এ মাসেই করোনার তৃতীয় ঢেউ, শীর্ষে পৌঁছবে অক্টোবরে, পূর্বাভাস গবেষকদের

India-third-wave.jpg

লকডাউন শিথির হওয়ার পর থেকে এমন ভিড়ই বাড়াচ্ছে উদ্বেগ

Onlooker desk: দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ (third wave) আছড়ে পড়তে পারে এ মাসেই। তবে তৃতীয় ঢেউয়ের (third wave) ভয়াবহতা দ্বিতীয় ঢেউয়ের মতো হবে না। শীর্ষে পৌঁছলেও ন্যূনতম ১ লক্ষ থেকে দেড় লক্ষের মধ্যে থাকবে দৈনিক সংক্রমণ।
আইআইটি হায়দরাবাদ ও কানপুরের অধ্যাপক-গবেষক মাথুকুমাল্লি বিদ্যাসাগর ও মণীন্দ্র আগরওয়ালের নেতৃত্বে একটি গবেষণায় এ কথা উঠে এসেছে। বর্তমানে যে ধীরে ধীরে কোভিডের সংক্রমণ ফের বাড়ছে, সেটাই তৃতীয় ঢেউকে (third wave) ত্বরান্বিত করছে। তৃতীয় ঢেউ (third wave) শীর্ষে পৌঁছতে পারে অক্টোবরে। এর মধ্যে কেরালা ও মহারাষ্ট্রে সংক্রমণের সবচেয়ে বেশি আশঙ্কা বলে গবেষক বিদ্যাসাগর একটি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন।
সোমবারও গত ২৪ ঘণ্টায় ৪০ হাজারের বেশি সংক্রমণ ঘটেছে দেশে। নতুন করে ৪০ হাজার ১৩৪ জনের শরীরে করোনার নমুনা পাওয়া গিয়েছে। মারা গিয়েছেন ৪২২ জন। পজিটিভিটি রেট ধীরে ধীরে বেড়ে ২.৮ শতাংশ হয়েছে।
সব মিলিয়ে তৃতীয় ঢেউয়ের (third wave) আশঙ্কা বাড়ছে। তবে আশার কথা একটাই, এই ঢেউ দ্বিতীয়র মতো অতখানি মারাত্মক হবে না। এই গবেষকদের গবেষণাতেই দ্বিতীয় ঢেউয়ের শীর্ষ ও তা কমার যথাযথ পূর্বাভাস উঠে এসেছিল। এ বারও বিদ্যাসাগররা গাণিতিক মডেলের ভিত্তিতেই তৃতীয় ঢেউ সম্পর্কে আগাম জানান দিচ্ছেন।

আরও পড়ুন: দেশে একদিনে মৃত ৬০০-র কাছাকাছি, ১০ রাজ্যের পরিস্থিতি পর্যালোচনায় কেন্দ্র

আইআইটি হায়দবারাবাদের অধ্যাপক বিদ্যাসাগর মে মাসে জানিয়েছিলেন, ভারতের করোনা অতিমারী দিনকয়েকের মধ্যেই শীর্ষে পৌঁছবে। তার পরে জুনের শেষ ভাগের মধ্যে তা কমে আসবে। তবে এপ্রিলে তিনি যে প্রেডিকশন দিয়েছিলেন, তা মেলেনি। সে সময়ে বিদ্যাসাগর জানিয়েছিলেন, ভাইরাসের চরিত্র এতটাই অবোধ্য ও পরিবর্তনশীল হয়ে দাঁড়িয়েছে যে আগাম আঁচ করায় সমস্যা হচ্ছে।
রবিবার ভারতে ৪১ হাজার ৮৩১টি নতুন করোনা সংক্রমণের হদিস পাওয়া গিয়েছিল। মারা যান ৫৪১ জন। এর মধ্যে কেরালা, মহারাষ্ট্র, উত্তর-পূর্বাঞ্চল-সহ দেশের ১০টি রাজ্যকে সতর্ক করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।
তার উপরে ডেল্টা সংক্রমণের জেরে আশঙ্কা আরও বেড়েছে। কারণ টিকাকরণ হয়ে গেলেও ডেল্টার আশঙ্কা থেকে পুরোপুরি মুক্ত, এমন কথা বলা যাচ্ছে না। আবার, টিকাকরণ হলেও সেই ব্যক্তির মাধ্যমে ছড়াতে পারে এই প্রজাতি। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ডেল্টা অনেকটা চিকেন পক্সের মতো ছোঁয়াচে। যেখানে একজন আক্রান্ত ৮ জনকে অসুস্থ করতে পারে (যাকে আর ভ্যালু বলে)।
এরই মধ্যে দেশে করোনার আর ভ্যালু বেড়ে ১-এর কাছাকাছি পৌঁছেছে। এইমস প্রধান রণদীপ গুলেরিয়া এ নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

Theonlooker24x7.com সব খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক করুন ফেসবুক পেজ  ফলো করুন টুইটার

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top