শিশুরাও এ বার ভ্যাকসিনের আওতায়, জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারে সায় জাইডাস ক্যাডিলার টিকায়

ZyCoV-D.jpg

Onlooker desk: জাইডাস ক্যাডিলার (Zydus Cadila) থ্রি-ডোজ কোভিড টিকা ইমার্জেন্সি ব্যবহারের ছাড়পত্র পেল। শুক্রবার কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রক এ কথা জানিয়েছে। এই প্রথম দেশে ১২ বছরের বেশি বয়সিদের জন্য কোনও টিকা সবুজ সঙ্কেত পেল। যার হাত ধরে এ বার টিকাকরণে সামিল হতে চলেছে শিশুরাও। কেন্দ্রীয় ড্রাগ নিয়ন্ত্রক সংস্থার সাবজেক্ট এক্সপার্ট কমিটি (এসইসি) প্রস্তুতকারক সংস্থার কাছে দুই ডোজের টিকার ব্যাপারে অতিরিক্ত তথ্য চেয়েছে।
ক্যাডিলা হেলথকেয়ার লিমিটেড আহমেদাবাদের একটি ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা। গত ১ জুলাই নিজেদের প্রস্তুত করা টিকা জাইকোভ-ডি (ZyCoV-D) এর ইমার্জেন্সি ইউজের ছাড়পত্রের আবেদন জানায় জাইডাস ক্যাডিলা (Zydus Cadila)।
দেশজুড়ে ৫০টি কেন্দ্রে ২৭ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর উপরে এই টিকার প্রয়োগ ঘটায় সংস্থাটি। তাতে ৬৬.৬ শতাংশ কার্যকারিতার কথা উঠে আসে। ১২ বছরের বেশি বয়সি এক হাজার শিশুর উপরেও ট্রায়াল চালানো হয় এই টিকার। আগে সংস্থার তরফে জানানো হয়েছিল, দুই ডোজের টিকা তিন ডোজের মতোই কাজ করে। পরবর্তী স্ক্রুটিনির জন্য আরও তথ্যও জমা দিয়েছে তারা। ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার মধ্যে রাখতে হবে এই টিকা।
জাইকোভ-ডি (ZyCoV-D) প্রথম ডিএনএ ভ্যাকসিন। যার মাধ্যমে করোনাভাইরাসের মতোই স্পাইক প্রোটিন তৈরি করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলা হয়। টিকাটি ত্বকের ভিতরে গিয়ে কাজ করবে। সুচ-বিহীন একটি ইঞ্জেক্টরের মাধ্যমে এই ভ্যাকসিনের প্রয়োগ ঘটাতে হবে। যার ফলে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার আশঙ্কাও অনেক কম বলে দাবি প্রস্তুতকারক সংস্থার। প্রথম ডোজের ২৮ দিন বাদে দ্বিতীয় এবং ৫৬ দিন পরে তৃতীয় ডোজ নেওয়ার কথা।
কোভ্যাক্সিনের পর জাইকোভ-ডি ভারতে তৈরি দ্বিতীয় দেশীয় টিকা। ডিপার্টমেন্ট অফ বায়োটেকনোলজির সঙ্গে পার্টনারশিপে এই ভ্যাকসিন তৈরি করেছে ক্যাডিলা। দেশে এই নিয়ে ছ’টি টিকাকে ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে। অন্যগুলি হল পুনের সিরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড, ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন, রাশিয়ার স্পুটনিক ভি, আমেরিকায় তৈরি মডার্না এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের টিকা।
ক্যাডিলার দাবি, জাইকোভ-ডি (ZyCoV-D) করোনার নতুন অবতারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সক্ষম। বিশেষত ডেল্টা ভ্যারিয়ান্টের বিরুদ্ধে এই টিকা কার্যকর। সংস্থার বক্তব্য, তারা বছরে ১০০ থেকে ১২০ মিলিয়ন ডোজ উৎপাদন করবে এই টিকার।
কেন্দ্রীয় ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থার এসইসি স্পুটনিক-ভি এর সিঙ্গল ডোজ টিকার বিষয়টিও দেখছে। দ্রুত টিকার কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য হায়দরাবাদে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ বায়োটেকনোলজিতে একটি পৃথক গবেষণাগার তৈরি করা হয়েছে।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top