কাঞ্চনের বিরুদ্ধে থানায় নালিশ স্ত্রীর, পাল্টা অভিযোগ অভিনেতার

Kanchan-Mallik-and-Pinky.jpg

কলকাতা: কাঞ্চন মল্লিকের বিরুদ্ধে পুলিশে গেলেন স্ত্রী পিঙ্কি বন্দ্যোপাধ্যায়। মানসিক নির্যাতন, হেনস্থার অভিযোগে তাঁর। পাল্টা অভিযোগ দায়ের করেছেন অভিনেতা-বিধায়ক কাঞ্চন। দাবি, পিঙ্কি তাঁর ও বান্ধবী শ্রীময়ী চট্টরাজের দিকে তেড়ে এসেছিলেন।
এ বারের নির্বাচনে উত্তরপাড়া থেকে জিতেছেন কাঞ্চন মল্লিক। তাঁর বিরুদ্ধে রবিবার সকালে নিউ আলিপুর থানায় অভিযোগ করেন পিঙ্কি। প্রসঙ্গত, পিঙ্কি কাঞ্চনের দ্বিতীয় স্ত্রী। শ্রীময়ীর বিরুদ্ধেও অভিযোগ করেছেন তিনি। আর কাঞ্চনের অভিযোগ চেতলা থানায়। পিঙ্কির অভিযোগ, মানসিক নির্যাতন ও মত্ত অবস্থায় গালিগালাজ করেছেন কাঞ্চন। শ্রীময়ীকে নিয়ে তাঁকে গাড়ি থেকে নামিয়ে হেনস্থাও করেছেন।
শ্রীময়ী ও কাঞ্চনের সম্পর্ক নিয়ে বেশ কিছু দিন ধরে গুঞ্জন টলিপাড়ায়। যদিও এতদিন তা অস্বীকার করেছেন শ্রীময়ী।
এ দিকে, সংবাদমাধ্যমে পিঙ্কি জানিয়েছেন, শনিবার রাতে তাঁর নিউ আলিপুরের বাড়িতে যান কাঞ্চন। তিনি তখন বাড়ি ছিলেন না। তিনি চেতলা থেকে ফেরার সময় কাঞ্চন তাঁর গাড়ি আটকান বলে অভিযোগ। পিঙ্কির দাবি, তখন কাঞ্চনের সঙ্গে ছিলেন বান্ধবী শ্রীময়ীও। দু’জনে মিলে তাঁকে হেনস্থা করেন। নানা প্রশ্নের পাশাপাশি কার্যত হুঁশিয়ারিও দেওয়া হয়।
কাঞ্চন ও পিঙ্কির আট বছরের একটি ছেলে রয়েছে। ওই ঘটনার সময় সে গাড়িতে ছিল। এতে ছেলে মারাত্মক ভয় পেয়ে যায় বলে পিঙ্কির অভিযোগ।
এ দিকে, সংবাদমাধ্যমকে কাঞ্চন দাবি করেছেন, তাঁর ‘সৎ সাহস’ রয়েছে। তাই তিনি পিঙ্কির সঙ্গে বসে কথা বলে মিটমাট করতে চেয়েছেন। ন’বছর হলো তাঁদের দাম্পত্য। তা হলে এখন কেন মুখ খুলছেন পিঙ্কি? এই প্রশ্ন তুলছেন কাঞ্চন মল্লিক। এর পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে কি না, সে প্রশ্নও উঠছে।
পিঙ্কি অভিনেত্রী সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়ের নাতনি। শনিবার নিউ আলিপুরের বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীকে দেখতে পাননি কাঞ্চন। তারপরে সাবিত্রীর বাড়িতেই খোঁজ করতে যান। সংবাদনাধ্যমে কাঞ্চনের দাবি, সাবিত্রীকে তিনি সব বলেছেন। প্রবীণ অভিনেত্রীও আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা মেটার উপরে জোর দেন।
শ্রীময়ীর প্রসঙ্গে কাঞ্চন সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘যাকে নিয়ে এত কথা হচ্ছে, এত মিথ্যে অভিযোগ আনা হচ্ছে, আমার সৎ সাহস আছে বলেই তাকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে কথা বলতে চেয়েছিলাম। সেটা না-হলে যেতাম না।’
পিঙ্কির আবার পাল্টা অন্য দাবি। তাঁর অভিযোগ, ‘কার লেজে পা দিয়েছ, জানো না’ বলে শাসিয়েছেন শ্রীময়ী। শ্রীময়ী অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top