উত্তর প্রদেশে তখত ধরে রাখতে জরুরি বৈঠকে বিজেপি-আরএসএস

MODI-SAHA.jpg

Onlooker desk: বাংলা দখলের স্বপ্ন ভেঙেছে। করোনায় জনপ্রিয়তা কমছে হু হু করে। এর মধ্যে আগামী বছর উত্তর প্রদেশ-সহ কয়েকটি রাজ্যে নির্বাচন। ‘পোস্টার বয়’ যোগী আদিত্যনাথকে দিয়ে হিন্দুত্বের ধ্বজা উড়িয়ে কতখানি সুবিধা করা যাবে, তা নিয়ে সংশয় ঘোরতর। এই পরিস্থিতিতে রবিবার সন্ধ্যায় গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সারল বিজেপি ও তাদের আদর্শগত মেন্টর আরএসএস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও উপস্থিত ছিলেন সেই বৈঠকে।
‘ড্যামেজ কন্ট্রোলে’ সাংগঠনিক ও প্রশাসনিক কিছু উদ্যোগের প্রসঙ্গ দিল্লির ওই বৈঠকে আলোচনা হয় বলে সূত্রের খবর।
বিজেপি প্রধান জে পি নাড্ডা, আরএসএস নেতা দত্তাত্রেয় হোসবোলে এবং উত্তর প্রদেশের সাংগঠনিক ইন চার্জ সুনীল বনসলও ছিলেন বৈঠকে। অভিজ্ঞ মহলের ধারণা, মহামারী যে দলের ভাবমূর্তি কতখানি ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, শীর্ষ নেতৃত্বের এই তৎপরতাই তার প্রমাণ।
করোনার ভয়াবহ দ্বিতীয় ঢেউয়ে অক্সিজেন, ওষুধ, হাসপাতালের শয্যা সবকিছুর টানাটানিতে মহামারী মোকাবিলায় সরকারের প্রস্তুতিহীনতা প্রকট হয়েছে বলে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সরব দেশ-বিদেশের বহু মানুষ। বিরোধী দল থেকে আন্তর্জাতিক মেডিক্যাল জার্নাল ল্যানসেট — সকলেই সমালোচনায় এককাট্টা।
এর মধ্যে দেশে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্যগুলির একটি হলো উত্তর প্রদেশ। সেখানে কোভিডে মৃতদের লাশ ভাসছে গঙ্গায়, যে ছবি ভাইরাল হওয়ায় শিউরে উঠেছে মানুষ। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সরকারের ভূমিকা প্রবল সমালোচনার মুখে। টেস্ট ও সংক্রামিতের সংখ্যায় কারচুপির অভিযোগও উঠেছে।
দেশের সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যার এই রাজ্য থেকে সংসদে সর্বাধিক বিজেপি সাংসদ রয়েছেন। তাই এই রাজ্যে অন্তত ক্ষমতা ধরে রাখা দলের জন্য অত্যন্ত জরুরি।
সম্প্রতি একটি চিঠিতে দলীয় কর্মীদের উদ্দশে কিছু বার্তা দিয়েছেন নাড্ডা। সেখানে সমাজের কাজে যুক্ত হওয়া, চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, অনাথ হয়ে যাওয়া শিশুদের পাশে দাঁড়াতে বলেছেন তিনি। এই পরিস্থিতি জনসংযোগ বাড়িয়ে ভোট নিশ্চিত করতে চান বিজেপি নেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top