তউকতির বার্জডুবিতে এখনও নিখোঁজ ৩৮ ওএনজিসি কর্মী, চলছে উদ্ধারকাজ

WhatsApp-Image-2021-05-20-at-11.12.18-AM.jpeg

Onlooker desk: ঘূর্ণিঝড় তউকতির জেরে বার্জ ডুবে নিখোঁজ ২৬১ জনের মধ্যে ৩৮ জন ওএনজিসি কর্মীর খোঁজ নেই এখনও। দিনচারেক আগে মুম্বইয়ের ৩৫ নটিক্যাল মাইল দূরে ডুবে যায় বার্জটি। পি-৩০৫ বার্জের ১৮৬ জনকে এ পর্যন্ত উদ্ধার করা হয়েছে, পাওয়া গিয়েছে ৩৭ জনের দেহ। ওএনজিসি-র সঙ্গে চুক্তির কাজে আরও দু’টি বার্জকে কাজে লাগিয়েছিল ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম অ্যাফকনস। তার মধ্যে একটিতে থাকা সকলকেই মঙ্গলবার উদ্ধার করা গিয়েছে। অন্যটি সুরক্ষিত রয়েছে। সেটিকে মুম্বইয়ে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে। ওএনজিসির তেল উত্তোলক সাগর ভূষণ ১০১ জন কর্মীকে নিয়ে নোঙর হারিয়ে উত্তরের দিকে চলে গিয়েছিল। সেটিকেও চিহ্নিত করে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।
একাধিক জলযান নিয়ে ২৪ ঘণ্টা উদ্ধারকাজ ও তল্লাশি চালাচ্ছে নৌসেনা। তাদের পি-৮১ রিকনইসাঁ বিমান এবং সি কিং হেলিকপ্টারও কাজ করে চলেছে। পাশাপাশি উপকূলরক্ষী বাহিনী এবং ওএনজিসি-র নিজস্ব ভেসেলে চলছে তল্লাশি। ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ শিপিং মৃত্যুর ঘটনায় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে। ঝড়ের সতর্কতা সত্ত্বেও পি-৩০৫ বার্জটি কেন বিপজ্জনক এলাকায় ছিল, সে ব্যাপারে তদন্ত হবে বলে জানিয়েছে মুম্বই পুলিশও। নিখোঁজ হয়ে যাওয়া আর একটি নৌযান, সঙ্গীতার খোঁজ মিলেছে আজ, বৃহস্পতিবার সকালে। ১০ জন ক্রু সদস্য নিয়ে মহারাষ্ট্রের তারাপুরের কাছে উদ্ধার হয়েছে সেটি। উপকূলরক্ষী বাহিনী যানটিকে উদ্ধার করে ক্রু সদস্যদের জল, খাবার ওষুধপত্র দিয়ে ফিরিয়ে আনছে। গুজরাটের পিপাভাওয়ের কাছে উদ্ধার হয়েছে আরও একটি জাহাজ।
ঝড়ে বার্জগুলি এদিক-ওদিক চলে গিয়েছে জানতে পেরেই উদ্ধারকাজে নেমে পড়ে নৌসেনা। তাদের উদ্যোগেই শেষ পর্যন্ত প্রাণে বাঁচলেন বলে ধন্যবাদ জানাচ্ছেন পি-৩০৫ এর উদ্ধার হওয়া নাবিকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top