দেশে সাড়ে চার হাজার পেরিয়ে গেল দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা

COVID-DETH.jpg

সৎকার চলছে কোভিডে মৃতদের দেহ — ফাইল চিত্র

Onlooker desk: দৈনিক মৃত্যু ছাড়িয়ে গেল সাড়ে চার হাজারের সীমা। বুধবার গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪,৫২৯। নতুন করে সংক্রামিত হয়েছেন ২ লক্ষ ৬৭ হাজার মানুষ। গতকাল একদিনে মৃতের সংখ্যা ছিল ৪,৩২৯। গত এক সপ্তাহে মৃত্যু চার হাজারের নীচে নামেনি। বিভিন্ন রাজ্য লকডাউন বা কড়াকড়ি জারি করায় দৈনিক সংক্রমণ কিছুটা কমানো গেলেও স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর যা অবস্থা তাতে মৃত্যুতে লাগাম পরানো যাচ্ছে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। গুরগাঁওয়ের একটি হাসপাতালে কোভিডে মারা গিয়েছেন উত্তর প্রদেশের মন্ত্রী বিজয় কাশ্যপ (৫৬)। গত বছরও করোনায় মৃত্যু হয়েছিল সে রাজ্যের দুই মন্ত্রীর। বিজয়ের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন জানিয়েছেন, ২২টি রাজ্যে পজিটিভিটি রেট ১৫-র থেকেও বেশি। গড় পজিটিভিটি রেট ১৩.৩১। গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ লক্ষ ৮ হাজার ২৯৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ-ও এক রেকর্ড। এত টেস্ট সত্ত্বেও দৈনিক সংক্রমণ কমা কিছুটা আশার কথা বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।
কেন্দ্র মঙ্গলবার জানিয়েছে, দেশের মোট জনসংখ্যার মাত্র ১.৮ শতাংশ এ পর্যন্ত ভাইরাসের শিকার হয়েছেন। এক শীর্ষ আধিকারিকের কথায়, ‘এ পর্যন্ত এত মানুষ সংক্রামিত হওয়া সত্ত্বেও মোট জনসংখ্যার ২ শতাংশেরও নীচে সংক্রমণকে বেঁধে রাখতে পেরেছি আমরা। কিন্তু সাবধানতা বজায় রাখতেই হবে। তাই কনটেনমেন্ট জরুরি।’
কিন্তু টিকার জোগান এখনও বেশ কম। মোদী যদিও জানাচ্চেন যে যত বেশি সম্ভব ভ্যাকসিন সরবরাহের চেষ্টা করছেন তাঁরা। কিন্তু বহু রাজ্যেই টিকার হাহাকার। তার মধ্যে আবার কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার নতুন নিয়মে দেখা দিয়েছে নতুন গোলমাল। যাঁরা ইতিমধ্যে দ্বিতীয় ডোজের জন্য নাম লিখিয়েছেন, তাঁরা বাদে বাকিদের এখনও তা নেওয়ার সময় আসেনি। ৩-৪ মাস বাদে ফের টিকা পাবেন তাঁরা। আবার, অনেক ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট ভাবে ৪৫ ঊর্ধ্বদের জন্য পাঠানো টিকা ১৮ থেকে ৪৪-কে দেওয়া যাচ্ছে না সে জন্য কিছু কিছু ক্ষেত্রে টিকা স্টোরে জমেও থাকছে। নীতি আয়োগের ভি কে পল মঙ্গলবার জানান, ২ থেকে ১৮ বছর বয়সিদের টিকাকরণের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হবে আগামী ১০-১২ দিনের মধ্যে। বর্তমানে প্রায় কোনও দেশেই শিশুদের জন্য নির্দিষ্ট টিকা নেই।
এর মধ্যে উদ্বেগ সবচেয়ে বেশি চিকিৎসকদের নিয়ে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এ পর্যন্ত ২৭০ জন ডাক্তার মারা গিয়েছেন বলে জানিয়েছে ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (আইএমএ)। সোমবার মারা গিয়েছেন আইএমএ-র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট কে কে আগরওয়াল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top