ধাপে ধাপে খোলা হোক স্কুল, ফের বললেন এইমস-প্রধান

Ranadeep-Guleria-on-schools.jpg

Onlooker desk: তৃতীয় ঢেউ কী ভাবে ঠেকানো যায়, সে ব্যাপারে চলছে প্রস্তুতি। পাশাপাশি দেশে করোনার প্রকোপ কমেওছে অনেকখানি। গত ১২৫ দিনে সবচেয়ে কমে মঙ্গলবার ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩০ হাজার ৯৩ জনের সংক্রমণের হদিস মিলেছে। মারা গিয়েছেন ৩৭৪ জন।
বর্তমান পরিস্থিতিতে ধাপে ধাপে স্কুল (Schools) খোলার পক্ষে কথা বললেন এইমস-এর প্রধান রণদীপ গুলেরিয়া (Randeep Guleria)। দেশজুড়ই গত বছর মার্চ মাস থেকে বন্ধ রয়েছে স্কুলগুলি। একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকারে গুলেরিয়া সোমবার বলেন, ‘অনেক জেলাতেই পজিটিভিটির হার ৫ শতাংশের কম। সেখানে আমি স্কুল খোলার পক্ষপাতী।’
গুলেরিয়া দেশের কোভিড ১৯ (Covid 19) টাস্ক ফোর্সেরও সদস্য। তাঁর মতে, যে সব জেলায় পজিটিভিটির হার কম, সেখানে একদিন ছেড়ে একদিন স্কুলে আনা যেতে পারে পড়ুয়াদের। আর অন্য কী উপায় রয়েছে, তা-ও ভাবা যেতে পারে। আর সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বলে দেখা গেলে সঙ্গে সঙ্গে স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হবে।
গুলেরিয়া বলেন, ‘শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি তো আছেই। পাশাপাশি, শিশুর সামগ্রিক বিকাশে স্কুলের গুরুত্বের কথাও মাথায় রাখতে হবে।’ তিনি জানান, বহু শিশুর শরীরেই কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে প্রাকৃতিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়ে গিয়েছে। করোনার সংস্পর্শে তারা কখনও না কখনও এসেছে। দীর্ঘ সময় ধরে স্কুল বন্ধ। এবং তা শিশুদের উপরে মারাত্মক কুপ্রভাব ফেলছে।
মাস্ক, সামাজিক দূরত্ব, যথাযথ আলো-বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রেখে স্কুল খোলার কথা বলছেন দেশের এই শীর্ষ চিকিৎসক।
এমনিতেই অনলাইন ক্লাসের কারণে দেশে ডিজিটাল ডিভাইড তৈরি হয়েছে। অনেক শিশু সেই সুযোগ পাচ্ছে, অনেকে তা থেকে বঞ্চিত। গুলেরিয়া (Randeep Guleria) বলেন, ‘ইন্টারনেট অ্যাক্সেসের বিভাজন দূর করা যে কতখানি জরুরি, কোভিড-১৯ সেটা দেখিয়েছে। এই বিভাজন সমাজের সব স্তরেই রয়েছে।’
স্কুল খোলার উপরে বরাবরই জোর দিচ্ছেন গুলেরিয়া। জুন মাসে তিনি জানিয়েছিলেন, কী ভাবে ফের স্কুল খোলা যায়, সে ব্যাপারে গুরুত্ব দিয়ে ভাবনাচিন্তা দরকার। সে বার তিনি বলেছিলেন, ‘আমার ব্যক্তিগত ভাবে মনে হয়, স্কুল খোলার জন্য যা করণীয় সব করা উচিত। কারণ এতে আমাদের নবীন প্রজন্মের উপরে প্রবল প্রভাব পড়ছে। বিশেষত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রান্তিকরা। যাদের অনলাইন ক্লাসের সামর্থ্য নেই।’
দেশে এ পর্যন্ত ৩ কোটি ১১ লক্ষ ৪৪ হাজার ২২৯ জনের কোভিড সংক্রমণের হদিস পাওয়া গিয়েছে। ৪ লক্ষ ১৪ হাজার ১০৮ জন মারা গিয়েছেন।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top