শেষ সংসদের বাদল অধিবেশন। স্পিকারের ঘরে হাসিমুখে মোদী-সনিয়া, বিনিদ্র রাত বেঙ্কাইয়ার

Parliament.jpg

Onlooker desk: নির্ধারিত সময়ের দু’দিন আগেই শেষ হয়ে গেল সংসদের (Parliament) বাদল অধিবেশন (Monsoon session)। এবং বুধবার অধিবেশনে (Monsoon session) দাঁড়ি পড়ার পর সংসদে লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার ঘরে একত্র হলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী, লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী থেকে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেস, অকালি দল, ওয়াইএসআর কংগ্রেস, বিজেডির নেতারা।
পাশাপাশি সোফায় বসে হাসিমুখে আলোচনা সারলেন সকলে। দেখে বোঝার উপায় নেই যে গোটা অধিবেশনে (Monsoon session) কী রকম নারদ-নারদ চলেছে সরকার ও বিরোধীদের! যার জেরে এ বারের অধিবেশনে বহু সময় অপচয় হয়েছে। তুমুল হৈ হট্টগোলে রাজ্যসভার (Rajya Sabha) মোট কার্যকালের মধ্যে ৭৬ ঘণ্টা নষ্ট হয়েছে। কাজ হয়েছে টেনেটুনে ২৮ ঘণ্টা।
সূত্রের খবর, ভবিষ্যতে সব দলকে অধিবেশনের কাজে সহযোগিতার আবেদন জানিয়েছেন লোকসভার (Lok Sabha) স্পিকার। সরকার ও বিরোধী পক্ষ একে অপরকে বাদল অধিবেশনে (Monsoon session) বিঘ্নের জন্য দায়ী করেছে।
একদিকে পেগ্যাসাস, পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, কোভিড ইত্যাদি নিয়ে বিরোধীরা সরকারকে বিঁধে গিয়েছে। পেগ্যাসাস নিয়ে আলোচনা চেয়ে প্রবল শোরগোল ফেলা হয়েছে। অন্যদিকে, ঝড়ের গতিতে একের পর এক বিল পাশ করে গিয়েছে সরকার। তার মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে মোদীর অনুপস্থিতি নিয়েও।
অধীর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদীকে আজই প্রথম দেখলাম। যখন সব শেষ হয়ে যায়, তখন উনি দেখা দেন। সরকার কোনও আলোচনা ছাড়াই বিল পাশ করে গেল। ওবিসি বিল বাদে প্রতিটি বিল কয়েক মিনিটে পাশ হয়েছে। এটাও এই সরকারের একটা রেকর্ড।’
অন্যদিকে, স্পিকার ওম বিড়লা সাংবাদিকদের জানান, এক মাসের অধিবেশনে লোকসভায় (Lok Sabha) কাজ হয়েছে মাত্র ২১ ঘণ্টা। এবং তার উৎপাদনশীলতা টেনেটুনে ২২ শতাংশ।
ওম বলেন, ‘সংসদের অধিবেশন এ বার আশানুরূপ হয়নি, এটা আমাকে মর্মাহত করেছে। সাধারণ মানুষের সঙ্গে জড়িত বহু বিষয়ে আলোচনা সম্ভব হয়নি। এ বার লাগাতার বাধা এসেছে। সেই সমস্যাটা মেটানো গেল না।’
রাজ্যসভাতেও (Rajya Sabha) পরিস্থিতি একই রকম দাঁড়ায়। মঙ্গলবার বিরোধী সাংসদদের অনেকে কক্ষের মাঝখানে টেবিলের উপরে দাঁড়িয়ে পড়েন। একজন সাংসদ চেয়ারম্যানের দিকে রুল বুক ছুড়ে দেন।
রাজ্যসভার (Rajya Sabha) চেয়ারম্যান তথা উপ-রাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু সাংসদদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারেন বলে সূত্রের খবর। বিরোধীদের বিরুদ্ধে ‘গণতন্ত্রের মন্দির’-এ বিঘ্ন ঘটানোর অভিযোগ তুলেছেন বেঙ্কাইয়া।
কান্নায় ভেঙে পড়ে বুধবার তিনি বলেন, ‘গতকাল যে ভাবে এর পবিত্রতা নষ্ট করা হয়েছে, তাতে আমি বিধ্বস্ত। কিছু সদস্য টেবিলে বসে পড়লেন, কেউ কেউ আরও বেশি করে নিজেদের প্রকট করে তুলতে টেবিলে দাঁড়িয়ে গেলেন। এই ঘটনার নিন্দা করার ভাষা নেই আমার কাছে। কাল সারারাত ঘুমোতে পারিনি।’

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top