এখনও নানা রাজ্যে লকডাউন-বিধিনিষেধ, তার মাঝেই ‘যুদ্ধজয়ের’ সুর শাহের গলায়

amit-shah.jpg

Onlooker desk: ঠিক যেন আগের বারের প্রতিচ্ছবি। সে বারও করোনার প্রকোপ একটু কমতে না কমতেই ‘লড়াইয়ে জয়’ নিয়ে প্রচারে নেমে পড়েছিল গেরুয়া শিবির। খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিভিন্ন জায়গায় করোনার বিরুদ্ধে দেশের জয়গান গেয়েছিলেন। তার পরের ঘটনা সকলেরই জানা। কিন্তু তাতে শিক্ষা না-নিয়ে মোদীর নেতৃত্বে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে ভারত সফল হয়েছে বলে প্রচার শুরু করে দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বৃহস্পতিবার গুজরাটে ন’টি অক্সিজেন প্লান্টের ভার্চুয়াল উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি।
অথচ, আগের তুলনায় অনেকখানি কমলেও এখনও প্রতিদিন এক লক্ষের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। শুক্রবার গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১ লক্ষ ৩২ হাজার মানুষের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। মারা গিয়েছেন ২ হাজার ৭১৩ জন। এই পরিস্থিতিতে অমিতের প্রচার পরিস্থিতি আরও সঙ্কটপূর্ণ করে তুলবে কি না, তা নিয়ে চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা।
ওই অনুষ্ঠানে অমিত বলেন, ‘অক্সিজেনের চাহিদা ১০ হাজার টন থেকে কমে ৩৫০০ টনে পৌঁছেছে, দেশে করোনার সংক্রমণ কমছে। নরেন্দ্র মোদীর দক্ষ নেতৃত্বেই করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা সামলাতে সক্ষম হয়েছে দেশ। করোনা মোকাবিলায় উন্নত দেশগুলি হিমশিম খেলেও ভারত ধৈর্য ও পরিকল্পনার জোরে এগিয়েছে।’ এর কৃতিত্ব অবশ্য সরকারের পাশাপাশি জনগণকেও দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
প্রথমত, দ্বিতীয় ঢেউ কমলেও তা চলে যায়নি। তা ছাড়া এ বছরের শেষে বা আগামী বছরের গোড়ায় তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার পূর্বাভাস দিয়েই রেখেছেন বিশেষজ্ঞরা। দ্বিতীয় ঢেউয়ে এ পর্যন্ত ৬২৪ জন চিকিৎসক মারা গিয়েছেন। স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর বেহাল ছবি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে উঠে এসেছে। গণচিতা, হাহাকারে ভারত এক সময়ে বিশ্বের করোনা মানচিত্র সবচেয়ে ভয়াবহ রূপ নিয়ে ধরা দেয়। পরিস্থিতি এখনও স্বাভাবিকের চেয়ে অনেকটা দূরে। বিভিন্ন রাজ্যে লকডাউন, বিধিনিষেধ চলছে। টিকাকরণ নিয়ে নির্দিষ্ট পরিকল্পনার অভাবে নিরন্তর সুপ্রিম কোর্ট-সহ বিভিন্ন আদালতে ভর্ৎসনা, প্রশ্নের সম্মুখীন হচ্ছে কেন্দ্র। এই পরিস্থিতিতে শাহের মন্তব্য দায়িত্বজ্ঞানহীন তো বটেই, বিপজ্জনক বলেও মনে করছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। সামান্য ত্রুটিও ফের পরিস্থিতি ভয়াবহ করে তুলতে পারে বলে তাঁদের মত। বর্তমানে দেশে ১৬ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯৯৩ জন করোনায় আক্রান্ত। সেটা আগের তুলনায় অনেকখানি কমেছে। এই অধোগতি যাতে বজায় রাখে সে জন্য আত্মতুষ্টির বদলে সতর্কতার উপরে জোর দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top