পেট্রোপণ্যের দামে আগুন, ওলা ইলেক্ট্রিক স্কুটারের বুকিং শুরু হতেই বিপুল সাড়া দেশে

Ola-electric-scooter.jpg

Onlooker desk: করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে গণপরিবহণ এড়াতে চাইছেন। কিন্তু ব্যক্তিগত গাড়ি বা মোটরবাইকে যাতায়াতের ক্ষেত্রেও বাধ সাধছে পেট্রোপণ্যের দাম। দিন কয়েক আগেই দেশে সেঞ্চুরি ছাড়িয়েছে পেট্রলের দাম। এই পরিস্থিতিতে বাজার ধরতে আসরে নামল ওলা ইলেক্ট্রিক (Ola Electric)। খুব শীঘ্রই ইলেক্ট্রিক স্কুটার (electric scooter) আনতে চলেছে সংস্থাটি। যা একবার ফুল চার্জে ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে পারে। তাই স্কুটারটি লঞ্চ হওয়ার আগেই ক্রেতাদের কাছ থেকে সাড়া মিলেছে বিপুল। প্রি-বুকিং শুরু হতেই ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দেশের ১ লক্ষ মানুষ রেজিস্ট্রেশন করে ফেলেছেন। যা ইলেক্ট্রিক যানবাহন ব্যবহারে বিপ্লবের ইঙ্গিত বলে মনে করছেন সংস্থার কর্তারা।
এমনিতে পরিবেশ বান্ধব যান হিসেবে ইলেক্ট্রিক স্কুটার (electric scooter) আগেই বাজারে এনেছিল বেশ কিছু সংস্থা। তবে বর্তমানে পেট্রোপণ্যের দাম বাড়তে ইলেক্ট্রিক স্কুটারের চাহিদা অনেক গুণ বেড়েছে। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত গোটা দেশে ইলেক্ট্রিক স্কুটার (electric scooter) বিক্রি হয়েছে মাত্র ৩০ হাজার। অথচ পেট্রোপণ্যের দাম বাড়ার এই সময়কালে ওলা ইলেক্ট্রিক স্কুটারের বুকিং নেওয়া শুরু করতেই ১ লক্ষ ক্রেতা নাম নথিভুক্ত করে ফেলেছেন।
প্রি-বুকিংয়ের ক্ষেত্রে নানা সুবিধা রেখেছে সংস্থাটি। মাত্র ৪৯৯ টাকার বিনিময়ে অনলাইনেই বুক করতে পারছেন ক্রেতারা। আবার কোনও কারণে কেউ বুকিং বাতিল করলে টাকা সম্পূর্ণ ফেরত দেওয়ার কথাও সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে। সংস্থা সূত্রের খবর, চলতি জুলাই মাসের মধ্যেই বাজারে চলে আসবে এই ইলেক্ট্রিক স্কুটার (electric scooter)। সে ক্ষেত্রে প্রি-বুকিং করে রাখা ক্রেতাদের আগে ডেলিভারি দেওয়া হবে বলে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে।
ওলা’র চেয়ারম্যান তথা গ্রুপ সিইও ভবিষ্য আগরওয়াল বলেন, ‘ভারতে আমাদের প্রথম ইলেক্ট্রিক যান নিয়ে ক্রেতারা যে ভাবে সাড়া দিয়েছেন তাতে আমরা অভিভূত। এই বিপুল চাহিদা থেকেই পরিষ্কার হচ্ছে যে, মানুষ এবার ইলেক্ট্রিক যানের দিকে ঝুঁকছেন। যাঁরা প্রি-বুকিং করেছেন তাঁদের সকলকে ধন্যবাদ।’
ওলা ইলেক্ট্রিকের (Ola Electric) তরফে জানানো হয়েছে, এই স্কুটারে উন্নতমানের লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি ব্যবহার করা হবে। চাকায় অ্যালয় হুইল ব্যবহার করা হয়েছে। কোনও জিনিসপত্র সঙ্গে নেওয়ার জন্য সিটের নীচে অনেকটা জায়গাও রাখা হয়েছে। এমনকী ক্রেতাদের সুবিধার্থে দেশের ৪০০ শহরে ১ লক্ষ চার্জিং পয়েন্ট তৈরির কথা জানিয়েছে সংস্থাটি। এদিকে বিপুল চাহিদার কথা আঁচ করে উৎপাদনের দিকেও জোর দিয়েছে ওলা ইলেক্ট্রিক (Ola Electric)। এই স্কুটার তৈরির জন্য তামিলনাড়ুতে কারখানা গড়ে উঠেছে। যেখানে বছরে ১০ মিলিয়ন ইলেক্ট্রিক স্কুটার (electric scooter) উৎপন্ন করা যাবে। তবে প্রথম পর্যায়ে দুই মিলিয়ন স্কুটার তৈরি করা হচ্ছে। এখানকার প্রযুক্তি অনুযায়ী ২ সেকেন্ডে একটি স্কুটার প্রস্তুত করে দেওয়া যাবে এবং দিনে ২৫ হাজার ব্যাটারি তৈরি করা সম্ভব।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top