে থেকেই মামলাটি শুনানির জন্য গ্রহণ করে। তাদের বক্তব্য, এই মামলার প্রভাব অনেকদূর বিস্তৃত।
আজ, শুক্রবারের শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল সুপ্রিম কোর্টকে (Supreme Court) জানান, অনেক জজের কাছেই হুমকি আসছে। গ্যাংস্টাররা তাঁদের হুমকি দিচ্ছে। যার জেরে ছ’মাসের জন্য পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে মামলা। জেলাস্তরে বিচারকদের নিরাপত্তার প্রয়োজনীয়তায় জোর দেন অ্যাটর্নি জেনারেল।
চিফ জাস্টিস এন ভি রামানার (Chief Justice of India NV Ramana) পর্যবেক্ষণ — ধানবাদের এক অল্পবয়সী জজের এ ভাবে মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক। ধানবাদ কয়লা মাফিয়াদের এলাকা। তা সত্ত্বেও সরকার কিছু করেনি। সরকারকেই নিরাপত্তা দিতে হবে।
এই প্রেক্ষিতে বিচারকদের বিশে, নিরাপত্তার একটি প্রসঙ্গ টানেন প্রধান বিচারপতি রামানা। তিনি বলেন, ‘আবেদনকারী জানিয়েছেন, সমাজবিরোধীরা কোর্ট চত্বরে ঢুকে পড়ছে। আবেদনকারী চান, কেন্দ্র এ জন্য রেলওয়ে প্রোটেকশন ফোর্সের মতো পৃথক বাহিনী তৈরি করার আবেদন জানিয়েছেন তিনি। যাতে বিচারকরা স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারেন।’ এ ব্যাপারে কেন্দ্রের জবাব তলব করেছেন তিনি।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top