অগস্ট-সেপ্টেম্বরে হতে পারে সিবিএসই-র অপশনাল পরীক্ষা

86E45ABC-88EA-4FD6-9AFD-2C6B4E627EE4.jpeg

Onlooker desk: বিকল্প মূল্যায়নে খুশি না হলে পড়ুয়ারা পরীক্ষা দিতে পারবে। আগেই এ কথা জানিয়েছিল সিবিএসই (CBSE)। আজ, সোমবার সেন্ট্রাল বোর্ড অফ সেকেন্ডারি এডুকেশন জানাল, অগস্ট-সেপ্টেম্বরে সেই অপশনাল পরীক্ষা হতে পারে। সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) অতিরিক্ত হলফনামা দিয়ে এ কথা জানিয়েছে সিবিএসই (CBSE)।
অতিরিক্ত হলফনামায় কী বলা হয়েছে? সেখানে জানানো হয়েছে, ১৫ অগস্ট থেকে ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পরীক্ষা হতে পারে। করোনা অতিমারীর পরিস্থিতি কেমন থাকে, তার উপরে নির্ভর করে দিন চূড়ান্ত হবে।
বোর্ড বলেছে — কোনও পরীক্ষার্থী হয়তো বিকল্প মূল্যায়ন পদ্ধতিতে খুশি নয়। এদের জন্য পরীক্ষা আয়োজিত হবে। করোনা অতিমারীর উপরে নির্ভর করে ১৫ অগস্ট থেকে ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে তা হবে।
এ বারের সিবিএসই (CBSE) দ্বাদশের ফল বেরোবে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে।
দ্বাদশের বিকল্প মূল্যায়ন পদ্ধতির বিরুদ্ধে আবেদন জমা পড়েছে সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court)। আজ, দিনের শুরুতে সর্বোচ্চ আদালত জানিয়েছে, তারা আবেদনের শুনানি করবে কাল, মঙ্গলবার। কোর্ট জানিয়েছে, বিকল্প পদ্ধতির সঙ্গে নীতিগত ভাবে তারা সহমত। কিন্তু তাতে বদলের কথা বলার আগে আবেদনকারীদের শোনা হবে।
এ বারের সিবিএসই (CBSE) দ্বাদশের মূল্যায়ন হবে তিন ক্লাসের নম্বরের ভিত্তিতে। সেগুলি হলো দশম, একাদশ ও দ্বাদশ। এর মধ্যে দশম ও একাদশের নম্বরে থাকবে ৩০ শতাংশ করে ওয়েটেজ। অর্থাৎ ওই দুই ক্লাসে গুরুত্ব ৬০ শতাংশ। আর দ্বাদশের প্রি-বোর্ড পরীক্ষার নম্বরে ওয়েটেজ ৪০ শতাংশ।
এরই মধ্যে কিছু ছাত্রছাত্রী সুপ্রিমর কোর্টের (Supreme Court) দ্বারস্থ হয়েছে। দুই দিল্লি বোর্ডের সিদ্ধান্তেরই বিরুদ্ধে তারা। অর্থাৎ সিবিএসই এবং সিআইএসসি বা আইসিএসই কাউন্সিল। প্রসঙ্গত, দুই বোর্ডই পরীক্ষা বাতিল করেছে। আবেদনকারীদের বক্তব্য, সশরীর পরীক্ষা বাতিল করা যাবে না। কোভিড পজিটিভিটির হার অনেকখানি কমে এসেছে। তাই সশরীর পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের তরফে মামলা লড়ছেন আইনজীবী বিকাশ সিং।
মামলাটি ওঠে বিচারপতি এ এম খানউইলকর এবং বিচারপতি দীনেশ মাহেশ্বরীর ভ্যাকেশন বেঞ্চে। কাল, মঙ্গলবার দুপুর দুটো পর্যন্ত শুনানি পিছিয়ে দিয়েছে বেঞ্চ।
অন্যদিকে, সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে ১১৫২ জন প্রাইভেট পরীক্ষার্থীও। এই দলে রয়েছে কম্পার্টমেন্টাল পাওয়া ছাত্রছাত্রীরাও। তাদের আবেদন, এই পরীক্ষাগুলিও বাতিল করুক সিবিএসই। রেগুলার পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে তাদের সমান ভাবে দেখার আবেদন করেছে এই পড়ুয়ারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top